1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন

চুয়াডাঙ্গায় রোপা আউশ ধান চাষের দিকে ঝুকে পড়েছে চাষীরা

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৯ জুলাই, ২০১৮
  • ২৬ বার পড়া হয়েছে

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : চুয়াডাঙ্গা জেলার রোপা আউশ ধান চাষের দিকে ঝুকে পড়েছে চাষীরা। ধানের বাজার দর ভালো, উৎপাদন খরচ কম ও ফলণ ভালো হওয়ায় চলতি মৌসুমে লক্ষমাত্রার চেয়ে এই আউশ ধানের আবাদ বেশি হয়েছে। সরকার এই ধানের আবাদ বৃদ্ধির লক্ষে চাষীদেরকে উৎসাহিত করছে।
চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর জেলায় রোপা আউশ ধানের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪১ হাজার হেক্টর জমিতে। আবাদ হয়েছে ৪২ হাজার ১শত ৪১ হেক্টর জমিতে। যা ১ হাজার ১শত ৪১ হেক্টর জমিতে বেশি। এর মধ্যে আলমডাঙ্গা উপজেলায় ৬ হাজার ৯শ’ ৯৬ হেক্টর, জীবননগর উপজেলায় ৮ হাজার ৫শ’ হেক্টর, দামুড়হুদায় ১১ হাজার ৫শ’ ও চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি ১৫ হাজার ১শ’ ৪৫ হেক্টর জমিতে।
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা দক্ষিণ চাঁদপুর গ্রামের চাষী আমির হামজা জানান, তিনি প্রতি বছর পাটের আবাদ করতেন পাটের বাজার দর ভালো না পাওয়া ও পাট পঁচানো পর্যাপ্ত পানি না থাকার কারনে পাটের পরিবর্তে এবার ৪ বিঘা জমিতে রোপা আউষ ধানের আবাদ করেছে। এই আবাদ বর্ষা মৌসুমে হওয়ায় তেমন পানির খরচ হয়না তেমনি অল্প (১২০) দিনে আউশ ধানের ফলন ভালো ও ধানের বাজার মূল্য ভালো হওয়ায় তিনি এই আউশ ধানের আবাদ করেছে। এছাড়াও এই ধান কেটে একই জমিতে অনয়াসে ভুট্টার আবাদ করবেন।
একই গ্রামের আবুল হোসেন জানান, তিনি এবার ৪ বিঘা জমিতে রোপা আউশ ধানের আবাদ করেছে এই ধানে সেচ খরচ নেই বললেই চলে বৃষ্টিতেই প্রায় আবাদ হয়ে যায়। এতে অন্য ধান চাষের তুলনায় অনেক কম খরচ হয়। ধান কেটে ঐ জমিতে তিনি ভুট্টার আবাদ করবেন।
চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক নাঈম আস সাদিক জানান, অল্প সময়ের আবাদ উৎপাদন খরচ অন্যান্য ধান আবাদের থেকে কম সেই সাথে ফলণও ভালো পাওয়ায় চাষীরা এই রোপা আউশ ধানের আবাদের দিকে ঝুকে পড়েছে। এছাড়াও চলতি মৌসুম ছাড়া অন্যান্য মৌসুমে ধানসহ বিভিন্ন ধরনের আবাদ নিচ থেকে পানি তুলে সেচ দিতে হয়। এ কারনে পানির স্তর নিচে নেমে যায় অনেক সময় গভীর নলকুপেও পানির পরিমান কমে যায়, অনেক সময় পানির স্তর নীচে নেমে গেলে স্যালো ইঞ্জিনেও পানি উঠানো সম্ভব কমে যায়। ফলে ঐ সময় এক বিঘা জমিতে সেচ দিতে দ্বীগুন সময় লেগে যায় এতে করে উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। পানির স্তর নিচে নেমে গেলে আমন ধানসহ বিভিন্ন আবাদ খড়ার ঝুঁকিতে থাকে। এ কারনে সরকার পানির স্তর ঠিক রাখতে বর্ষা মৌসুমে রোপা আউশ ধান আবাদের দিকে আগ্রহ বাড়াতে চাষীদেরকে উৎসাহিত করতে প্রনোদনা কর্মসূচির আওয়াত চাষীদের বিনা মূল্যে সার বীজ নগদ অর্থসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে আসছে। বর্ষা মৌসুমে রোপা আউশ ধানের আবাদ বৃদ্ধির লক্ষে প্রনোদনা কর্মসূচি অব্যহত থাকবে বলেও তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!