সুইস ব্যাংকে টাকা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদক : সুইস ব্যাংকে টাকা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সংসদকে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাবে, সরকার তার বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে।সোমবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের অনুপস্থিতিতে তার হয়ে প্রশ্নের জবাব দেন কামরুল ইসলাম।সুনামগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান প্রশ্ন করেন, বাংলাদেশ থেকে সুইস ব্যাংকে টাকা পাচার বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের টাকা সুইস ব্যংকে জমা হয়েছে। এ টাকা বন্ধের ব্যপারে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কি না।কামরুল ইসলাম বলেন, ‘এই বিষয়ে সরকারের নজরে আছে ।যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ব্যপারে আমরা চিন্তা ভাবনা করছি এবং তদন্তের পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকে (সুইস ব্যাংক) এক বছরে বাংলাদেশি সঞ্চয় ১৯ শতাংশ বেড়েছে বলে সদ্য প্রকাশ হওয়া এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৬ সাল শেষে বাংলাদেশিদের আমানত দাঁড়িয়েছে ৬৬ কোটি ১৯ লাখ ফ্র্যাংক। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা (প্রতি সুইস ফ্র্যাংক ৮৪.৪৭ টাকা হিসাবে)। গত বছর এই সঞ্চয়ের পরিমাণ ছিল চার হাজার ৪৫২ কোটি টাকা। এ হিসেবে এক বছরে বেড়েছে ১ হাজার ১৫০ কোটি টাকা।বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার হচ্ছে। দেশের আইনি এবং বেআইনি আয় দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে। অন্যদিকে সৎ উপার্জনকারীরা করের চাপে থাকবে- এটা নৈতিকভাবে গ্রহণযোগ্য নয়।’দেবপ্রিয় বলেন, ‘অবৈধ অর্থ উপার্জন ও পাচারকারীদের নাম-পরিচয় ঘোষণা হওয়ার পরও যথাযথ পদক্ষেপ না নিলে সৎ করদাতাদের মনোবল ভেঙে পড়ে।’ এসময় টাকা পাচার রোধে জোর দেওয়ার আহবান জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!