আমি রাজাকারের সন্তান না নাঙ্গলকোট উপজেলা চেয়ারম্যান সামছু উদ্দিন কালু

বাহার ভূইয়া:  নাঙ্গলকোট উপজেলা চেয়ারম্যান সামছুউদ্দিন কালুকে রাজাকারের সন্তান আখ্যায়িত করে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান সামছুউদ্দিন কালু শুক্রবার দুপুরে উপজেলা সদরের নিজ কার্যালয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন।
উপজেলা চেয়ারম্যান সামছু উদ্দিন কালু বলেন, শান্তি কমিটির সদস্য এবং রাজাকার এক বিষয় নয়। আমি রাজাকারের সন্তান না। আমার বাবা কখনো রাজাকার ছিলেন না। তিনি শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। এ বিষয়টি আমি বহুবার ব্যাখ্যা করেছি। যখনই কোন বিষয় আসে এবং ২/৪ জন নেতা আমার সাথে পেরে উঠতে পারে না। তখন তারা হিংসাত্মক মনোভাব নিয়ে আমাকে অপমান এবং ছোট করার জন্য আমার বিরুদ্ধে এসব অপ-প্রচারে লিপ্ত হয়। পত্রিকাগুলো আমার বিরুদ্ধে যে সংবাদ প্রচার করেছে তা উদ্দেশ্য প্রনোদিত। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। সাংবাদিকতার নীতি লঙ্গন করে পত্রিকাগুলো আমার বক্তব্য পর্যন্ত নেয়ার চেষ্টা করেনি। এব্যাপারে আমি অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
সামছু উদ্দিন কালু বলেন, লাকসাম নওয়াব ফযজুন্নেছা সরকারি কলেজে পড়াকালীন ছাত্রলীগের রাজনীতি সাথে জড়িত হই। আমি ওই সময়ে লাকসামের উপজেলা চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুছ ভূঁইয়ার নেতৃত্বে ছাত্রলীগের রাজনীতি করি। আমি লাকসাম নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি কলেজের চট্রগ্রাম লাইন ইউনিটের সেক্রেটারী নির্বাচিত হই। আমি কখনো বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত ছিলাম না।
১৯৭১ সালে যুদ্ধচলাকালীন আমাদের বাড়ির সামনে পাকবাহিনীর ক্যাম্প ছিল। পাকবাহিনী এলাকায় আসার আতঙ্কে আমার দাদী আমার মায়ের কোলে মারা যান। আমার বাবা হাজী আকবর আলী যুদ্ধকালীন সময়ে ভারতের মোম্বাইতে ছিলেন। তিনি যুদ্ধ শুরুর কিছুদিন পর বাড়িতে আসেন। আমার বাবা বাড়িতে আসার পর পাকবাহিনীর ক্যাম্পে যাওয়ার জন্য খবর দেয়া হয়। পরে সবার নিকট মেঝো মিয়া হিসেবে পরিচিত মৌলভী আলী আহম্মেদ এর উপস্থিতিতে আমার বাবা পাক বাহিনীর ক্যাম্পে যান। ওই সময়ে মৌলভী আলী আহম্মেদ, অজি উল্ল্যাহ, মাষ্টার ছেরাজুল হক এবং আমার বাবা হাজী আলী আকবর শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। তারা পাকবাহিনীর হাত থেকে এলাকার লোকজন এবং তাদের বাড়িঘর রক্ষা করতেন। আমার বাবা-মা বাড়িতে মুক্তিযোদ্ধাদের খাওয়াতেন এবং আশ্রয় দিতেন। ওই সময়ে আওয়ামীলীগের পলিসি ছিল শান্তি কমিটির সদস্য হিসেব অনুপ্রবেশকারী হিসেবে মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে কাজ করা। আমার বাবা একটা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ক্ষতি করেননি। তিনি অনেক মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের পরিবারকে রক্ষা করেছেন। নাঙ্গলকোট রেলস্টেশনে পাকবাহিনীর ক্যাম্পে মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেনের বাবা এখলাছুর রহমানকে হত্যা করার জন্য নিয়ে আসলে আমার বাবা জাকির হোসেনের বাবাকে পাকবাহিনীর হাত থেকে রক্ষা করেন।
সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি রফিকুল হোসেন চেয়ারম্যানের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে বলছি। রফিক চেয়ারম্যান ছাত্রলীগ থেকে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে জড়িতে ছিলেন। আমি মুক্তিযোদ্ধাদের মুখে শুনেছি। ওনার বাবা রাজাকার ছিলেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মুক্তিযোদ্ধারা ওনার বাবাকে হত্যা করেছেন। ওনার বাবার কবরটা পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি। ওনার বাবার অপরাধের জন্য উনিতো অপরাধী হতে পারেন না।
আমি আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না থাকা অবস্থায় দুই বার বৃহত্তর নাঙ্গলকোট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ছিলাম এবং নাঙ্গলকোট পৌরসভার প্রথম মেয়র নির্বাচিত হই। গত দুই বারের উপজেলা চেয়ারম্যান । বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের দুঃসময়ে আমি বিপুল কাউন্সিল ভোটের মাধ্যমে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছি। আমি আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে নাঙ্গলকোটে আওয়ামীলীগকে সু-সংগঠিত করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু ২/৪ জন নেতা আমার সাথে প্রতিযোগিতায় হেরে গিয়ে হিং¯্র হয়ে যায়। তখন আমি রাজাকারের সন্তান হয়ে যাই। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন-২০৪১ বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আল্লাহর অশেষ রহমতে সর্বস্তরের মানুষ এবং আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা আমার সাথে আছেন। যারা আমার সাথে প্রতিযোগিতা করে পারে না। তারা প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে আমার রাজনীতিকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করছে।
সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান মজুমদার ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়াকে পরাজিত করার জন্য ঢাকায় বসে মির্জাফর খন্দকার মোস্তাক ও ডালিমদের মত গোপন আতাত করেন। ওই সময় শাহজাহান মজুমদারের নেতৃত্বে কিছু নেতা-কর্মী কোরআন শরীফ শপথ করে বিএনপির প্রার্থীকে জয়লাভের জন্য সহযোগিতা করেন। ২০১৩ সালে তুমুল আন্দোলনের মধ্যে ঢাকায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে আমাদের সভা হয়। ওই সভায় কামাল ভাই, মজিব ভাই ও খসরুর ভাইয়ের উপস্থিতিতে বরুড়ার হাকিম ভাই বরুড়ার সংসদ সদস্য নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে রাজাকারের সন্তান হিসেবে বক্তব্য রাখেন। ওই সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওনাকে থামিয়ে দেন।
দেশ স্বাধীন হওয়ার দিন ওই দিন অনেক রাজাকারদের হত্যা করা। বঙ্গবন্ধু রাজাকারদের সাধারণ ক্ষমা করলেও রাজাকারেরা বঙ্গবন্ধুকে ক্ষমা করেননি। যুদ্ধের পর খন্দকার মোস্তকারের মত রাজাকারেরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। গত ২৮/২৯বছর জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রেনেড হামলা, গুলিসহ বিভিন্ন হামলায় মৃত্যুর মুখ থেকে বেঁচে গিয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় স্বাধীনতার স্ব-পক্ষের শক্তি হিসেবে এগিয়ে যাবো।
নাঙ্গলকোট গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান সামছুউদ্দিন কালুর পিতা হাজী আলী আকবর অনেক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে বাঁচিয়েছেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর আমরা হাজী আলী আকবরকে ফুলের মালা পরিয়েছি। হাজী আলী আকবর গরু জবাই করে সবাইকে খাওয়া-দাওয়া করান। সামছু উদ্দিন কালুর পিতা হাজী আলী আকবরের বিরুদ্ধে যে অভিযো করা হচ্ছে সেটা প্রতিহিংসা ছাড়া আর কিছু নয়।

error: Content is protected !!