সেতু থেকে স্ত্রী-সন্তানকে ফেলে দিলেন

রুপসা সংবাদদাতা :খুলনার খানজাহান আলী (র.) সেতু থেকে স্ত্রী ও ১৪ মাসের শিশু সন্তানকে রূপসা নদীতে ফেলে দিয়েছেন রমজান আলী শেখ।
মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত চেষ্টা চালিয়েও কোস্টগার্ডের দুটি টিম তাদের সন্ধান পায়নি। উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
এর আগে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে খানজাহান আলী সেতুতে বেড়াতে গিয়ে স্ত্রী তৈয়েবা খাতুন (২৫) ও ১৪ মাসের শিশু আব্দুর রহিমকে ফেলে দেন রমজান আলী। তারা নগরীর খালিশপুরস্থ বঙ্গবাসী স্কুল সংলগ্ন বাসায় ভাড়া থাকেন।
ঘটনার পরপরই রমজান আলী শেখকে উপস্থিত জনতা গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছেন। এ ঘটনায় তার শ্বাশুড়ি বাদী হয়ে রূপসা থানায় হত্যা এবং হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় পারিবারিক কলহের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। রমজান আলী শেখ ফার্নিচারের দোকানের কর্মচারী।
রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার রমজান আলী শেখ তার স্ত্রী-সন্তানকে ফেলে দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেননি। তার দাবি, সন্তানকে নিয়ে তার স্ত্রী নিজেই নদীতে লাফিয়ে পড়েছেন। তাকে নেশাগ্রস্ত এবং মানসিক বিকারগ্রস্ত মনে হচ্ছে। তবে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে প্রকৃত রহস্য বের হবে বলে আশা করছেন তিনি।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানান, ঈদের পর দিন মঙ্গলবার সকালে বরিশালে আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার উদ্দেশে স্ত্রী ও শিশু সন্তানকে নিয়ে খালিশপুরের বাসা থেকে বের হন রমজান আলী শেখ। সারা দিন তারা নগরী ও আশপাশের আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে সময় কাটিয়ে বিকেলে খানজাহান আলী সেতুতে যান। রাত পৌনে ৯টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বাক-বিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে স্ত্রীর কাছে থাকা শিশু আব্দুর রহিমকে ছিনিয়ে নিয়ে নদীতে ফেলে দেন বাবা রমজান আলী। এ সময় সন্তানকে উদ্ধারের জন্য স্ত্রী তার হাতে-পায়ে ধরে কান্নাকাটি করতে থাকলে তাকেও নদীতে ফেলে দেন তিনি।
প্রত্যক্ষদর্শী আতিক উল্লাহ জানান, ঘটনার সময় অসংখ্য দর্শনার্থী সেতুর ওপর ছিলেন। ঈদের ছুটি উপভোগ করছিলেন তারা। হঠাৎ দেখতে পান প্রকাশ্যে একটি লোক তার স্ত্রী ও বাচ্চাকে নদীতে ফেলে দিচ্ছেন। এরপরই দর্শনার্থীরা তাকে আটক করে গণধোলাই দেন। খবর পেয়ে রূপসা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এলে তাকে সোপর্দ করা হয়।
কোস্টগার্ড রূপসা সেতু স্টেশনের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মো. মর্তুজ আলী বলেন, ঘটনার পর থেকে তাদের উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বুধবার মংলা থেকে আরেকটি টিম যোগ দিয়েছে।
তিনি জানান, ফেলে দেওয়ার সময় রূপসা নদীতে প্রচণ্ড স্রোত ছিল। যে কারণে তাদের দেহ বটিয়াঘাটার পুটিমারি ও কাজিবাছা এলাকায় ভেসে উঠার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে সেই দিকেই তারা টহলে রয়েছেন। খুঁজে না পাওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!