কুমিল্লার ডিসি ফুড ও গুদাম রক্ষকসহ ৮ কর্মকর্তা বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিনিধি : কুমিল্লার লাকসামে সরকারি খাদ্যগুদাম থেকে ১ হাজার ৮০০ টন খাদ্যশস্য আত্মাসাতের ঘটনায় জেলা খাদ্য কর্মকর্তা (ডিসি ফুড) মামুনুর রশিদ, প্রধান অভিযুক্ত গুদামের রক্ষক একেএম মহিউদ্দিনসহ ৮ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। গুদামের সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন নিজেই এ বিপুল পরিমাণ খাদ্যশস্য আত্মসাৎ করেছেন বলে নিশ্চিত হয়েছে খাদ্য অধিদফতর। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে চলতি বছরের ১৮ এপ্রিল লাকসাম থানায় ফৌজদারি মামলা করা হয়। আত্মসাৎ করা এ খাদ্যশস্যের সরকারি মূল্য প্রায় ছয় কোটি টাকা।
লাকসাম থানায় করা মামলার এজাহারের বিবরণে জানা গেছে, দৌলতগঞ্জ খাদ্যগুদামে মহিউদ্দিনের দায়িত্ব পালনকালীন পুরো সময়ের ওপর করা বিশেষ নিরীক্ষায় ৯৮৯.৫২৯ টন চাল এবং ৭২৫.৭১৩ টন গম খাদ্যগুদামে না দেখিয়ে, মজুদ না করে আত্মসাতের প্রমাণ উঠে আসে। যার আনুমানিক সরকারি মূল্য ছয় কোটি টাকা। একই সঙ্গে আড়াই হাজার পিস খালি বস্তা বিক্রি করে দেয়ারও তথ্য পায় বিশেষ নিরীক্ষা দল। খাদ্য অধিদফতরের অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষায় ২০১৫ সালের ১২ জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ২২ জুন পর্যন্ত সময়ের কিছু অনিয়ম উঠে আসে । প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ওই এক বছরে ১৭টি চালানের বিপরীতে ২৫০.৪৩৭ টন গম ও ৩৬টি চালানপত্রের বিপরীতে ৫৭৪.৩১৩ টন চালের কোনো হদিস গুদামে পাওয়া যায়নি। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের রেকর্ড অনুযায়ী, ৮২৪.৭৫০ টন চাল ও গম ওই গুদামে পাঠানো হয়েছে। তবে খাদ্য গুদামের রেকর্ডপত্রে ওইসব চালানপত্রের কোনো কপিও পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ওই কমিটির প্রাথমিক তদন্তে মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে চাল ও গম আত্মসাতের সত্যতা পাওয়া যায়। লাকসামের দৌলতগঞ্জ খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এনামুল হকের কাছে এ ঘটনার সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাইলে সোমবার মুঠোফোনে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে জানান, খাদ্যশস্য আত্মসাতের ঘটনায় খাদ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক সালাউদ্দিন আহমেদকে প্রধান করে গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি মহিউদ্দিনকে এককভাবে দায়ী করেন এবং তাকে সহায়তা করার অভিযোগে তৎকালীন ডিসি ফুড মামুনুর রশিদকে বৃহস্পতিবার সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এর আগে লাকসাম দৌলতগঞ্জ খাদ্যগুদামের সাবেক খাদ্য কর্মকর্তা মহিউদ্দিন, উপ-পরিচালক আবু তাহের, সাবেক উপজেলা ফুড অফিসার সালমা আক্তার ও ভারপ্রাপ্ত খাদ্য কর্মকর্তা মনিন্দ্র চন্দ্র সাহা, কুমিল্লার ডিসি ফুডের ইনভয়েসে প্রতিস্বাক্ষরকারী কর্মকর্তা সঙ্গীত কুমার সরকারসহ ৮ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। বর্তমানে গুদামের সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহিউদ্দিন হাইকোর্ট ও নিন্ম আদালত থেকে জামিনে রয়েছেন।
অনুসন্ধানে আরও জানা গেছে, ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে খাদ্য কর্মকর্তা একেএম মহিউদ্দিন নানা দেন-দরবার চালিয়ে যাচ্ছেন। আত্মসাৎ করা খাদ্যশস্য কিনে দেয়ার অঙ্গীকার করে সমঝোতার চেষ্টা করেন। ওই সময় তিনি খাদ্যশস্যের মূল্য বাবদ আড়াই কোটি টাকার কয়েকটি চেক দেন। তার শ্বশুর ও ভাইসহ ৫ নিকটাত্মীয়ের নিজস্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে দেয়া এসব চেক বর্তমানে কুমিল্লা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের দফতরে রক্ষিত রয়েছে বলে জানা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!