ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন ৪ বছরেও চালু হয়নি, শুষ্ক মৌসুমে অগ্নিকান্ড আতঙ্কে উপজেলাবাসী

ঝালকাঠি সংবাদদাতা : ঝালকাঠির রাজাপুরে নির্মাণকাজ শুরুর ৪ বছর অতিবাহিত হলেও এখনও চালু হয়নি ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন। ফলে শুষ্ক মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে একের পর এক অগ্নিকান্ডের ঘটনায় আতঙ্কে উপজেলাবাসী। এ উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন চালু না থাকায় পার্শ্ববর্তী ঝালকাঠি, কাউখালি, কাঠালিয়া ও ভান্ডারিয়ার ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌছানোর পূর্বেই সবকিছু পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে যায়। ঝালকাঠি জেলার মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা রাজাপুর। এ উপজেলায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বেসরকারি, ২টি পেট্রোল পাম্প, ৬টি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রির দোকান, শতাধিক পেট্রোল বিক্রির দোকান, বেকারি-হোটেল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকলেও উপজেলা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার দীর্ঘদিনেও ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন স্থাপন হয়নি। বিভিন্ন সময় অগ্নিকান্ডে গুরুত্বপূর্ণ অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, আশ্রয় কেন্দ্র ও বসতঘর পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে নিস্ব হয়ে যায় মানুষ। দীর্ঘদিনের দাবীর প্রেক্ষিতে গেল ২০১৪ সালের জুলাই মাসে ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা বরাদ্ধ পেয়ে উপজেলা সদরের অদূরে রাজাপুর ডিগ্রি কলেজের সামনের এলাকায় রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। কিন্তু নির্মাণ সামগ্রীর মুল্য বৃদ্ধির ফলে বরাদ্ধকৃত টাকা দিয়ে নির্মাণ কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন করতে না পারায় কাজ শুরুর ৪ বছর অতিবাহিত হলেও ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন চালু করা সম্ভব হয়নি।
ঝালকাঠি গণপূর্ত বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পুরো কাজ সম্পন্ন করতে আরও ১৫ লাখ টাকার প্রয়োজন। ২০১৭ সালের প্রথম দিকে রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের জন্য বরাদ্ধকৃত একটি নতুন গাড়ি ও একটি পাম্প ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনে এক বছর ধরে পরে আছে কিন্তু সংশ্লিষ্ট কারও রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন চালুর কোন উদ্যোগ চোখে পড়েনি। দীর্ঘদিন ধরে রাজাপুরে রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন না থাকায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, আশ্রয় কেন্দ্র ও বসতঘর পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে গেছে। আতঙ্কে রয়েছে দাহপদার্থ বিক্রির ব্যবসায়ীসহ উপজেলাবাসী।
ইউএনও আফরোজা বেগম পারুল জানান, দীর্ঘদিন ধরে রাজাপুরে রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন না থাকায় বিভিন্ন অগ্নিকান্ডে ব্যাপক ক্ষতির কথা স্বীকার করে ইউএনও জানালেও চলমান শুষ্ক মৌসুমে ফায়ার সার্ভিস খুবই প্রয়োজন। দ্রুতই উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে চালুর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন কর্মকর্তা মেহেদি হাসান জানান, ২০১৭ সালের প্রথম দিকে রাজাপুরের জন্য বরাদ্ধকৃত একটি নতুন গাড়ি ও একটি পাম্প ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনে এক বছর ধরে পরে আছে। ঝালকাঠির গণপুর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ জানান, রাজাপুর ফায়ার ষ্টেশনের নির্মাণের জন্য ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়। ২০১৪ সালের জুলাই মাসে নির্মাণ কাজ শুরু করলেও নির্মাণ সামগ্রীর মুল্য বৃদ্ধির ফলে বরাদ্ধকৃত টাকা দিয়ে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। বাকি কাজ সম্পন্ন করতে আরো ১৫ লাখ টাকার প্রয়োজন। এর জন্য চাহিদা পত্র ঢাকায় পাঠানো হয়েছে বরাদ্ধ পেলে কাজ সম্পন্ন করে হ্যান্ডওভার করা হবে। জেলার গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা রাজাপুরকে অগ্নিকান্ডের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষায় দ্রুতই রাজাপুর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন চালুর দাবী উপজেলাবাসীর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!