কেউ পাস করেনি ৭২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে

নিজস্ব প্রতিবেদক : চলতি বছর এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় কেউ পাস করেনি-এমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়েছে। এ নিয়ে বিড়ম্বনায় থাকার কথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি জানান, এবার ৭২টি কলেজ, মাদ্রাসা ও ভোকেশনাল কলেজে কোনো পরীক্ষার্থী পাস করেনি। যা গত বছর ছিল ২৫টি।রবিবার শিক্ষামন্ত্রী নিজ মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করেন। এসময় তিনি লিখিত বক্তব্যে এসব তথ্য জানান।মন্ত্রী বলেন, ‘এবার শূন্য পাস করা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেড়েছে। এটা কেন সে বিষয়ে আমরা আরও পর্যালোচনা করে জানাবো। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে আমরা বিড়ম্বনায় আছি। এগুলোর মান অর্জনে আমরা চেষ্টা করছি। এগুলো যখন আমরা বন্ধ করে দেই তখন তারা হাইকোর্টে মামলা করে দেয়। এই জন্য আমরা নীতিমালা করছি। যাতে নীতিমালার আলোকে করা যায়। তাহলে আর সমস্যা থাকবে না।’ মন্ত্রী বলেন, এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে ১১ লাখ ৬৩ হাজার ৩৭০ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে পাস করেছে আট লাখ এক হাজার ৭১১ জন। যা গতবছর ছিল আট লাখ ৯৯ হাজার ১৫০ জন। এবছর পাস করা শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ৯৭ হাজার ৪৩৯ জন।এ বছর ১০টি শিক্ষাবোর্ডে পাসের হার ৬৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। গতবছর পাসের হার ছিল ৭৪ দশমিক ৭০ শতাংশ। পাসের হার কমেছে ৫ দশমিক ৭৯ শতাংশ। এবছর জিপিএ-ফাইভ পেয়েছে ৩৭ হাজার ৯৬৯ জন। গত বছর ছিল ৫৮ হাজার ২৭৬ জন। জিপিএ ফাইভ কমেছে ২০ হাজার ৩০৭ জন।শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর ভালভাবে খাতা দেখায় পাসের হার কমেছে। আগে ওজন করে খাতায় নম্বর দেয়া হতো। আমরা চারবছর গবেষণা করে খাতা দেখার নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করেছি। নতুন পদ্ধতি এপ্লাই করায় পাসের হার ও জিপিএ-ফাইভ এবং শতভাগ পাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা কমেছে।’মন্ত্রী বলেন, ‘আমাকে অনেকেই বলেছেন নতুন পদ্ধতিতে খাতা দেখার খবর আগে জানাননি কেন। কিন্তু এটা তো জানানোর বিষয় নয়। আমরা খাতা ভালভাবে দেখব। আগে দেখা হয়নি, এখন দেখব। আগে ওজন করে নম্বর দেয়া হতো। এখন আর সেটি হচ্ছে না। এ কারণ পাসের হার কমেছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!