রূপসায় যুবক রাজ হত্যা মামলা উদঘাটন, পরকিয়ার জের

খুলনা প্রতিনিধি : রূপসায় ভাবির সাথে পরকিয়ার অপরাধে জীবন দিতে হলো রাজ নামে এক যুবককে। এ ঘটনায় পুলিশ হত্যার সাথে জড়িত থাকার অপরাধে একজনকে আটক করেছে। পুলিশ জানায়, রূপসা থানার নৈহাটি ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের আমির আলীর পুত্র রাজ খান (১৯) কে খুন করা হয় ভাবির সাথে পরকিয়ার অপরাধে । সম্প্রতি ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া আসামী জামসেদ মল্লিক আদালতে এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
পুলিশ জানায় গত ১ জুন সকালে রূপসা উপজেলার নন্দনপুর হিরো ব্রিকস ইট ভাটার সন্নিকটে আঠারোবেকী নদীর চরে মস্তক বিহীন বস্তাবন্দী একটি লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশ উদ্ধারের পর বেওয়ারিশ হিসাবে আঞ্জুমান মফিজুল ইসলাম মৃত দেহটির দাফন কাজ সম্পন্ন করেন। এ ব্যাপারে থানা পুলিশের এস আই আ, খালেক বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা দায়ের করেন য়ার নং-০১, তাং ০১/০৬/১৭ইং, ধারা ৩০২/২০১/৩৪ দ:বি:। মামলাটি তদন্ত ভার গ্রহন করেন রূপসা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. জিয়াউল ইসলাম। মামলার দায়িত্ব গ্রহনের পর ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভরের মাধ্যমে রহিমনগর গ্রামের মান্নান ওরফে মুরাদ মল্লিকের পুত্র জামসেদ মল্লিক (৩৩) কে তার বাড়ি থেকে আটক করেন। গ্রেফতারের পর পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে নিজেকে উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। খুলনার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার দালাল এর আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন জামসেদ। অপরদিকে রহিমনগর থেকে নিখোজ হওয়া রাজ খানের পিতা আমির আলী খান তার পুত্রের নিখোজের বিষয়ে রূপসা থানায় জিডি এন্ট্রি করে। অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধারের পর তদন্ত কারী কর্মকর্তা নিখোজ রাজ খানের সাথে তার (উদ্ধার হওয়া লাশ) সম্পৃক্ততা আছে কিনা যাচাই বাছাই করতে থাকেন।পুলিশ জানায় জবানবন্দিতে সে পুরো হত্যাকান্ডের কাহিনী বর্ণনা করে। বর্ণনা মতে একই গ্রামের বাবু খানের পুত্র, রাজের চাচাতো ভাই মিজান খানের স্ত্রীর সাথে রাজ খানের দীর্ঘদিন অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মিজান রিকসা চালক জামশেদকে নিয়ে খুলনার সোনাডাঙ্গায় বসে রাজকে খুন করার পরিকল্পনা করেন এবং ১০ হাজার টাকা দেওয়ার আস্বাস দেন মিজান। অবশেষে গত ২৯ জুলাই রাত সাড়ে ৯ টার দিকে সুকৌশলে একই গ্রামের জামসেদ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রাজ খানকে বাড়ী থেকে ডেকে নিয়ে যায় নন্দনপুর এলাকায় মিজানের হাতে তুলে দেয়। এক পর্যায়ে মিজান খান ও জামসেদ সহ ৪/৫ জন যুবক রাজ খানকে নন্দনপুর হিরো ইট ভাটার পার্শ্বে নদীর চরে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসী মিজান নিজ হাতে প্রথমে রাজ খানকে চাপাতি দিয়ে দেহ থেকে মাথা আলাদা করার জন্য কোপ দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। পরে তার সহযোগিরা ধারালো ছুরি দিয়ে জবাই করে একটি বস্তায় ভরে মৃত দেহটি নদীতে ভাসিয়ে দেয় এবং মাথাটিও নদীতে ভাসিয়ে দেয়। হত্যাকান্ডের সময় মিজান বারবার রাজ খানকে দোসারোপ করে তার স্ত্রীর সাথে পরকিয়া প্রেম করার কারনে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ঘোষনা দেয়। পুলিশ জানায় মিজান খানের বিরুদ্ধে রূপসা থানায় মৎস্য ব্যবসায়ী জলিল ও ফ্রেস সী ফুডসের গ্রেটার ফারুক হত্যা মামলা, একটি অস্ত্র মামলাসহ একাধিক চার্জশিট ভুক্ত মামলার আসামী। সে পূর্ব বাংলাকমিউনিষ্ট পার্টির নেতা বলেও পুলিশ জানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!