বাস্তবায়ন হচ্ছে জগন্নাথের পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাসের স্বপ্ন

ডেস্ক রিপোর্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী রাজধানীর অদূরে কেরানীগঞ্জে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাস হতে যাচ্ছে। আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ২৮৭ কোটি ১৩ লাখ টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন হওয়ার কথা রয়েছে।প্রকল্পটি অনুমোদন হলেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব কেনা সাত একর জায়গায় এক হাজার ছাত্রের আসনবিশিষ্ট একটি হল নির্মাণ করা হবে। যার নাম হবে বঙ্গবন্ধু হল। এছাড়া ২০ তলার একটি একাডেমিক ভবন র্নিমাণের পরিকল্পনাও রয়েছে।গত ১৫ জানুয়ারি গণভবনে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব সংকট নিয়ে সরকার অবগত আছে। যত দ্রুত সম্ভব জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটি বড় ক্যাম্পাস নির্মাণ করে দেয়া হবে। মাস্টার প্লান অনুযায়ী নদীর ওপারে কেরানীগঞ্জে একটি স্বয়ংসর্ম্পূণ ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া চলমান আছে।’এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন,‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি আন্তরিক। উনার নির্দেশে বুড়িগঙ্গার ওপারে কেরানীগঞ্জে সমস্ত সুযোগ সুবিধা সম্বলিত একটি ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া এগিয়ে চলেছে।’ভিসি বলেন, ‘বুড়িগঙ্গার ওপারে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিজস্ব সামর্থ্য অনুযায়ী আট একর জায়গা কিনেছে। এছাড়াও একই এলাকায় সরকার ৫০ একর জমি অধিগ্রহণ করার প্রক্রিয়া অনেকদূর এগিয়ে নিয়েছে। এ জায়গায় ছাত্র-ছাত্রীদের হল, খেলার মাঠ, ক্যান্টিন, টিএসসি, লাইব্রেরি, সাংস্কৃতিক কেন্দ্র থেকে শুরু করে যুগের সাথে তাল মেলাতে প্রয়োজনীয় সব অবকাঠামো র্নিমাণ করা হবে।’মীজানুর রহমান বলেন, ‘সবকিছু ঠিকমত চললে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় হবে বাংলাদেশের অন্যতম সুন্দর, আধুনিক ক্যাম্পাস সম্বলিত বিশ্ববিদ্যালয়।’তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘জগন্নাথ বাংলাদেশের একমাত্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে পিয়ন থেকে শুরু করে ভিসি পর্যন্ত সবাই প্রতিদিন বাইরে থেকে ক্যাম্পাসে আসেন।’হল নির্মাণসহ একটি স্বয়ংসর্ম্পূণ ক্যাম্পাসের দাবিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জায়গা খালি থাকায় ওই জায়গা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কে দেয়ার দাবিতে গত বছর আন্দোলন তীব্র আকার ধারণ করে। পরে সকারের উচ্চমহল থেকে শিক্ষার্থীদের হল নির্মাণসহ একটি স্বয়ংসর্ম্পূণ ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার আশ্বাস পেয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা আন্দোলন স্থগিত করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!