সিলেট এক্সপ্রেস পত্রিকার নিবন্ধন বাতিলের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি

সিলেট এক্সপ্রেস পত্রিকার নিবন্ধন বাতিল ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সিলেট জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। জাতীয় প্রত্রিকা দৈনিক তরুণ কন্ঠের সিলেট জেলা প্রতিনিধি ও জাতীয় প্রত্রিকা দৈনিক ভোরের ধ্বনি পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার দায়িত্বে রয়েছেন জাকির হোসেন সুমন এ আবেদন করেছেন।
আবেদনে তার বিরুদ্ধে মানহানিকর, অবমাননাকর সাংবাদিকতার নীতি নৈতিকতা বিবর্জিত, ছাপার অযোগ্য শব্দ ব্যবহার করে তার বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন সংবাদ ছাপা হয়েছে বলে স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেছেন। সিলেট এক্সপ্রেসের সাথে আপোষমীমাংসার নামে স্টাফ রিপোর্টার আবুল হোসেনের মাধ্যমে তার কাছে ১ (এক) লক্ষ টাকা চাঁদা চাওয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।
তিনি জেলা প্রশাসক বরাবর লিখেছেন, আমি নি¤œ স্বাক্ষরকারী এই মর্মে আবেদন জানাচ্ছি যে, দৈনিক সিলেট এক্সপ্রেস নামক একটি প্রিন্ট পত্রিকা নগরীর সুরমা মার্কেট থেকে বের হচ্ছে। এই পত্রিকায় সম্পাদক ও প্রকাশক হিসেবে মো. ছুরত আলী, নির্বাহী সম্পাদক খলিলুর রহমান ব্যবস্থাপনা সম্পাদক আজিজুর রহমান, স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে আবুল হোসেন, মো. রায়হান হোসেন মান্না, শাকিল আহমদ কাজ করছেন বলে জানাযায়। এই পত্রিকায় সিলেটের বিভিন্ন গন্যমান্য ব্যক্তি সম্পর্কে আজেবাজে,মিথ্যা,ভিত্তি সংবাদ প্রকাশ করে মানুষকে জিম্মি করে মোটা অংকের চাঁদা আদায় করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তারা প্রতিদিন বিভিন্ন ব্যক্তি নিয়ে মানহানিকর, অবমাননাকর, ছাপার অযোগ্য বিভিন্ন শব্দ ব্যবহার করে সাংবাদিকতার নীতি নৈতিকতা বিবর্জিত শব্দ,বাক্য প্রয়োগ করে সংবাদ প্রকাশ করে যাচ্ছে।
এতে লোকজন নানা বিব্রতকর অবস্থার সম্মুখীন হচ্ছে প্রতিনিয়ত। সংবাদ প্রকাশের পর আরো ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করা হবে বলে হুমকি দিযে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে মোটা অংকের চাঁদা। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৩০/০৯/২০২১ ইং আমাকে নিয়ে অবমাননাকর, ভিত্তিহীন, বিশ্রী, ছাপার অযোগ্য শব্দ ব্যবহার করে ‘সিলেটে কে সেই ইয়াবা সুমন কোথায় তার খুঁটির জোর?’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে। যা নিয়ে আমি বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছি। ভবিষ্যতে তারা এরকম আরো সংবাদ প্রকাশ করবে বলে হুমকি দিচ্ছে।
তাদের সাথে আপোষমীমাংসার নামে আবুল হোসেনের মাধ্যমে আমার কাছে ১ লক্ষ টাকা চাঁদাদাবী করছে। আমি তাদের দাবীকৃত চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তারা সিলেটের গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদের সাথে আমাকে নিয়ে আরো মানহানিকর, অবমাননাকর, ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করবে বলে হুমকি দিচ্ছে। পত্রিকাটির সম্পাদক বিভিন্ন পত্রিকার নিবন্ধন নিয়ে আবার বিক্রি করেন বলে জানাযায়। এর আগে সিলেটের হালচাল নামে আরো একটি পত্রিকা তিনি নিবন্ধন নিয়ে বিক্রি করেছেন। এটাই তাহার বাণিজ্য ।
পত্রিকাটির বিগত ৩ মাসের প্রিন্ট কপি পর্যালোচনা করলে এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাবে। পত্রিকাটির নিবন্ধন বাতিল করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।
error: Content is protected !!