বাবর-আবুল-খলিলদের বিরুদ্ধে পুলিশ কমিশনার বরাবর স্মারকলিপি মোহনের।

বদরুর রহমান বাবর,আবুল হোসেন,মোল্লা খলিলদের বিরুদ্ধে পুলিশ কমিশনার বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। সিলেটের একজন সাংবাদিক বাদী হয়ে এ স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। বদরুর রহমান বাবর, ক্রাইম সিলেটের আবুল হোসেন,সিলেট এক্সপ্রেসের মোল্লা খলিল সহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে তিনি এ স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপিতে আয়েশা আফছানা নামক জনৈক মহিলাকে বাদী করে বিবাদীরা পরস্পর যোগসাজসে ৫ জনকে আসামী করে কোতোয়ালী থানায় ভূয়া মামলা দায়ের করেন।আয়েশা আফসানাকে বদরুর রহমান বাবরের দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে তিনি স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেছেন।

তিনি স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন,আমি একজন সহজ সরল আইনমান্যকারী লোক। বিবাদীরা একদল সংঘবদ্ধ অপরাধীচক্র। তারা বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে ও ফেসবুক, ইমু,হোয়াটসঅ্যাপ,ম্যাসেঞ্চারসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যক্তি সম্পর্কে বানোয়াট নিউজ,অপপ্রচার করে মানুষকে জিম্মি করে টাকা আদায় করে।

তাদের বিরুদ্ধে সিলেটের বিভিন্ন থানায় অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। তারা বদরুর রহমান বাবরের নেতৃত্বে নগরীর বালুচর এলাকায় মদ,গাজা,ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত,বালুচর এলাকায় নারী দিয়ে দেহ ব্যবসা,টিলাকাটাসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত।

তাদের দাপটে বালুচর এলাকাবাসী জিম্মি। কেহ ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায় না। বালুচর এলাকায় বদরুর রহমান বাবরের বাড়িতে প্রায়ই আসামীরা নারী নিয়ে অবৈধ মেলামেশায় লিপ্ত হয় বালুচর এলাকার সিসিটিভি ক্যামেরা দেখলে বুঝবে পারবেন। তারা বালুচর এলাকায় চাঁদাবাজির সাথে জড়িত।

অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে তারা নিজেদেরকে সাংবাদিক বলে পরিচয় দেয়। বদরুর রহমান বাবর আমার পূর্ব পরিচিত হওয়ায় আমার একটি সামাজিক সংগঠন‘ক্লিন সিলেট’রেজি: করে দেওয়ার কথা বলে গত ১৪/০৩/২০২১ ইং তারিখে আমার এন আই ডি কার্ড নেয়,যাহার নং-৯১৩৮৮৩৫৭৪০।পরবর্তিতে বিভিন্ন সময় আমার এনআইডি কার্ড ফেরত চাইলে বাদী সময় ক্ষেপন করে।যা নিয়ে আমি শাহপরাণ (র.) থানায় সাধারণ ডায়রী করি।

যার নং-১৩৮৯. তাং-২৮/০৮/২১ ইং। বদরুর রহমান বাবর আমার জিডির খবর পাইয়া অন্যান্য বিবাদীদের জানায়।

সমূহ বিবাদীরা আমাকে মিথ্যা মামলা ও
বিবাদী আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাসানোর জন্য এলাকায় বিভিন্ন মহিলাকে আর্থিক প্রলোভন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়ার জন্য লোক খুজতে থাকে।

সৈয়দা কবিরুন নেছাকে ২০,০০০/- টাকার প্রলোভন দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়ার প্রস্তাব দিলে কবিরুন নেছা রাজি না হওয়ায় বদরুর রহমান বাবর সহ অন্যান্য বিবাদীরা কবিরুন নেছাকে মিথ্যা মামলা করার জন্য চাপ দিতে থাকে।

এ নিয়ে তিনি বাদী হয়ে বাবরসহ আরো একজনকে বিবাদী করে শাহপরাণ থানায় সাধারণ ডায়রী করেন। যার নং-১৯৪. তারিখ-০৪/০৯/২০২১ ইং।

উপরোক্ত জিডির সূত্র ধরে কয়েকটি অনলাইন পোর্টাল নিউজ করলে অন্যান্য বিবাদীদের প্ররোচনায় বদরুর রহমান বাবর বাদী হইয়া মিথ্যা ভিত্তিহীন,সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোনীত ভাবে,হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্যে আমাকেসহ ৮ জনকে বিবাদী করে সাইবার ট্রাইবুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা গত ১৫/০৯/২০২১ ইং মিথ্যা মামলা দায়ের করে।আদালত বিষয়টি তদন্ত ভার শাহপরাণ (র.) থানা পুলিশকে দায়িত্ব দিয়েছেন।

এদিকে সমূহ বিবাদীরা বদরুর রহমান বাবরকে দিয়ে সাইবার মামলা করে ক্ষান্ত হয় নাই।

বদরুর রহমান বাবরসহ অন্যান্য বিবাদীদের যোগসাজসে জৈনক আয়েশা আফসানাকে দিয়ে আমি,আমার ভাই,আমার বৃদ্ধ পিতাসহ ৫ জনকে দিয়ে কোতোয়ালী থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করায়।

যার নং- জি.আর-৭০৫/২১। এই মামলায় আমরা জামিনে আছি ও আমার বড় ভাই রাজন আহমদ মিথ্যা মামলার জেল হাজতে ছিল ৭ দিন জেল খেঠে বের হয়েছে ।

অথচ মামলার বিবরণে মহিলাকে মারধর মোবাইলসেট চুরি স্বর্ণালঙ্কার লুট ইত্যাদি উল্লেখ করা হয়েছে।

কোন ধরনের তদন্ত ছাড়া কোতোয়ালী থানা পুলিশ বিবাদীদের কাছ থেকে যে কোন সুবিধা নিয়ে মামলাটি গ্রহণ করেছে।

মামলার এজাহারে জনৈক আয়েশা আফসানাকে আমার ভাই রাজন আহমদের স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেওয়া হয়েছে। অথচ এই মহিলাকে আমি বা আমার পরিবারের কেউ কোনদিন দেখিনি।

মামলার পর এলাকায় খবর নিলে জানাযায়, আয়শা আফসানা বদরুর রহমান বাবর বাসার সাবেক কাজের মহিলা। যাকে বাবর তার ১ম স্ত্রীর অগোচরে দ্বিতীয় বিয়ে করেছে।

এই বিয়ে ৪ নং বিবাদী মোল্লা খলিল পড়িয়েছে বলে এলাকার লোকজনের মুখে শোনা যায়। বাবর বালুচর এলাকায় অন্যের জমি ও সরকারী খাস খতিয়ানের জমি দখল করে গরুর খামার করেছে। সেই খামারের পাশেই আয়েশা আফছানা বাসা দিয়ে থাকে।

ভূয়া ঠিকানা ব্যবহার আয়েশা আফছানাকে দিয়ে বিবাদীরা বিভিন্ন ব্যক্তিকে মামলার আসামী করে পরে শালিসে নিষ্পত্তির নামে মানুষকে জিম্মি করে মোটা অংকের চাঁদা আদায় করে। মহিলাদের দিয়ে মামলা করিয়ে শালিসে নিষ্পত্তি করা উপরোক্ত আসামীদের পেশায় পরিণত হয়েছে।

আয়েসা আফছানার মতো অসংখ্য মহিলা বিবাদীদের হাতে জিম্মি।যারা বিবাদীদের কথায় যে কারো নামে মামলা দায়ের করে।শেষে বিবাদীরা আপোষমীমাংসার নামে মোটা অংকের টাকা আতœসাত করে।

এখানেই শেষ নয়.বিবাদীরা কতিত সিলেট এক্সপ্রেস সাংবাদিক রায়হান মান্নাকে দিয়ে আমি সহ ৯জনকে আসামী করে গত ২৮/০৯/২১ ইং সাইবার ট্রাইবুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরেকটি মিথ্যা,ভিত্তিহীন মামলা দায়ের করে বদরুর রহমান বাবর, যার তদন্তভার বিজ্ঞ আদালত শাহপরাণ (র.) থানাকে দিয়েছেন।

এই মামলার এজাহার উত্তোলন করে জানতে পারি মামলার বাদী মো. রায়হান হোসেন মান্না আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা,কাল্পনিক,বানোয়াট অভিযোগ নিয়ে শাহপরাণ (র.) থানায় সাধারণ ডায়রী করেন।

যার নং-৯৮৫. তারিখ ২২/০৯/২১। সংঘবদ্ধ অপরাধীরা আমাকে ও আমার পরিবারকে বিভিন্ন মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করতে উঠেপড়ে লেগেছে।

তারা আমাকে ও আমার পরিবারকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে ও আমাকে বাবরের বিরৎদ্ধে দায়ের করা জিডি প্রত্যাহার করার জন্য হুমকি দিচ্ছে। আমি তাদের ভয়ে আতœগোপনে থাকি।

গত ২৭/০৯/২০২১ ইং আমাকে উপরোক্ত বিবাদীরা সন্ধ্যার পর আমার বাসার সামনে পেয়ে জিডি প্রত্যাহারের জন্য আমাকে বলে।

আমি রাজি না হওয়ায় সমূহ বিবাদীরা আমাকে কিল,ঘুষি,লাত্তি মেরে মাঠিতে ফেলে দেয় আমার চিকৎারে আমার পরিবারের লোকজন ও আশপাশের লোকজন আগাইয়া আসলে বিবাদীরা আমাকে আহত অবস্থায় ফেলে চলে যায়।
বার্তা ও তথ্য দেওয়া অভিযোগ কারী মোহন আহমেদ। ০১৭৬৮৭৫৯৯৩৪।

error: Content is protected !!