আলোচনায় শ ম রেজাউল করিম

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শ ম রেজাউল করিম। টেলিভিশন টক শোতে পরিচিত মুখ। সমসাময়িক যে কোনো ঘটনায় টিভির পর্দায় নিয়মিত দেখা যায় তাকে। বিশেষ করে মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচারের দাবিতে তিনি সব সময় সোচ্চার। যেকোনো ইস্যুতে আওয়ামী লীগের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে যাচ্ছেন।
আইনজীবীদের মধ্যেও বেশ জনপ্রিয়। বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমানে তিনি আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচিত সদস্য।
পেশাজীবনে গুরুত্বপূর্ণ মামলায় আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা ও জেলহত্যার মতো গুরুত্বপূর্ণ মামলার আইনজীবী ছিলেন তিনি। ১/১১ এর দুর্যোগকালীন সময়ে তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইনজীবী হিসেবে আইনি সহায়তা দিয়েছেন। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, শেখ সেলিমের মতো রাজনীতিবিদদের আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন।
ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ করে আসা শ ম রেজাউল করিম জাতীয় রাজনীতিতে ভূমিকা রাখতে চান। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচন করতে আগ্রহী। অতীত কার্যক্রম পর্যালোচনা করে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা তাকে মনোনয়ন দিবেন বলেও আশা করেন তিনি।
শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘ছাত্র জীবন থেকেই আমি রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ করেছি। ১৯৮০ সালে খুলনা দৌলতপুর সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি), ১৯৮১ সালে খুলনা কৃষি কলেজের সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ছিলাম। ১৯৮৯ সালে নাজিরপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। ১৯৯০ সাল থেকে অদ্যবধি জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দেবেন বলে বিশ্বাস করি।’
নির্বাচন করতে কতটুকু প্রস্তুতি আছে, জানতে চাইলে এই রাজনীতিক বলেন, ‘আমি এলাকায় সেভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এলাকায় সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃকিসহ সকল কর্মকাণ্ডে জড়িত আছি।’
এই এলাকার বর্তমান সংসদ সদস্য এ কে এম আউয়াল ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে হারিয়ে সংসদ সদস্য হন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আবারও নির্বাচিত হন। তিনি টানা তৃতীয়বার সংসদ সদস্য হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন।
তবে শ ম রেজাউল করিমের আশা, ওই আসনে প্রার্থী বদল হবে। তাকে ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগে একটি বলয়ও তৈরি হয়েছে। ওই আসনের সংসদ সদস্যকে ঘিরে দলের ভেতর বিভক্তি রয়েছে। আউয়ালবিরোধীরা শ ম রেজাউ করিমকে এলাকামুখী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
জেলা আওয়ামী লীগের জেষ্ঠ্য সহসভাপতি শাজাহান তালুকদার বলেন, ‘শ ম রেজাউল করিম একজন শিক্ষিত লোক। তিনি সুপ্রিম কোর্টের নামকরা আইনজীবী। তার মতো লোকদের সংসদে যাওয়া দরকার। তাকে মনোনয়ন দিলে ভাল করবে। তবে তাকে আরো এলাকামুখী হওয়া প্রয়োজন।’
পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও নজিরপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান অমূল্য রঞ্জন হালদার বলেন, ‘শ ম রেজাউল করিম এলাকায় পরিচিত মুখ। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মামলা মোকদ্দমা করে দেন।’
নাসিরাবাদ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম ফুয়াদ বলেন, ‘এলাকায় তিনি উকিল হিসেবে পরিচিত। সবাই তাকে ভাল মানুষ হিসেবেই চেনেন। এলাকার লোকজনের সঙ্গে তাকে আরো জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!