ড্রেন অনিয়ম-অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণে মাঠে জলাবদ্ধতা

ঝালকাঠি সংবাদদাতা : ঝালকাঠির ঐতিহ্যবাহী রাজাপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠের তিন পাশে ১০ লাখ টাকার ড্রেন নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। জেলা পরিষদের অর্থায়নে অপরিকল্পিতভাবে ড্রেন নির্মাণে বর্তমান বর্ষা মৌসুমে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে এতে শিক্ষার্থী, খেলোয়াড় ও স্থানীয় ক্রীড়ামোদিদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। একাধিক শিক্ষার্থী ও স্থানীয় খেলোয়াড়রা অভিযোগ করে বলেন, বর্ষাকালে খেলার মাঠের পানি নিষ্কাশণের জন্য নিচু তিন দিকে ড্রেন নির্মাণ করা হলেও ড্রেন থেকে বাহিরে পানি যাওয়ার মতো কোন ব্যবস্থা করা হয়নি এ জন্য সামান্য বর্ষার পানিও জমে থাকে দিনের পর দিন। এমতাবস্থায় বর্তমানে খেলার মাঠে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে এবং ড্রেনের দুই পাশে কোন মাটি না দেয়ায় কিছুদিন পরেই ভেঙ্গে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং সঠিকভাবে মাটি খুঁড়ে গভীর না করে ড্রেন নির্মাণ করায়, ড্রেনের নিচ মাঠের চেয়ে উঁচু থাকায় ড্রেনেও পানি ডুকছে না বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন। গত কয়েকদিনের হালকা বৃষ্টিতেই মাঠে পানি জমে যায়। গত ১৬ এপ্রিল মাঠে চরমোনাইর মাহফিল থাকায় তার ভক্তরা দিনভর মাঠের পানি সেচ করে লোকজন বসার ব্যবস্থা করেন। পরের দিন ১৭ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুরে ওই মাঠে বৃষ্টির পানি জমা হওয়ায় আল এহসান গ্রুপের মাহফিলের আয়োজন পন্ড হয়ে যায়। এছাড়াও বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনের মাহফিল ও মাঠে করতে না পেরে নিরুপায় হয়ে অডিটোরিয়ামে কোন মতে সম্পন্ন করেছে। বর্তমানে জলাবদ্ধতা ও ময়লা আবর্জনার কারণে ফুটবল ও ভলিবলসহ বিভিন্ন খেলাধূলা বন্ধ রয়েছে। উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শাহ জাহান মোল্লা জানান, সঠিকভাবে মাটি খুঁড়ে ড্রেনটি নির্মাণ করা হয়নি। এ কারণে ড্রেনটি উঁচু হওয়ায় পানি জমে থাকে এবং ড্রেনের পানি মাঠের পাশের নালায় বা খালে যাওয়ারও কোন ব্যবস্থা না থাকায় ড্রেনটি কোন কাজে আসছে না। এছাড়া কাজের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে খেলোয়াড়দের। এছাড়া সবকাজও সম্পন্ন না করে তালবাহানা করছে ঠিকাদার। এ বিষয়ে ওই কাজের ঠিকাদার জেলা পরিষদের হেড ক্লার্ক শহিদুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে এবং বর্তমানে মাঠে স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে এ কথা স্বীকার করে জানান, মাঠের তিন দিকে শুধুমাত্র ৭শ’ ফুট ড্রেন নির্মাণের জন্য জেলা পরিষদ থেকে ১০ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়। বর্তমানে ৬শ’ ৭০ ফুট নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি কাজ শীঘ্রই করা হবে স্থায়ী জলাবদ্ধতা দূরীকরণের জন্য মাঠের দক্ষিন দিক থেকে ড্রেন নির্মাণ করে মাঠের পানি বাহিরে বের হওয়ার কথা বললেও স্থানীয়রা জায়গা না দেয়ায় আসলে সমস্যা সমাধান করা সম্ভব হয়নি।
এ বিষয়ে জেলা পরিষদের প্রকৌশলী আ. সত্তার জানান, তিনি স্থানে গিয়ে কাজ দেখেননি এবং কাজ অসমাপ্ত থাকায় কাজের বিল দেয়নি। সেখানে শুধু ড্রেন নির্মাণ ছাড়া ওই বরাদ্ধের মধ্যে অন্য কোন কাজ নেই এবং ঠিকাদার কাজ বুঝিয়ে দেয়ার সময় স্থানে গিয়ে দেখে বিল দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!