কেন মৃত্যু চান রাজিব গান্ধীর হত্যার আসামি?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :  ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে এক ব্যক্তি ২৬ বছর ধরে কারাদণ্ড ভোগ করছেন। ওই ব্যক্তি এখন নিজেই বলছেন তিনি মৃত্যুর অনুমতি চান। খবর বিবিসির।
রাজীব গান্ধীর হত্যা মামলায় শ্রীলঙ্কার বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন তামিল টাইগার্সের যে সাত সদস্যকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে, রবার্ট পায়াস তাদের একজন।
রবার্ট পায়াস তামিলনাডুর সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন তাকে যেন ‘যন্ত্রণাহীনভাবে মেরে ফেলা হয়’ বা ‘স্বেচ্ছায় মৃত্যুদণ্ড’র অনুমতি দেয়া হয়।
এই অনুমতি চেয়ে পায়াস বলেছেন, তার পরিবারের কেউই তাকে আর দেখতে আসেন না। তার জেল থেকে বের হওয়ারও আর কোনো আশা নেই। ২৬ বছর কারাগারে থাকার পর জীবনের এখন আর কোনো অর্থ নেই বলছেন রবার্ট পায়াস।
যদিও ভারতের তামিলনাডু সরকার চেয়েছিল এই সাতজনকেই মুক্তি দিতে কিন্তু তার বিরুদ্ধে আবেদন করে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। আর ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট তামিলনাডু সরকারকে এক নোটিশ জারি করেন যে আসামিদের সাজা মওকুফের কোনো সুযোগ নেই।
এনডিটিভি তাদের প্রতিবেদনে বলছে রাজ্য সরকারের কাছে লেখা ওই চিঠিতে পায়াস বলেছেন, ‘তামিলনাডু সরকার আমাদের সমর্থন করলেও কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে কোনো ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তারা আমাদের মুক্তির বিষয়টা এতই নীরব মনে হচ্ছে, আমার জীবন যেন কারাগারেই শেষ হোক, সেটাই তারা চায়।’
রাজীব গান্ধীকে হত্যায় জড়িত সবাই শ্রীলঙ্কার বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন তামিল টাইগার্সের সদস্য। ওই হত্যা মামলায় তিন আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও চারজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছিল আদালত।পরে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের প্রাণভিক্ষার আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দেয় কর্তৃপক্ষ।
ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী ১৯৯১ সালের ২১ মে দক্ষিণ ভারতে এক বোমা হামলায় নিহত হন। নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেয়ার সময় তার ওপর এক তামিল গেরিলা এই আত্মঘাতী বোমা হামলা চালায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!