এবার ঢাকার সেনানিবাস আসন ছাড়বেন না এরশাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৭ (গুলশান-বনানী-সেনানিবাস-ভাসানটেক) আসনে নির্বাচনী লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন সাবেক স্বৈরশাসক ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।
২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর এই আসন থেকে মহাজোটের প্রার্থী হয়ে নির্বাচিত হন এরশাদ। তখন তিনি রংপুর সদর এবং কুড়িগ্রামের একটি আসন থেকেও জিতেছিলেন। এর মধ্যে ঢাকা-১৭ রেখে বাকি দুটি ছেড়ে দেন তিনি।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনেও এরশাদ ঢাকা-১৭, রংপুর-৩ ও লালমনিরহাট-১ আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। তখন নির্বাচনে যাওয়া-না যাওয়া নিয়ে জাতীয় পার্টির নাটকীয়তার মধ্যে এরশাদ তিনটি আসন থেকেই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন করেন। ঢাকা-১৭ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাহার হলেও অন্য দুটি আসনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আবেদন না করায় প্রার্থিতা রয়ে যায়।
আর এই নির্বাচনে এরশাদ রংপুর সদর আসনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) প্রার্থী সাব্বির হোসেনকে হারিয়ে জিতেন। তবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোতাহার হোসেনের কাছে হেরে যান লালমনিরহাট-১ আসনে। এই নির্বাচনে এরশাদ অবশ্য ভোট চেয়ে প্রচারে যাননি। তিনি তখন ছিলেন সম্মিলতি সামরিক হাসপাতালে। এরশাদ অসুস্থ বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ভোটের কিছুদিন আগে তাকে সেখানে ভর্তি করে। যদিও এরশাদ তখন দাবি করেন, তাকে জোর করে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।
বিএনপি-জামায়াত জোটের সহিংস আন্দোলনের মুখে এরশাদের বলয়ের নেতারা নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। তবে এরশাদপত্নী রওশন এরশাদের বলয়ের নেতারা নির্বাচনে অংশ নেয়ার ঘোষণা দিয়ে মাঠে ছিলেন। আর নির্বাচনের পর এরশাদ প্রথমে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেবেন না জানালেও শেষ পর্যন্ত তিনি শপথ নেন এবং মন্ত্রী মর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতও হন।
দশম সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেয়নি। বিএনএফের আবুল কালাম আজাদ ওই নির্বাচনে জিতে এখন সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সবার আগে কাজ শুরু করেছে জাতীয় পার্টি। এক বছর আগেই সিলেট থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরু করেছেন এরশাদ। এরই মধ্যে বিভিন্ন আসনে প্রার্থী বাছাই চলছে। আর নির্বাচন সামনে রেখে সম্প্রতি একটি জোটের ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি।
জাতীয় পার্টির নেতারা বলছেন, সামরিক বাহিনীর সাবেক প্রধান হিসেবে এরশাদ ঢাকা সেনানিবাস, বনানী ও গুলশানের একাংশ নিয়ে গঠিত আসনটিতে নির্বাচন করবেন বলে মনস্থির করেছেন। নির্বাচনে বড় কোনো দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হলেও তিনি এই আসনটি তাকে দেয়ার দাবি করবেন।
জাতীয় পার্টির একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘স্যার (এরশাদ) এবার ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট আসন ছাড়বেন না। জোটের শরিকদেরও তিনি এ আসনে ছাড় দেবেন না।’
জানতে চাইলে এরশাদের ব্যক্তিগত সচিব অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা খালিদ আক্তার বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান স্যার ঢাকার-১৭ আসনে নির্বাচন করবেন, এটা মোটামুটি নিশ্চিত। তিনি সেভাবে প্রস্তুতিও নিচ্ছেন।’
অন্য এক প্রশ্নের জবাবে খালিদ বলেন, ‘জাতীয় পার্টি একাদশ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ৩০০ আসনে আমাদের প্রার্থীও প্রায় চূড়ান্ত।’
২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে এরশাদ বিপুল ভোটে বিএনপির প্রার্থী প্রয়াত নেতা আ স ম হান্নান শাহকে হারিয়েছিলেন। তখন এই আসনে আওয়ামী লীগ এরশাদকে সমর্থন দিয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!