1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. sharifnews24@gmail.com : sharif ahmed : sharif ahmed
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ব্যাংক হিসাব চাওয়া নিয়ে সাংবা‌দিক ‌নেতা‌দের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই….তথ‌্যমন্ত্রী সিলেটে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বাবরের মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সার্চের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। আফগানিস্তানে নারী শিক্ষা কুমিল্লা-৭ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা বিদেশ থেকে আপত্তিকর প্রতিবেদন প্রকাশ করলে ব্যবস্থা…তথ্যমন্ত্রী নবম-দশম শ্রেণিতে থাকছে না কোনো বিভাগ….শিক্ষামন্ত্রী নাঙ্গলকোটে ৪ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ডিসেম্বরের মধ্যে ২০ কোটি ডোজ টিকা আসবে নাঙ্গলকোটে দুই স্কুলের ৪ তলা ২ ভবন টেলিকন্ফারেন্সের টেলিকন্ফারেন্সের উদ্বোধন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল লোটাস নাঙ্গলকোটে নববধূ ধর্ষণ স্বামীকে হত্যার অভিযোগ, আটক-১

মুই নেম কি আর গেরোস্তক দেম কি

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ৫ মে, ২০১৮
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : মানসের (মানুষের) তিন বিঘা জমি আদি (বর্গা) নিয়া আবাদ করছোম, যে পোকা নাগচে (লাগছে) আবাদ তো হবা নয়, এ্যার মদে (মধ্যে) গেরোস্তক (জমির মালিক) দেম কি, আর মুই নেম কি, এবার তো না খায়া (খেয়ে) থাকা নাগবে (লাগবে)।
কথাগুলো বলছিলেন, গাইবান্ধা সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের হরিণসিংহা গ্রামের দিনমজুর কৃষক দেলোয়ার হোসেন।
তার তিন বিঘা জমির প্রায় অধিকাংশ ধানই ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে সাদা হয়ে গেছে।
একই অবস্থা পাশের তরফকাল গ্রামের কৃষক কাকরু মিয়ার তিনি বলেন, তিনদিন ধরে ঝড়ি (বৃষ্টি) পরতেছে, এর মদোত (মধ্যে) কাম (কাজ) করি কেমনে, দুই বিগা (বিঘা) জমিত আবাদ করচোম, সাদা হয়া সগি (সব) তো নষ্ট হচে, আবাদ না হয় কমে হলো, ঝড়ির (বৃষ্টি) মদোত ধান যে কাটা যায় না বাহে।
এমন চিত্র শুধু কাকরু মিয়া ও দেলোয়ার হোসেনের নয়, এ চিত্র গাইবান্ধা জেলা জুড়েই, জেলার চলতি মৌসুমে ১ লাখ ৩০ হাজার ৬শ’ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। কিন্তু ধানের জমিতে বিভিন্ন পোকার আক্রমণ, বিরামহীন বৃষ্টি, শিলা ও বজ্রপাতের কারণে আশানুরূপ ফলন ঘরে তুলতে পারবেন না কৃষক। এতে দিনমজুর, অসহায় ও দরিদ্র কৃষকদের কষ্টের সীমা থাকছে না। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের এটা একটা পূর্বাভাস। বাংলাদেশে ধীরে ধীরে আগাম বন্যা ও অসময়ে অতিবৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে। এতে ধানের জমিতে ফলন ভালো হচ্ছে না, পোকা-মাকড়ের আক্রমণ বাড়ছে।
গাইবান্ধা কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আ ক ম রুহুল আমিন বলেন, চলতি মৌসুমে জেলার বিভিন্ন এলাকায় কিছু কিছু জায়গায় ব্লাষ্ট রোগের আক্রমণ ও শিলাবৃষ্টির কারণে ধানের জমি নষ্ট হওয়ার খবর পেয়েছি তবে এতে আমাদের চাল উৎপাদনের যে লক্ষ্যমাত্রা তা ব্যহত হবে না। আমরা ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের তালিকা তৈরীর কাজ করছি এবং তাদের পূনর্বাসনের ব্যাপারে পদক্ষেপ হাতে নিয়েছি।
এছাড়াও আমাদের প্রত্যেক ইউনিয়নের ব্লক সুপারভাইজাররা (বিএস) কৃষকদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন ও তাদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার)
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা :
উপদেষ্টা : জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা : এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা : শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা : অবসরপ্রাপ্ত জামিল আর্মি,

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!