‘প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে সিএসআর বাধ্যতামূলক করা উচিত’

প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেই ব্যবসায়িক সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) বাধ্যতামূলক করা উচিত বলে মনে করেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ- বিলস।
গতকাল বুধবার সংগঠনটির সিএসআর ইউনিটের প্রোগ্রাম অফিসার জেসমিন জুঁই তাদের বিভিন্ন কর্মশালার সুপারিশগুলো তুলে ধরতে গিয়ে বলেন, প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের সিএসআর বাধ্যতামূলক করা উচিত। তিনি বলেন, সিএসআর গাইডলাইন তৈরি করে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে গাইডলাইনের আওতাভুক্ত করা, শ্রমিক–কল্যাণ ফান্ড ও সিএসআর ফান্ড দুটো আলাদা করা, সিএসআর খাত নির্ধারণ। কোন খাতে সিএসআর হিসেবে কত অর্থ ব্যয় হবে, কাদের জন্য ব্যয় হবে, কিভাবে ব্যয় হবে, নীতিমালায় তার স্পষ্ট উল্লেখ থাকা উচিত।
বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডির বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিল্স) সেমিনার হলে সাংবাদিকদের নিয়ে “ব্যবসায়িক সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর), সামাজিক ন্যায় বিচার ও শ্রমিকের কল্যাণ এবং নির্মাণ শ্রমিকের পেশাগত সুরক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তা’ শীর্ষক সেমিনারে আয়োজন করে (বিল্স)। সেখানে সামাজিক দায়বদ্ধতা বিষয়ক বিভিন্ন বিষয় পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়।
বাংলাদেশে সিএসআর পরিস্থিতি তুলে ধরে জেসমিন জুঁই বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে কিছু প্রতিষ্ঠান সিএসআর কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তার মধ্যে ব্যাংক, মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি, দেশীয় সেবা প্রদানকারী ও পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান উল্লেখযোগ্য। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই সিএসআর কার্যক্রম দাতব্য ও ব্যবসায়িক সুনাম বৃদ্ধির জন্য বাস্তবায়ন করছে। সিএরআর কার্যক্রমের আওতায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান শিক্ষা, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, চিকিৎসা সেবা, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান, শীতবস্ত্র বিতরণ, সৌন্দর্য‌্য বর্ধন ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
সেমিনারে বিলসের তথ্য বিভাগ থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশে প্রতিবছরই শ্রমিক মৃত্যুর হার বাড়ছে। গত ২০১৬ সালে বিভিন্ন দুর্ঘটনায় ৮৫জন নিহত এবং আহত হয়েছে ৯৭জন। ২০১৫ সালে ৬১ জন নিহত এবং আহত হয়েছে ১১৯ জন।
চলতি বছরে এই মৃত্যুর ঘটনা আরও বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। চলতি মাসের ৬ তারিখে রাজধানীর রমনা থানাধীন বেইলি রোডে বহুতল নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করার সময় ১০ তলা থেকে পড়ে গিয়ে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু হয়।
নির্মাণ ক্ষেত্রে সংঘটিত দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে জানানো হয়, ভালো সিঁড়িতে পর্যাপ্ত আলোর অভাব, এলোমেলোভাবে রড, বালু ও ইট রাখা, কর্মক্ষেত্রে নেট না থাকা অথবা নাজুক নেটের ব্যবহার, কপিকলের ব্যবস্থা না থাকা, হেলমেট, গ্লাভসের ব্যবস্থা না করা, খালি পায়ে কাজ করা, প্রচণ্ড রোদে রাজ করা, অসাবধানতা ও অসচেতনভাবে আবদ্ধ স্থানে প্রবেশ, ত্রুটিপূর্ণ যন্ত্রপাতির ব্যবহার, বিশ্রাম কম, দূর্বল মাচা; দেয়াল/মাটি চাপা পড়া, ঝুলন্ত অবস্থায় কাজের সময় বেল্ট ব্যবহার না করা, ভালো জুতা ব্যবহার না করা, আধুনিক যন্ত্রপাতির অভাব, ত্রুটিপূর্ণ বৈদ্যুতিক লাইন ইত্যাদি। যার ফলেই প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা।
কর্মশালায় সিএসআর প্রেক্ষিত ও নির্মাণ শ্রমিকদের সুরক্ষা ও সামাজিক নিরাপত্তা বিষয়ে দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। সভায় বক্তারা বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে নির্মাণ শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ বৃদ্ধি, নির্মাণ শ্রমিকদের কাজের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা বিধি লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া, বর্তমান বাজার দর অনুযায়ী শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণ, বহুতল ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া, সরকার পক্ষের পরিদর্শন ব্যবস্থা জোরদার করা, এলাকা ভিত্তিক নিরাপত্তা কমিটি গঠনের বিষয়ে সুপারিশ করেন।
বিল্স নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহম্মদের সঞ্চালনায় কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন বিল্স উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বিল্স সিএসআর ইউনিট চেয়ারম্যান রায় রমেশ চন্দ্র, যুগ্ম মহাসচিব ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ লেবার রাইটস জার্নালিস্ট ফোরামের সভাপতি কাজী আব্দুল হান্নান, জাতীয় শ্রমিক জোট বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক নইমুল আহসান জুয়েল, ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, বাংলাদেশ নির্মাণ শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহমেদ, নির্মাণ শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. নুরুল হক এবং গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!