জেলখানায় জাতীয় ৪ নেতাকে হত্যার উদ্দেশ্য ছিল দেশে নেতৃত্ব শূণ্য করা :আলহাজ্ব মহিউদ্দিন

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন আমি জেলা হত্যা দিবসের নিরব সাক্ষী, আমি ছিলাম পাশের সেলে ,পচাঁত্তরের ১৫ই আগস্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর দ্বিতীয় কলঙ্ক অধ্যায় এই দিনটি। ১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকান্ডের পর তিন মাসের কর্মসময়ের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধের অন্যতম বীর সেনা ও জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজ উদ্দিন আহম্মেদ,ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী, এ এইচ কামরুজ্জামানসহ এই ৪ নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছে তারাই।তাদের একটাই উদ্দেশ্য ছিলো যে বাংলাদেশে নেতৃত্ব শূন্য করা। জেলা আওয়ামিলীগের সভাপতি, জেলা পরিষদের চেয়াম্যান- বাংলাদেশ স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময়ের ঢাকা বিভগীয় বিএলএফ এর প্রধান জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চীফ সিকিউরিটি অফিসার আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহিউদ্দিন প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আয়োজিত জেল হত্যা দিবসের আলোচনাসভা গতকাল শুক্রবার বিকাল ৫টায় জেলা আওয়ামিলীগের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মহিউদ্দিন বলেন, এই ষড়যন্ত্রকারীরা এখনো বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দ্যেশে ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউ ময়দানে জনসভায় গ্র্যানেট হামলা চালায়। আল্লাহর অশেষ মেহেরবাণীতে অল্পের জন্য প্রাণে বেচেঁ যান তিনি, এতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মহিলা নেত্রী আইভী রহমানসহ ২৪ জন মানুষের আত্নঘাতি ঘটে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জন নেত্রী শেখ হাসিনা যে ভাবে দেশের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রেখেছেন তার এহেন কার্যক্রমের ব্যাঘাত ঘটানোর জন্য ষড়যন্ত্রকারী তৎপর।আজকের এই শোক কে শক্তিতে রুপান্তরিত করে আমাদেরকে সবসময চোখ কান খুলা রেখে চলতে হবে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ষড়যন্ত্রকারীরা যেন কোন রকম সহিংসতা ঘটাতে না পারে, আমাদের জীবন দিয়ে হলেও দেশ কে রক্ষা করব এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কে আরো শক্তিশালি করার লক্ষে শেখ হাসিনার নির্দেশনায় কাজ করে যাব। দেশ উন্নয়নের রুপকার শেখ হাসিনা সরকার বার বার দরকার ।

মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা জামাল হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আফসার উদ্দিন ভূইঁয়া, সাধারণ সম্পাদক ও আধারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সামসুল কবির মাস্টার, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. আব্দুল মতিন, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. শামসুন্নাহার শিল্পী, জেলা যুবলীগ সভাপতি আক্তার-উজ-জামান রাজীব, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি জালাল উদ্দিন রুমী রাজন, সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি বাদল রহমান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা নছিবুল ইসলাম নোবেল, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল মৃধা, সদর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সুরুজ মিয়া প্রমুখ। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি শাহ আলম মল্লিক, সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা কামাল আহম্মেদ, শহর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, শহর আওয়ামীলীগ নেতা রায়হানুজ্জামান রাসেল, যুবলীগ নেতা রিপন মাহমুদ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!