ফুটবলের মহাতারকা মেসির বিয়ে

ক্রীড়া ডেস্ক : ফুটবলের রাজা তিনি। জাদুর কাঠি নিয়ে ফুটবল বিশ্বকে অবাক করে দেয়া সেই লিওনেল মেসির বিয়েটাও হল রাজকীয় ঢঙে। রূপকথার রাজ্যে রানীর মুকুটটা উঠল মেসির ছেলেবেলার খেলার সাথী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোর মাথায়।
সতীর্থ, গুরু, বন্ধু আর শুভাকাঙ্ক্ষীদের পদচারণায় বাড়তি রং লেগেছে বিয়েতে। হরেক রকম খাবার আর বাহারি আলোকসজ্জা কেড়েছে সবার মন। ছুঁয়েছে হৃদয়। উন্মাদনা, উত্তেজনা আর দুটি মনের আনুষ্ঠানিক মিল ফুটবল বিশ্বে স্থাপন করল অনন্য এক নজির।
বন্ধনটা বেশ পুরনো। ১৯৯৬ সালে। লিওনেল মেসি তখন ৯ বছরের বালক। প্রেম, ভালবাসা এই শব্দগুলোর সঙ্গে তখন আলাপ হয়নি। বন্ধু লুকাস স্ক্যাগলিয়ার সঙ্গে রোজারিওতে ফুটবল খেলেই সময় কাটত মেসির। কিন্তু শুধুই কি বন্ধুর সঙ্গ? নাকি আরও কারও সঙ্গ চাইত মন? শেষমেশ স্ক্যাগলিয়ার কাজিন আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোর সঙ্গে মেসির দেখা।প্রথম দেখাতেই প্রেমে পড়া, ভালো লাগা। ধীরে ধীরে সেটা ভালোবাসায় রূপ নেয়। ২০০৭ সালে জানাজানি হয় এই সম্পর্কের কথা। এরপর তিন বছর চলে প্রেমের লুকোচুরি খেলা। অবশেষে গাঁটছড়া বাঁধলেন মেসি আর আন্তোনেল্লা। শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টায় সিটি সেন্টার রোজারিওর পাঁচতারা হোটেল অনুষ্ঠিত হয়েছে মেসির বিয়ে।সবচেয়ে অবাক করা খবর, মেসির বিয়েতে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি ডিয়েগো ম্যারাডোনাকে। তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন লুইস এনরিকে। জানা যায়, পরে বার্সায় আলাদা করে পার্টি দেবেন মেসি। বিয়েতে ২৬০ জন অতিথির নিরাপত্তা ও গোপনীয়তা রক্ষায় ৩০০ জন নিরাপত্তারক্ষী কাজ করেন। মেসির বিয়ে কভার করেছেন ১৫০ জন সাংবাদিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!