যেভাবে ভারতের রাষ্ট্রপতি হতে পারেন মীরা কুমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ১৭ জুলাই। তার আগে নিজেদের শিবিরের রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী নিয়ে সরকার-বিরোধী দল দুই শিবিরেরই ব্যস্ততা তুঙ্গে। এখনও পর্যন্ত যা পরিস্থিতি, হাসতে হাসতে রাইসিনা হিলের বাড়িতে যাচ্ছেন এনডিএ-র মনোনীত প্রার্থী রামনাথ কোবিন্দ। কিন্তু পাশা উল্টোনো একেবারে অসম্ভব নয়। ঠিক কী ঘটলে রামনাথের জায়গায় আগামী রাষ্ট্রপতি হতে পারেন বিরোধী প্রার্থী মীরা কুমার? চলুন দেখে নেয়া যাক।
রামনাথ কোবিন্দ ও মীরা কুমার। প্রথমজন ভারতের রাজনীতিতে একেবারেই অপরিচিত, দলিত নেতা, বিহারের রাজ্যপাল। দ্বিতীয়জন দলিত নেতা জগজীবন রামের মেয়ে, লোকসভার স্পিকার ছিলেন। তাছাড়া দুজনেই আইনজীবী, জন্মেছেনও এক বছরে- ১৯৪৫।
মীরার পরিচিতি অনেক বেশি হলেও সোজাসাপটা ভোটের হিসেবে তার থেকে অনেক এগিয়ে রামনাথ। তার ঝুলিতে বিজেপি ও সহযোগী দলগুলির ভোট তো আছেই, এছাড়াও রয়েছে সংযুক্ত জনতা দল, বিজেডি, টিআরএস, এআইএডিএমকে ও ওয়াইএসআর কংগ্রেসের ভোট। সব মিলিয়ে মোট ভোটের ৬০ শতাংশের বেশি, যা তার জয়ের পক্ষে যথেষ্ট। উল্টো দিকে মীরার পক্ষে রয়েছে কংগ্রেস, বিএসপি, এসপিসহ ১৭ দলের ভোট। যা ভোটের ৪০ শতাংশ হতে পারে।
ভোট হতে এখনও সপ্তাহ তিনেক বাকি। আর রাজনীতি তো বরাবরই চূড়ান্ত অনিশ্চয়তার ময়দান। রাজনীতিকরা যখন তখন দল বদলে ফেলেন, নিজেদেরই দেয়া কথা ফিরিয়ে নেন। তাই যদি কোবিন্দকে সমর্থনের কথা জানিয়ে দেয়া সবকটি অ-এনডিএ দল নিজেদের অবস্থান থেকে সরে এসে মীরাকে সমর্থন করে, তাহলে কোবিন্দের জয়ের সম্ভাবনা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে।
তাছাড়া মীরা বরাবরই বড় মাঠের খেলোয়াড়। পিছিয়ে থেকে জয় ছিনিয়ে নেয়ার ব্যাপারে তার সুনাম রয়েছে। ১৯৮৫ সালে নিজের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশের বিজনৌর থেকে তিনি জেতেন বিএসপি প্রধান মায়াবতী ও এলজেপি প্রধান রামবিলাস পাসোয়ানকে হারিয়ে। যদি সেই সুনাম মীরা ধরে রাখতে পারেন, তবে রাষ্ট্রপতি হতে পারেন তিনি।
১৯৬৯-এর রাষ্ট্রপতি ভোটের দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন নীলম সঞ্জীব রেড্ডি। অল ইন্ডিয়া কংগ্রেস কমিটির সমর্থন ছিল তার সঙ্গে। কিন্তু শেষ হাসি হাসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ভি ভি গিরি, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সমর্থন ছিল তার প্রতি। কংগ্রেস সাংসদ, বিধায়কদের কাছে তিনি আবেদন করেন ‘বিবেকের কথা শুনে ভোট দিতে’। যাই হোক রেড্ডিকে হারিয়ে রাষ্ট্রপতি হন গিরি। এবারেও তেমনই কিছু ঘটে গেলে কোবিন্দের বদলে পাঁচ বছরের জন্য রাইসিনা হিল ঠিকানা হতে পারে মীরার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!