1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন

চৌদ্দগ্রামের চিলপাড়া ব্রীজ, খুলে যেতে পারে পর্যটনের এক নতুন দ্বার

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : সোমবার, ৩ জুলাই, ২০১৭
  • ৪৯ বার পড়া হয়েছে

কুমিল্লা প্রতিনিধি : চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট উপজেলার ভ্রমণপিপাসু মানুষের নিকট এক জনপ্রিয় ও আকর্ষনীয় স্থানের নাম চিলপাড়া ব্রীজ। ব্রীজের উপর থেকে নিচে পানির সাড়ি, ব্রীজসংলগ্ন অংশে ডাকাতিয়া নদীর মাঝে দ্বীপসদৃশ বাড়ি, পানিতে বহমান নৌকা এক অপরুপ সৌন্দর্য্যরে সৃষ্টি করে। যা দেখতে সারা বছরই ভ্রমণপিপাসুরা ভিড় জমায় ব্রীজের উপর ও ব্রীজসংলগ্ন সড়কের আশেপাশে। বিশেষ করে ঈদ মৌসুমে চিলপাড়া এলাকায় মানুষের ভীড় দেখে মনে ঢাকা-চট্রগ্রামের বিখ্যাত কোন পর্যটন স্পট। চলতি ঈদুল ফিতরের মৌসুমে পর্যটকদের ভিড় ব্রীজের এলাকা ছাড়িয়ে ব্রীজের দুই পাশের চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট উপজেলায় প্রায় এক কিলোমিটারের অধিক স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। রাস্তার দুই পাশে সারি সারি মোটর সাইকেল ও ব্যাক্তিগত গাড়ি সৃষ্টি করে এক অপরুপ সৌন্দর্য্যরে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির কারনে নাঙ্গলকোট কিংবা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অতি সহজেই আসা যায়।
অত্র এলাকার মানুষের জনপ্রিয় দীর্ঘদিনের পর্যটন স্পটে এখনো চোখ পড়েনি সরকার কিংবা বে-সরকারী কোন উদ্যোক্তার। ঈদ মৌসুমে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ আসলেও তাদের জন্য নেই তাদের জন্য নেই কোন বিনোদন কিংবা ভালো কোন বসার স্থান। ব্রীজের দুই পাড়ে এবং চিওড়া-ঢালুয়া সড়কের পাশে বসেই সৌন্দর্য উপভোগ করতে হয় পর্যটক ও ভ্রমণপিপাসুদের। সড়কের পাশে বসায় প্রায়ই দুর্ঘটনার সম্ভাবনাও দেখা দেয়। এছাড়াও পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা না থাকায় দুর দুরান্ত থেকে আগত ভ্রমনপিপাসুরা স্থানীয় কিছু বখাটের ইভটিজিং ও হয়রানীর শিকার হতে হয়। স্বীকৃত কোন পর্যটন কেন্দ্র না হওয়ায় এবং দুই উপজেলাতেই এর সীমানা বিস্তৃত থাকায় পর্যাপ্ত কোন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই। তাই মাঝেমধ্যেই ছোটখাট কিছু অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটে।
ঈদের ২য় দিন মঙ্গলবার পড়ন্ত বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভ্রমণপিপাসু ও পর্যটকদের ভীড়ে সড়কের দুই পাশে দীর্ঘ ১ কিলোমিটারের যানজট। আধা ঘন্টারও অধিক সময় পরে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। ভ্রমনপিপাসুরা জানায়, ভ্রমণ, খাওয়া-দাওয়া একে অন্যের পরিপুরক। কিন্তু এখানে খাওয়া এবং নাশ্তার জন্য ভালো কোন বসার স্থান নেই। ব্রীজের চৌদ্দগ্রাম অংশে বেশ কয়েকটি টি-ষ্টল আছে, যেখানে নেই ভালো এবং পরিবেশ সম্মত বসার স্থান। তাই বাধ্য হয়েই পর্যটকরা খাওয়ার জন্য চৌদ্দগ্রাম এবং নাঙ্গলকোটের দুরবর্তী কোন স্থানে যেতে হয়। কথা হয় ব্রীজের নাঙ্গলকোট অংশের চটপটি বিক্রেতা শাহআলমের সাথে। তিনি জানান, ঈদের দিন অন্তত ৫ হাজার মানুষ এসেছে এই স্থানে। ঈদের পরেরদিন এই সংখ্যা হবে প্রায় ১০ হাজারের অধিক। পর্যটক এবং স্থানীয়রা জানায় সরকার কিংবা বে-সরকারী কোন উদ্যোক্তা চিলপাড়া ব্রীজ কেন্দ্রিক কোন পার্ক, বিনোদনকেন্দ্র কিংবা ভালোমানের রেষ্টুরেন্ট নির্মাণ করলে আরও জনপ্রিয় হয়ে উঠবে এই স্থান। এতে করে নদীসংলগ্ন অত্র এলাকার জনসাধারনেরও ব্যাপক উন্নতি হবে। পাশাপাশি সরকারী সহযোগীতায় কোন পার্ক কিংবা বিনোদন কেন্দ্র স্থাপিত হলে বিপুল পরিমান আয়েরও সম্ভাবনা রয়েছে।
চৌদ্দগ্রাম উপজেলার চিওড়া ইউনিয়ন ও নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউনিয়নের মানুষের সংযোগ স্থাপনকারী এই চিলপাড়া ব্রীজ। ব্রীজের একপাশে নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউনিয়নের পুঁটিজলা আর অন্য পাশে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার চিওড়া ইউয়িনের চিলপাড়া গ্রামের অবস্থান। ডাকাতিয়া নদীর উপর ইতিপূর্বে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ের বরাদ্দে চৌদ্দগ্রামের সাবেক সংসদ সদস্য ডা: তাহের এই ব্রীজটি নির্মাণ করেন। ব্রীজটি নির্মাণের পর থেকেই ভীড় জমে পর্যটকদের। বর্তমান সরকারের সময়ে চিওড়া-ঢালুয়া সড়কটি অনেক চওড়া করে পূন:নির্মাণ করে। যার কারণে সহজেই পৌছা যায় পর্যটনের এই স্পটে।
চিওড়া ইউনিয়ণ পরিষদের চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম পর্যটন শিল্পে চিলপাড়া ব্রীজের অপার সম্ভাবনার কথা জানিয়ে বলেন, চলমান ঈদ মৌসুমে প্রতিদিনই হাজার হাজার লোকের সমারোহ ঘটছে চিলপাড়া ব্রীজের আশেপাশে। সরকারী কিংবা বে-সরকারী কোন উদ্যোগের মাধ্যমে এখানে পর্যটন কেন্দ্র কিংবা ভালো কোন স্থাপনা ও আন্তর্জাতিক মানের রেষ্টুরেন্স গড়ে তুললে পাল্টে যেতে পারে অত্র অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য। পাশাপাশি দুই উপজেলার সমন্বয়ে নিয়মিত পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হলে মানুষ আরও আকৃষ্ট হবে এই স্থানের প্রতি। এক্ষেত্রে তিনি পর্যটন কর্পোরেশন এবং প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!