খুলনায় ছয় দিন ধরে পানিবন্দি বাস্তুহারা কলোনীর ১০ হাজার মানুষ

খুলনা প্রতিনিধি : গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুরু। শুক্রবার সকালে ঘুম ভেঙ্গে নগরীর বাস্তুহারা কলোনীর বাসিন্দারা দেখেন রাস্তা ঘাট সব পানিতে তলিয়ে গেছে। একরাতের বৃষ্টির পানি গত ৬ দিনেও নামেনি। গত কয়েকদিন ধরে খুলনায় থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে আর পানি বাড়ছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত পানিবন্দি ছিলো ওই এলাকার ১০ হাজার মানুষ।
খুলনা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ আমিরুল আজাদ জানান, গত শুক্রবার ভোর ৬টা গত সোমবার দুপুর ৩টা পর্যন্ত ৩১৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে। এর মধ্যে শুক্রবারই হয়েছে ১২৯ মিলিমিটার। এছাড়া গত সোমবার ভোর ৬টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত হয়েছে ৮৪ মিলিমিটার।
মঙ্গলবার নগরের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে, নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক থেকে পানি নামলেও বাস্তুহারা এলাকা এখনও জলমগ্ন। পুলিশ লাইন থেকে আবু নাসের হাসপাতাল পর্যন্ত সড়ক, বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এখনও হাঁটু পানি।
বাস্তুহারা এলাকার বাসিন্দা ও খালিশপুর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জানান, গত শনিবার বিকালে কোমর সমান পানি ছিল। রোববার পানি কমে হাঁটু পর্যন্ত এসে দাঁড়িয়েছিলো। এর মধ্যে সোমবারের বৃষ্টিতে পানি আবার বেড়েছে। তিনি বলেন, জলাবদ্ধতা এই এলাকার মানুষের বার্ষিক দুর্ভোগ। তবে এ বছর কষ্ট বাড়ছে। আশপাশের সব এলাকার পানি নামলেও বাস্তুহারা ও আশপাশ এলাকার প্রায় ১০ হাজার মানুষ এখনও পানি নিচে। এই এলাকায় পানি সরার খালটি বন্ধ। এছাড়া কিছু কিছু অপরিকল্পিত বাড়ি হওয়ায় পানি নামতে পারে না। অন্য এলাকার পানি এই অঞ্চলে এসে জমা হচ্ছে। তিনি আরোও বলেন, পানি না নামায় পুরো এলাকায় চুলা বন্ধ। আজ ফ্রিজসহ অন্যান্য আসবাব খাটের ওপর উঠিয়ে রাখতে হয়েছে। পরিবার নিয়ে খুব অস্বস্তিতে আছি।
খুলনা সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা আনিসুর রহমান বলেন, বাস্তহারা এলাকার পানি ওই এলাকার একটি খাল দিয়ে ঘুরে ক্ষুদের খালে গিয়ে পড়ে। কিন্তু নদীতে অস্বাভাবিক রকম জোয়ার থাকায় পানি নামতে পারছে না।
এদিকে টানা বৃষ্টিতেও নগরীর নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি সড়কই পানির নিচে। বৃষ্টিতে নগরীর শামসুর রহমান রোড, শান্তিধাম মোড়, রয়্যাল মোড়, খানজাহান আলী রোড, স্যার ইকবাল রোড, খান এ সবুর রোডে প্রায় কোমর পানি জমে যায়। লবণচরা এলাকার ৭০ ভাগ বাড়ির নিচ তলাতেই পানি ঢুকে পড়েছে। পানি জমে গেছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ভেতরেও। সবমিলিয়ে দুর্ভোগের আরও একটি দিন পার করলো মানুষ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!