গ্রামীণফোনের টাওয়ার ব্যবহার করছে অন্য অপারেটররাও

বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিবেদক : গ্রামীণফোন তার নিজস্ব ৩০০০ সাইট অন্য অপারেটরদের ব্যবহার করতে দিয়েছে। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি এই মাইলফলক অতিক্রম করে। বাংলাদেশের কোন মোবাইল অপারেটরের শেয়ার করা বিটিএস সাইটের মধ্যে এটাই সর্বোচ্চ।বিটিআরসি প্যাসিভ টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো ব্যবহারের অনুমতি দিলে গ্রামীণফোন ২০০৯ এ সাইট শেয়ারিং শুরু করে এবং ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী কিউবি ছিল প্রথম গ্রাহক। গ্রামীণফোন তার উচ্চমানের নেটওয়ার্ক এবং সবচেয়ে বেশি বিটিএস সাইট নিয়ে সবাইকে অবকাঠামো ব্যবহার করতে দিতে প্রস্তুত। এর ফলে সম্পদের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত হবে। এ নিয়ে গ্রামীণফোনের হেড অব ইনফ্রাস্ট্রাকচার বিজনেস মাইনুর রহমান ভূইয়া বলেন, ‘ বিটিআরসি ২০০৮ এ অবকাঠামো শেয়ারিং নীতিমালা প্রকাশ করার পর থেকে এখন পর্যন্ত অপারেটররা প্রায় ৮০০০ সাইট একে অপরকে ব্যবহার করতে দিয়েছে, যা একই সময়ে স্থাপিত হওয়া বিটিএস এর ৫০ শতাংশেরও বেশি।’মোবাইল টাওয়ার ব্যবস্থাপনার জন্য বিটিআরসির পৃথক লাইসেন্স দেয়ার উদ্যোগ এবং তাতে মোবাইল অপারেটরদের অংশগ্রহণের সুযোগ না থাকা প্রসঙ্গে গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল ফোলি বলেন, ‘ মোবাইল অপারেটরদের বিদ্যমান টাওয়ার নির্মাণ, রক্ষণাবেক্ষণ ও অন্যকে ব্যবহার করতে দেয়ার ক্ষমতা অব্যাহত রাখা উচিত, একই সাথে টাওয়ার এর লাইসেন্সধারীরাও থাকবে ফলে টেলিযোগযোগ শিল্পে একটি প্রতিযোগিতা মূলক পরিবেশ বজায় থাকবে।এছাড়া এতে গ্রাহকদের জন্য উন্নত নেটওয়ার্ক নিশ্চত হবে।’অবকাঠামোর পারস্পরিক ব্যবহারের ফলে অপারেটরদের বড় আকারের মূলধনী বিনিয়োগ বেঁচে যায়, তারা তাদের মূল ব্যবসায় মনোনিবেশ করতে পারে আর একই সাথে সরকারি কোষাগারে অর্জিত রাজস্বের একটি অংশ জমা হয়। এ ছাড়াও কম জায়গার ব্যবহার ও কম বিদ্যুৎ ব্যবহার নিশ্চিত করে প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ মাধ্যমে পরিবেশ রক্ষা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!