1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. sharifnews24@gmail.com : sharif ahmed : sharif ahmed
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

আমি বীর প্রতীক খেতাব পেয়েছি মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৫৯ বার পড়া হয়েছে

চাঁদপুর সংবাদদাতা : মুন্সিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার রফিকুল ইসলাম বীরপ্রতীক বলেছেন, ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় চাঁদপুরের কৃতিসন্তান সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার আবুল কালাম চিশতী যুদ্ধকালীন সময়ে আমার নেতৃত্বে দৃয়তার সাথে সাহসীকতার বুক নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা করার কারনেই আজ আমি বীর প্রতীক খেতাব পেয়েছি। নামের সাথে বীর প্রতীক ব্যবহার করতে পেরেছি। সেজন্য কালামের উপর আমার চিরকৃতজ্ঞতা থাকবে আজীবন।
শনিবার বেলা ১১টায় চাঁদপুরে তিনি সফরে আসলে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ কালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন কালাম যে ভাবে স্বাধীনতার সময় যুদ্ধ করেছে তা শুধু তখন আমার সাথে যারা যুদ্ধে ছিল তারাই বলতে পারবে। এখন অনেকেই কালামের সম্পর্কে বিভিন্ন মন্তব্য করছে, তারা শুধু বিভিন্ন সুবিধা হাতিয়ে নিতে না পারার কারনে এ মন্তব্য করছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় কালামের সক্রিয় অংশগ্রহণে কোনো প্রকার দ্বিধা নেই।
তিনি বলেন, চাঁদপুরের আরেক কৃতিসন্তান প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সাবেক সচিব মমিনউল্ল্যাহ বীর প্রতীকের সাথে আমি একাধিকবার যুদ্ধকালীন সময়ের কালামের সাহসীকতার কথা বলেছি। কালাম যুদ্ধের সময় কয়েকবার জীবনের মায়া ত্যাগ করে পাকবাহিনীদের আস্তানায় হামলা করেছে। একবার তার মাথার হেলমেটে গুলি লেগেছে আমরা তখন তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসা করে সারিয়ে তুলি। সে দিনের স্মৃতি আজ ও মনে পড়ে, কালাম যে একজন সঠিক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তার অস্বীকার করার কোন প্রকার সুযোগ নেই।
তিনি বলেন, এক বার এক যুদ্ধে কালামের এস এল আর এর ম্যাগজিনের মধ্যে পাঞ্জাবীদের গুলি লাগে, ম্যাগজিনের ১৮টি গুলি বাস্ট হয়ে ম্যাগজিন পেটে যায়। তখন সামান্য আহত হয় অল্পের জন্য সে প্রানে বেঁচে যায়।
আমার নেতৃত্বে কালাম মেঘনা ব্রিজ থেকে দাউদকান্দি এলাকা পর্যন্ত ব্রীজ ও কালভাট ধ্বংসে সক্রিয় ভাবে অংশ গ্রহণ করেন। মেঘনা ব্রিজের নিচে একটি দুই ইঞ্জিল বিশিষ্ট ফেরী উড়িয়ে দেওয়ার সময় অংশ গ্রহণ করেন, এ রকম বহু যুদ্ধে কালাম দৃয়তার সাথে অংশ করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও ২২ থেকে ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত সর্বশেষ আমার নেতৃত্বে কালামসহ আমরা বেশ কয়েকজন হোমনা গিয়ে ৬শত পাঞ্জাবীদের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়ে তাদেরকে আত্মসমর্পন করতে বাধ্য করি। তখন হাজিগজ্জের তারাপল্লা এলাকার আরেকজন দুসাহসী মুক্তিযোদ্ধা সফিকুল ইসলাম ইঞ্জিনিয়ার ও যুদ্ধ করে। আলাপ কালে উপস্থিত ছিলেন গজারিয়া উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওবায়দুল্ল্যাহ মেম্বার, আনছার আলী, সাবেক জেলা কমান্ডার সাবু পাটওয়ারী, ডেপুটি কমান্ডার সিরাজ বরকন্দাজ, সাবেক থানা কমান্ডার মান্নান মিয়া, হাজীগঞ্জ উপজেলা থানা কমান্ডার আবু তাহের, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার মৃনাল সাহা, বীরমুক্তিযোদ্ধা সামাদ খান, সদর থানা সহকারী কমান্ডার রওশন আলী বেপারী, আঃ মান্নান মিজি, জাকির সর্দার, আবুল কালাম তপাদার প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার)
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

প্রধান উপদেষ্টা : ডা: জাহাঙ্গীর হোসেন ভূঁইয়া
উপদেষ্টা : জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা : এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা : শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা : অবসরপ্রাপ্ত জামিল আর্মি,

© All rights reserved © 2019 LatestNews
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!