স্কার্ট পরা তরুণীকে হন্য হয়ে খুঁজছে সৌদি কর্তৃপক্ষ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সৌদি আরবে এক তরুণী মিনি স্কার্ট পরে প্রকাশ্য স্থানে ঘুরে বেড়াচ্ছেন- এমন এক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইটগুলোতে ছড়িয়ে পড়ার পর তার তদন্ত শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। খবর বিবিসির।জানা যাচ্ছে, খুলুদ নামের ওই তরুণী একজন মডেল এবং তিনি নিজেই তার মিনিস্কার্ট পরা ভিডিওটি পোস্ট করেছেন।স্ন্যাপচ্যাটে গত সপ্তাহ শেষে ভিডিওটি পোস্ট করা হয়।ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, খুলুদ মিনিস্কার্ট ও ওপরের অংশে ছোট জামা পরা অস্থায় উশায়কির নামে একটি ঐতিহাসিক দুর্গের ভেতরের খালি রাস্তায় হাঁটছেন।দুর্গটি রাজধানী রিয়াদের ৯৬ মাইল উত্তরে।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রুতই এ নিয়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়। কিছু লোক আহ্বান জানান, রক্ষণশীল মুসলিম দেশ সৌদি আরবের পোশাক পরার রীতিনীতি ভঙ্গ করার জন্য খুলুদকে গ্রেপ্তার করে শাস্তি দেয়া হোক।টুইটারে খালেদ জিদান নামে এক সাংবাদিক লেখেন, ‘সৌদি আরবে ‘হাইয়া’ বা ধর্মীয় পুলিশ ফিরিয়ে আনা আবশ্যক হয়ে পড়েছে। আরেকজন লেখেন, ‘আমাদের উচিত দেশের আইন মেনে চলা। ফ্রান্সে নারীদের হিজাব নিষিদ্ধ এবং কেউ তা পরলে তার জরিমানা হবে। তেমনি সৌদি আরবেও আবায়া ও সংযত পোশাক পরা এ রাজ্যের আইনের অংশ।কিছু সৌদি নাগরিক আবার এই তরুণী মডেলের পক্ষ নেন। তারা তার ‘সাহসের’ প্রশংসা করেন। কেউ কেউ বলেন, খুলুদ যে পোশাক পরতে চায় তাই পরতে দেয়া উচিত।লেখক এবং দার্শনিক ওয়ায়েল আল ঘাসিম বলেন, তিনি ‘ক্রুদ্ধ এবং ভীতিকর’ টুইটগুলো দেখে মর্মাহত হয়েছেন।তিনি লেখেন, ‘আমি তো ভাবলাম সে বুঝি বোমা মেরেছে বা কাউকে খুন করেছে। পরে দেখলাম তর্ক হচ্ছে তার স্কার্ট নিয়ে। আমি বুঝি না তাকে গ্রেপ্তার করা হলে ২০৩০ রূপকল্প কিভাবে বাস্তবায়ন হবে।’‘রূপকল্প ২০৩০’ হচ্ছে যুবরাজ সালমানের ঘোষিত সংস্কার পরিকল্পনা।কেউ কেউ লেখেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্ত্রী ও কন্যা সৌদি আরবে এসে আবায়া বা মাথায় কাপড় দেননি।ফাতিমা আল-ইসা নামে একজন লেখেন, খুলুদ যদি বিদেশি হত- তাহলে আমরা তার সরু কোমড় এবং চোখ নিয়ে মুগ্ধতা প্রকাশ করতাম। কিন্তু যেহেতু খুলুদ সৌদি, তাই আমরা বলছি তাকে গ্রেপটার করতে হবে।সৌদি আরবের ধর্মীয় পুলিশ ও প্রাদেশিক কর্তৃপক্ষ বলেছে তারা এ ভিডিওটির ব্যাপারে তদন্ত করছে।সৌদি আরবের রীতি হচ্ছে, প্রকাশ্য স্থানে মুসলিম নারীদের ঢিলা আলখাল্লা জাতীয় পোশাক আবায়া এবং মাথায় হিজাব পরতে হবে। সেদেশে নারীদের গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ এবং তারা সম্পর্কিত নয় এমন পুরুষদের থেকেও আলাদা থাকতে হবে।উশায়কির দুর্গটি নেজদ প্রদেশের অন্তর্গত – যেটি সৌদি আরবের সবচেয়ে রক্ষণশীল অঞ্চলগুলোর একটি। সৌদি রাজপরিবার যে গোঁড়া সুন্নি ওয়াহাবি মতাদর্শ অনুসরণ করেন – তার প্রতিষ্ঠাতা আবদুল ওয়াহাবের জন্ম হয়েছিল এখানেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!