গলাকাটা শিশুর লাশ উদ্ধার আটক ৩

বরিশাল প্রতিনিধি : বরিশাল নগরীর রূপাতলী এলাকায় এক শিশুকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। শুক্রবার (০৪ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে নিখোঁজের পর আজ শনিবার সকাল ১০টার দিকে তার গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগে, তার সন্ধানে শুক্রবার রাতে ওই এলাকায় মাইকিং করে স্বজনরা।

নিহতের নাম মো. ইয়াসিন (৯)। সে বরগুনার বাদুরতা মাদ্রাসার প্রাথমিক পর্যায়ের ছাত্র এবং একই এলাকার মো. সগিরের ছেলে। ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ

সগির দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে ঢাকায় থেকে সিএনজি চালান এবং ইয়াসিনের গর্ভধারীনি মা থাকেন সৌদিআরবে। সৎ মা ঢাকার রাস্তায় পান সিগারেট বিক্রেতা। বরগুনায় দাদা বাড়িতে দাদীর কাছে থেকে স্থানীয় মাদ্রাসায় লেখাপড়া করতো ইয়াসিন। করোনার কারণে মাদ্রাসা ছুটি থাকা গত সোমবার দাদীর সাথে বরিশাল নগরীর রূপাতলী এলাকায় এক নিকটাত্মিয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসে ইয়ামিন।
স্থানীয়রা জানান, গতকাল শুক্রবার দুপুরের পর থেকে ইয়াসিনের কোনও সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। রাতেই তার সন্ধানে মাইকিং করা হয়। ছেলে নিখোঁজের খবরে আজ শনিবার ভোরে বরিশাল আসেন তার বাবা ও সৎ মা। এর মধ্যে সকালে খবর আসে পাওয়া যায় বরিশাল বেতারের সিমানা দেয়াল ঘেষা রূপাতলী এলাকার একটি হাউজিংয়ের মধ্যে গলাকাটা লাশ পড়ে আছে ইয়াসিনের। পারিবারিক কোন জটিলতার জেরে শিশুটিকে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে সন্দেহ করছে স্বজন ও প্রতিবেশীরা। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার দাবি করেন নিহতের বাবা মো. সগির।

খবর পেয়ে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করে। এই হত্যাকাণ্ডের সূত্র উদঘাটনের জন্য যার বাসায় বেড়াতে এসেছে সেই আলামিন, প্রতিবেশী ইমরান এবং দাদী শিরিন আক্তারকে পুলিশ আটক করেছে।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের দক্ষিন জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. ফজলুল করিম বলেন, শিশু ইয়াসিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার সহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন তিনি। ইয়ামিন হত্যার কারণ অনুসন্ধানে কাজ করছে পুলিশ, র‌্যাব, পিবিআই এবং সিআইডি’র একাধিক দল।

error: Content is protected !!