নাঙ্গলকোটে ৪০ গ্রামের মানুষ পানিবন্ধি

নিজস্ব প্রতিনিধি : গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টি ও ভারতের পানি আসায় ডাকাতিয়া নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ৭টি ইউপির ৪০টি গ্রামের মানুষ পানিবন্ধি হয়ে রয়েছে। জানা যায়, উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ডাকাতিয়া নদীর পানি বিপদসীমার ওপর প্রবাহিত হচ্ছে। এলাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ও অফিসে পানি ঢুকে পড়েছে। তবে এসব এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো ত্রাণসামগ্রী দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা। ফলে পানিবন্দী পরিবারগুলো মানবতার জীবনযাপন করছে।সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার ৭টি ইউপির সাতবাড়িয়া ইউপির সাতবাড়িয়া, সাজনপুর, তপবন, নাইয়ারা, বক্সগঞ্জ ইউপির বড় কালি, কোকালি, দক্ষিন আলিয়ারা, আজিয়ারা, মানিক গংঙ্গা, শুভপুর, সিংগেরপাড়া, ভোমরা, ঢালুয়া ইউপির মনতলি, পুটিজলা, গাংগেরপাড়, জামুরাইল, চিওয়া, খাজুরিয়া, বেরলা, হুগলি, চরবাপাথর, ননুয়াকান্দি, লইতুপা, মৌকরা ইউপির মোড়েশ^র, চারিতুপা, ঘোরকমুড়া, পরকরা, দৌলখাঁড় ইউপির পাইকোট, কান্দাল, দেওভান্ডার, রায়কোট ইউপির কুকুরিখিল, গাসিয়াল, পিপড্ডা, চাঁন্দের বাগ, পূর্ব বামপাড়া, চান্দুর ও বাঙ্গড্ডা ইউপির শ্যামপুর গ্রামসহ এ সব ইউনিয়নের ডাকাতিয়া নদীর তীর ঘেষা অপেক্ষাকৃত নিচু অঞ্চল প্লাবিত হয়ে ওই গ্রাম গুলোর অন্তত লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। অপর দিকে পানিবন্ধি থাকায় হাঁস, মুরগি, গরু, ছাগলসহ বিভিন্ন প্রাণীর পানি বাহীত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। অনেকে গবাদি পশু নিয়ে আত্নীয়দের বাড়ীতে গিয়ে আশ্রয় নিচ্ছে। এছাড়া সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ ভবন, ওই ইউনিয়নের অন্তত ৩টি বিদ্যালয়, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। পানিবন্দী ঢালুয়া ইউপির মনতলি গ্রামের ৬৫ বছরের বৃদ্ধা আবুল খায়ের ও রায়কোট ইউপির পিপড্ডা গ্রামের মৃত. নুরুজ্জামানের ছেলে ফজলুল হক ও চান্দুর গ্রামের কবির আহম্মদের ছেলে নাছির, দৌলখাড় ইউপির সাবেক ইউপি সদস্য ও কুমিল্লা জেলা আ.লীগের কাউন্সিলর আব্দুল খালেকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, টানা বৃষ্টি ও ভারতের পানি ডাকাতিয়া নদীতে আসায় উপজেলার বক্সগঞ্জ, সাতবাড়িয়া-গুণবতি সড়কের বিভিন্ন অংশ ডুবে গেছে। নদীর পানি আগের চেয়ে বেশি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।অধিকাংশ গ্রামের অসংখ্য ঘর-বাড়িতে পানি উঠছে। তলিয়ে গেছে কয়েক হাজার একর মাঠের ধান ও শাক-সবজির ক্ষেত। ভেসে গেছে অসংখ্য পুকুর ও মৎস্য প্রজেক্টের মাছ। অধিকাংশ গ্রামীণ সড়ক পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ভেঙ্গে পড়েছে গ্রামীন যোগাযোগ ব্যবস্থা। উপজেলার তপোবন গ্রামের আবদুস সাত্তার বলেন, তাদের বাড়ি-ঘর সব পানিতে ডুবে গেছে। স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে খুবই কষ্টে রয়েছি। তিনি আরো বলেন, গত কয়েক দিন ধরে আমরা কষ্টে থাকলেও সরকারের কোন লোকজন এসে কোন খবর নেয়নি। অপর দিকে জোড্ডা ইউপির বাহুড়া গ্রামের খন্দকার সহিদের পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। উপজেলার সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান কাজী ইয়াছিন বলেন, তাঁর ইউনিয়নের কয়েক হাজার পরিবার এখনও পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে। ইউপি ভবনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পানিতে ভাসছে। এ পর্যন্ত কয়েক কোটি টাকার সম্পদ ক্ষতিগ্র্রস্ত হয়েছে। তবে এলাকায় এখনও কোন ত্রাণসামগ্রী পৌঁছায়নি।এ ব্যাপারে আজ শনিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইদুল আরিফ বলেন, কয়টি গ্রাম পানিবন্ধি হয়েছে খোঁজ নিচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!