1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

পলাশবাড়িতে বেগুন নিয়ে বিপাকে কৃষকরা

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৮
  • ৩০ বার পড়া হয়েছে

গাইবান্ধা সংবাদদাতা : গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার ব্র্যাক মোড়ে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের পাশে গড়ে ওঠা সবজির পাইকারীহাটে অন্যান্য সবজির তুলনায় বেগুনের দাম অনেক কম।

গতকাল শনিবার এই হাটে বেগুন বিক্রি করতে এসে বিপাকে পড়েন কৃষকরা।

কোন কৃষকের মুখে ছিল না হাঁসি। বস্তা ভর্তি বেগুন নিয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকার পরও কোন পাইকার দাম না করায় অনেক কৃষক মাটিতে ঢেলে চলে যায়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার ব্র্যাক মোড়ের পূর্ব পাশে গড়ে ওঠা পলাশবাড়ি পাইকারী হাট। এখানে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শাক-সবজির পাইকারী হাট বসে। দুপুরের পর বসে গরু ও বাঁশের হাট।

শনিবার সকালে সবজির হাটে বেগুন, মরিচ, আলু, পোটল, জালি কুমড়া, লাউ, শসা, আদা, রসুন, করলা, কাকরোল, ঝিঙ্গা, কচু, বটবটিসহ বিভিন্ন শাক-সবজি নিয়ে আসে বিভিন্ন এলাকা থেকে কৃষকরা।

প্রতিদিনের ন্যায় অন্যান্য সবজি বিক্রি হলেও বস্তা ভর্তি সবজি নিয়ে দুপুর পর্যন্ত বেগুন নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে কৃষকদের। পাইকাররা কৃষকের বেগুন মান ভেদে মন প্রতি কিনছে ৩০-১০০ টাকায়।

ঈদ পরবর্তী বেগুনের চাহিদা না থাকায় দাম নেই বললেই চলে। অথচ এক সপ্তাহ আগে এই হাটে কৃষকের কাছ থেকে পাইকাররা প্রতি মন বেগুন ৫০০ থেকে ৮০০ টাকায় কিনেছেন।

পলাশবাড়ি উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের মেরিরহাট গ্রামের আতিকুর রহমান বলেন, সকাল ৭টার সময় আড়াই মণ বেগুন নিয়ে হাটে আসছি। তবে কোন পাইকার আমার কাছে আসেনি এবং কেউ দামও করেনি। গেল ঈদের আগে পাঁচ মণ বেগুন ৬০০ টাকা করে বিক্রি করেছি। এখন বিকাল তিনটা বাজে কেউ দাম না করায় মাটিতে ঢেলে দিলাম। এই বেগুন বহন করে আর বাড়িতে নিতে চাচ্ছি না।

একই উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের ভগবানপুর গ্রামের আবুল কালাম আজাদ বলেন, সাত বিঘা জমিতে বেগুন চাষ করেছি। ঈদের আগ পর্যন্ত ৫০০-৭০০টাকা করে মণ প্রতি বিক্রি করতে পারছি। তবে ঈদের পর একে বারে দাম নেই বললেই চলে। তিন মণ বেগুন ৫০ টাকা করে ১৫০টাকায় বিক্রি করেছি।

হাটের পাইকার রবিউল প্রধান বলেন, হাট থেকে সবজি কিনে ঢাকায় পাঠাই। ঢাকার পাইকারদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বেগুন কিনতে আগ্রহ প্রকাশ না করায় আমরাও তেমন বেগুন কিনছি না। তবে বেগুনের দাম নেই একে বারেই। সর্ব নিম্ন ৩০টাকা এবং সর্বোচ্চ ১০০টাকায় বেগুন কিনেছি।

জহুরুল ইসলাম বলেন, ঈদ উপলক্ষে ঢাকায় তেমন জনগণ না থাকায় বেগুনের চাহিদা কম। তাছাড়া সব সবজির কম দামে কিনেছি। কৃষকরা বেগুনের দাম না পাওয়ায় তারা বড় বিপাকে পড়েছেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ঈদে আসা মানুষগুলো ঢাকায় ফিরে যাবে। তখন ঢাকায় বেগুনের দাম বাড়লে আমরা কৃষকের কাছ থেকে বেশি দামে কিনতে পারবো। কিছু পাইকারকে আমরা বেগুন দিব বলে আজ শনিবার হাট থেকে কিনলাম। তখন কৃষক লাভবান হবে বলে আমি মনে করি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!