কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক্স-রে ও ইসিজি মেশিন দীর্ঘদিন ধরে বিকল

কুমিল্লা বিডি রিপোর্ট : কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলায় প্রায় পাঁচ লাখ মানুষের বাস। একটি পৌরসভা ও ১৬টি ইউনিয়নের বিশাল জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবার বাতিঘর ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।
কিন্তু স্বাস্থ্যসেবা দূরে থাক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নিজেই এখন নানা সমস্যায় ধুঁকছে। অর্ধশতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ শূন্য দীর্ঘদিন ধরে। ফলে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে সেবা নিতে আসা রোগীদের ফিরে যেতে হচ্ছে।
এদিকে দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছর ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির এক্স-রে মেশিন বিকল হয়ে পড়ে আছে। অচল হয়ে আছে ইসিজি মেশিনটিও। এক্স-রে ও ইসিজি পরীক্ষা দিয়ে রোগীদের কাছ থেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশেই গড়ে ওঠা কিছু ক্লিনিক মালিক ও দালালচক্র হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা।
মেরামতের অভাবে বিকল হয়ে আছে কমপ্লেক্সটির জেনারেটর। ফলে রাতে লোডশেডিং হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি থাকা রোগীদের ভোগান্তি চরমে পৌঁছে। অন্ধকারে পুরো হাসপাতাল এলাকা পরিণত হয় ভুতুড়ে বাড়িতে। এ ছাড়া বিশাল জনগোষ্ঠীর এ হাসপাতালে রয়েছে একটি মাত্র অ্যাম্বুল্যান্স। তবে সেই অ্যাম্বুল্যান্সও অনেকটা সোনার হরিণের মতো। অভিযোগ রয়েছে, সরকারি নিয়মানুযায়ী নাঙ্গলকোট থেকে কুমিল্লা যাওয়ার জন্য রোগীদের ৯৫০ টাকা ভাড়া দেওয়ার কথা। কিন্তু কর্তৃপক্ষ রোগীদের কাছ থেকে এক হাজার ৭০০ থেকে দুই হাজার টাকা আদায় করে নিচ্ছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি সূত্র জানায়, ১৬ বছর ধরে বিকল থাকা এক্স-রে মেশিনটি মেরামতের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বেশ কয়েকবার লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। এতে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এ ছাড়া যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে প্রায় চার বছর ধরে অচল হয়ে আছে ইসিজি মেশিনটি। এতে শুধু রোগী নয়, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদেরও পড়তে হচ্ছে বিড়ম্বনায়।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের বড় সমস্যা হচ্ছে জনবলসংকট। ৪৬ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর পদ দীর্ঘদিন ধরে শূন্য পড়ে আছে। শূন্য থাকা পদগুলো হলো হিসাবরক্ষক, অফিস সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটর, পরিসংখ্যানবিদ, স্টোরকিপার, ফার্মাসিস্ট, মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব), মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (রেডিওগ্রাফি), স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক, স্বাস্থ্য সহকারী, টিকিট ক্লার্ক, কার্ডিওগ্রাফার, জুনিয়র মেকানিক, ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট, এমএলএসএস, ওয়ার্ড বয়, কুক বা মশালচি, পরিচ্ছন্নতাকর্মী, সিকিউরিটি গার্ড প্রভৃতি।
চিকিৎসা নিতে আসা অন্তত ১০ ব্যক্তি জানায়, অন্তঃসত্ত্বা মহিলা থেকে শুরু করে শরীরে যেকোনো ধরনের আঘাতপ্রাপ্ত রোগী চিকিৎসার জন্য এলে এক্স-রে ও ইসিজি মেশিন নষ্ট থাকায় বাধ্য হয়ে বাইরের প্রাইভেট ক্লিনিক ও হাসপাতালে গিয়ে পরীক্ষা করাতে হয়। এ সুযোগে রোগীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন ওই সব ক্লিনিক ব্যবসায়ী।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহাবুবুল আলম বলেন, ‘অনেক দিন ধরে এক্স-রে ও ইসিজি মেশিন নষ্ট হয়ে পড়ে আছে, এটা সত্য। তবে আমরা এগুলোর সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি। ’ তিনি জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বড় সমস্যা হচ্ছে জনবলসংকট। বিশেষ করে কর্মচারীদের বেশির ভাগ পদ দীর্ঘদিন ধরে শূন্য। এতে রোগীদের সঠিক সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।
কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডা. মজিবুর রহমান বলেন, ‘ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নতুন এক্স-রে ও ইসিজি মেশিন দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। আশা করছি, শিগগিরই তা দেওয়া সম্ভব হবে। ’ তিনি বলেন, ‘আগামী জুনের পর সারা দেশে প্রায় ৪১ হাজার তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হবে বলে আমি জেনেছি। আশা করছি, এতে কিছুটা হলেও ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জনবলসংকটের সমাধান হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!