নাঙ্গলকোটে ১৫বছরেও ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ হয়নি কোটি- কোটি টাকার সম্পদের ক্ষয়-ক্ষতি

নাঙ্গলকোট(কুমিল্লা)সংবাদদাতা:   নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ হবে এ প্রশ্ন এখন নাঙ্গলকোট পৌর বাজারসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের বড়-বড় বাজারের ব্যবসায়ী এবং সাধারণ মানুষের ? প্রতিনিয়ত অগ্নিকান্ডে পুড়ছে দোকানপাট এবং বাড়িঘর। আগ্নিকান্ডে দোকানপাট ও বাড়িঘর পুড়ে কোটি-কোটি টাকার সম্পদ হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ। ধারণা করা হচ্ছে, বিভিন্ন বাজারের দোকানপাটের বৈদ্যুতিক লাইনের শর্ট সার্কিট থেকে অধিকাংশ অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়ে মুহুর্তের মধ্যে সব মালামাল জ্বলে- পুড়ে ছাই হয়ে যাচ্ছে। গত ৬ মাসে নাঙ্গলকোট পৌর বাজারে দুটি, শ্রীহাস্য বাজার, হেসাখাল বাজার এবং ঢালুয়া বাজারের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ঘটনা ঘটে। এতে বাজারের ব্যবসায়ীদের প্রায় কয়েক কোটি টাকা মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন বাজারের দোকানপাট ও বাড়িঘর পুড়লেও জমি অধিগ্রহন জটিলতায় গত প্রায় ১৫বছর চেষ্টা করেও নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন করা সম্ভব হয়নি।
বৃহষ্পতিবার (২ নভেম্বর) ভোর ৪টায়ও নাঙ্গলকোট পৌর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ব্যবসায়ীদের কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ব্যবসায়ীরা সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন। পৌর বাজারের রেলগেইট সংলগ্ন আবুল কাসেম সুপার মার্কেটের রাজিয়া ক্রোকারিজ দোকান থেকে বিদ্যুতের সর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুন লাগতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এসময় ওই মার্কেটের তিনটি দোকান ও মালামাল পুড়ে যায়। অপরদিকে আগ্নিকান্ডে পাশ্ববর্তী আব্দুর রশিদ মার্কেটের দত্ত ফার্মেসির ঔষধ দোকানও পুড়ে যায়। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে লাকসাম থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট এসে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এতে প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দোকানমালিকরা দাবি করেন।
জানা যায়, ২৬ মে উপজেলার জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নের শ্রীহাস্য বাজারে অগ্নিকান্ডে ৫টি দোকানঘর, ৩১ মে ঢালুয়া বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১৩টি দোকানঘর, ২ সেপ্টেম্বর হেসাখাল বাজারে অগ্নিকান্ডে ১৪টি দোকানঘর, ১৩ সেপ্টেম্বর নাঙ্গলকোট পৌর বাজারের হরিপুর ব্র্যাক অফিস সংলগ্ন মাস্টার আবু বক্করের মার্কেটে ১৮টি দোকানঘর এবং মার্কেট পুড়ে ছাই হয়ে যায়। সর্বশেষ বৃহষ্পতিবার নাঙ্গলকোট পৌর বাজারের রেলগেইট সংলগ্ন একটি মার্কেটের ৩টি দোকানঘরসহ পাশ্ববর্তী একটি ঔষুধের ফার্মেসীতে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় কয়েক কোটি টাকার মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অগ্নিকান্ডে দোকান মালিক তাদের দোকানঘর এবং ব্যবসায়ীরা তাদের মালামাল ও নগদ টাকা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিপেন্সের ১শ ৫৬ প্রাকল্পের আওতায় ২০০৭ সাল থেকে নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণের চেষ্টা শুরু হয়। জমি ক্রয়ের শর্তের মধ্যে রয়েছে, উপজেলা সদরে জমি অবস্থানসহ সড়ক থাকতে হবে। যে কোন জায়গায় জমি নির্বাচন করলে হবে না। এছাড়া কোন খাস জমি নির্বাচন করা যাবে না। ২০০৭ সাল থেকে নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপনে পৌর সদরে বার-বার জমি অধিগ্রহণের চেষ্টা করেও জমি অধিগ্রহণে আপত্তি, আদালতে মামলা দায়ের এবং তাৎক্ষনিক স্থাপনা নির্মাণ করায় গত ১৫ বছর চেষ্টা করেও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিপেন্স কর্তৃপক্ষ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ করতে পারেননি। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিপেন্স কর্তৃপক্ষ নাঙ্গলকোটে জমি অধিগ্রহণের জন্য বার-বার এসেও জমি অধিগ্রহণ করতে না পারায় তাদেরকে ব্যার্থ হয়ে ফিরে যেতে হয়েছে।
লাকসাম ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার শাহাদাত হোসেন বলেন, নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণের জন্য বার-বার জমি অধিগ্রহণের চেষ্টা করা হলেও জমি অধিগ্রহণে আপত্তি, আদালতে মামলা দায়েরের পর নিষেধাজ্ঞা জারি এবং তাৎক্ষনিক স্থাপনা নির্মাণ করায় আমরা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ করতে পারছি না। বিভিন্ন বাজার ও বাড়িঘরে আগুণ লাগার পর লাকসাম থেকে আসতে-আসতে দোকানপাট ও বাড়িঘর আগুণে পুড়ে যায়। এতে আমাদের কিছুই করার থাকে না। আমরা জমির মৌজা রেটের তিনগুণ দাম দিয়ে জমি ক্রয় করতে চেয়েও জমি পাচ্ছি না।
পৌর বাজারের ব্যবসায়ী আবদুল গোফরান বলেন, নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন না থাকায় আগুণে তাৎক্ষনিক দোকানপাট জ¦লে-পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ব্যবসায়ীরা অর্থনৈতিকভাবে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছেন। আমরা চাই, অতি দ্রুত নাঙ্গলকোটে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ করা হোক।
নাঙ্গলকোট পৌরসভা মেয়র আব্দুল মালেক বলেন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিপেন্স কর্তৃপক্ষ আমাদের সাথে যোগাযোগ না করে নিজেরা জমি ক্রয়ের চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তারা আমাদের কাছে আসলে আমরা সড়কের পাশে জমি ক্রয়ের ব্যবস্থা করে দেব।

error: Content is protected !!