1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১১:০৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

কোটা নিয়ে প্রতিবেদন: অপেক্ষায় রাখল কমিটি

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৮
  • ৩২ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা ছাড়া বাকি সব তুলে দেয়ার সুপারিশ চূড়ান্ত প্রায় জানানোর পরও এই প্রতিবেদন কবে জমা পড়বে, তা জানাতে পারছে না এ বিষয়ে সুপারিশ করতে গঠন করা কমিটি।

কমিটির একজন সদস্য জানান, কোটা-সংক্রান্ত আরও প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি।

রবিবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলমের কক্ষে দুপুর ১২টায় বৈঠকে বসে কোটা পর্যালোচনা কমিটির বৈঠক। শেষ হয় বেলা দুইটায়। বৈঠক শেষে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (বিধি) ও কমিটির মুখপাত্র আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন কথা বলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে।

এর আগে গত ১৩ আগস্ট মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘কোটা নিয়ে সুপারিশ প্রায় চূড়ান্ত। আমরা মেধাকে প্রাধান্য দিয়ে অলমোস্ট (প্রায়) কোটা উঠিয়ে দেয়ার সুপারিশ করব। তবে আদালতের একটা রায় রয়েছে, মুক্তিযোদ্ধাদের কোটা সংরক্ষণ করতে হবে। এ ব্যাপারে আদালতের মতামত চাইব, আদালত যদি মুক্তিযোদ্ধা কোটা উঠিয়ে দেয় তবে এ কোটাও থাকবে না।’

আজকের বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে কমিটির মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা এখনও পর্যালোচনার মধ্যে আছি। বিভিন্ন দেশের রিপোর্ট…আমরা কোনো কনক্রিট ডিসিশনে আসতে পারিনি।’

সরকারি চাকরিতে বাংলাদেশে মোট ৫৬ শতাংশ কোটা আছে। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য ৩০ শতাংশ, জেলা ও নারী কোটা ১০ শতাংশ করে, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর কোটা পাঁচ শতাংশ এবং এক শতাংশ আছে প্রতিবন্ধী কোটা।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই মুক্তিযোদ্ধা কোটা প্রবর্তন করা হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর এই কোটার সুবিধা সন্তানদেরকেও দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরে তা নাতি-নাতনিদেরকেও দেয়া হয়।

আর সে সময় থেকেই প্রধানত জামায়াতপন্থীরা এই কোটা বাতিলের দাবিতে একাধিকবার আন্দোলনে নেমে ব্যর্থ হয়।

তবে এবার কোনো বিশেষ কোটার কথা না সংস্কারের দাবিতে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে গত ফেব্রুয়রিতে শুরু হয়। তারা সব মিলিয়ে কোটা ১০ শতাংশ করার দাবি জানাচ্ছে।

গত ৮ থেকে ১১ এপ্রিল নানা ঘটনার পর ১১ এপ্রিল সংসদে প্রধানমন্ত্রী বলেন কোনো কোটা থাকবে না।

তবে গত ১২ জুলাই প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেন, মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংরক্ষণের বিষয়ে উচ্চ আদালতের রায় রয়েছে। এখন এটি বাতিল হলে তিনি আদালত অবমাননায় পড়বেন।

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার নিয়ে আন্দোলনের প্রেক্ষিতে এ বিষয়ে সুপারিশ দিতে গত ২ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন হয়। কমিটিকে ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। কমিটি ৮ জুলাই বৈঠকও করে। তবে নির্ধারিত সময়ে প্রতিবেদন দিতে না পারার পর তিন মাস সময় বাড়ানো হয়।

কমিটিতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা রয়েছেন এবং তারা বিভিন্ন দেশে কোটার বিষয়ে প্রতিবেদন সংগ্রহ করে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানান।

মুক্তিযোদ্ধা কোটা ছাড়া বাকিগুলো বাতিল হচ্ছে, এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমও। আর মুক্তিযোদ্ধা কোটার থাকবে কি না, সে বিষয়ে আদালতের মতামত নেয়া হবে।

বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে মতামত দিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এই প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে কোটা কমিটির মুখপাত্র বলেন, ‘কী কী দরকার সবকিছু তো পাইনি। যেটা যেটা পাচ্ছি, সেগুলো পর্যালোচনা করছি।’

কবে নাগাদ সিদ্ধান্ত আসবে জানতে চাইলে মহিউদ্দিন বলেন, ‘দেখা যাক, এই মুহূর্তে বলা যাবে না। আপনারা দেখেছেন পর পর কয়েকটি মিটিং আমরা করেছি।’

আপনারা কী এখন আদালতেরও মতামত নেবেন- এ বিষয়ে যুগ্ম সচিব বলেন, ‘দেখা যাক।’

‘আমাদের আরও অনেক রিপোর্ট বাকি আছে। সেগুলো পর্যালোচনা করে তারপর…।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘কিছু হয়নি, কোনো ইয়েই আমরা করতে পারিনি।’

কমিটির সদস্য ও সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) সচিব আকতারী মমতাজ বলেন, ‘কোনো সিদ্ধান্ত আজ আসেনি।’

কোটা পর্যালোচনা কমিটির সদস্য হিসেবে আরও আছেন- লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব শহিদুল হক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহম্মদ, অর্থ বিভাগের সচিব মুসলিম চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব অপরূপ চৌধুরী, এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!