অর্থপাচারে ক্ষমতাসীনরা জড়িত বলে অর্থমন্ত্রীর সুর বদল: রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ থেকে অর্থপাচার নিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সুর বদল করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ক্ষমতাসীনরা অর্থপাচারে জড়িত বলেই অর্থমন্ত্রী আগের অবস্থান থেকে সরে এসেছেন।বুধবার দুপুরে দলের নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এসব কথা বলেন।সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের হিসাবে এক বছরে এক হাজার কোটি টাকা বেশি বৃদ্ধি নিয়ে তোলপাড় চলছে দেশজুড়ে। এই টাকা পাচার হয়ে গেছে-বিরোধীদের এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, এ নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। এর পুরো টাকা সেখানে জমা নয়, সেখানে ব্যক্তির পাশাপাশি প্রাতিষ্ঠানিক লেনদেনও রয়েছে। তবে কিছু টাকা পাচার হতে পারে।মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ৩০০ বিধিতে দেয়া বিবৃতিতে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘টাকা পাচারের বিষয়টি বাস্তবে মোটেই তেমন কিছু নয়। কিছু টাকা পাচার হয়, তা অতি সামান্য। এটা লেনদেন ও সম্পদের হিসাব। সাংবাদিকেরা অন্যায়ভাবে পাচার বলেছে। মন্ত্রী এও বলেন, ‘বিদেশে অর্থ পাচার হয় না এ কথা বলা যাবে না। সত্যিই কিছু পাচার হয়, কিন্তু এটা নজরে পড়ার মতো নয়, অত্যন্ত যৎসামান্য।’গত ৮ জুলাই সিলেটে অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘সারা দুনিয়াতে অর্থ পাচার হচ্ছে। তবে এটা রেইট অব গ্রোথ ভেরি করে। আমাদের দেশে বেশি হচ্ছে। এজন্য আমরাই কিছুটা দায়ী।…আমরা ল্যান্ড ভ্যালু খুব কম রেখেছি। একটি বাড়ি থেকে কেউ এক কোটি টাকা পায়, সরকারি হিসেবে সেটা হয় ৩০ লাখ টাকা, বাকিগুলো ব্লাক মানি হয়ে যাওয়ায় বিদেশে পাঠিয়ে দেয়।’মুহিতের এই দুই বক্তব্যের রেশ টেনে রিজভী বলেন, ‘গতকাল অর্থমন্ত্রী সংসদে বলেছেন, সুইস ব্যাংকে অর্থ পাচার হয়নি, লেনদেন হয়েছে। আবার তিনি এও বলেছেন যে, তবে সামান্য কিছু অর্থ পাচার হয়েছে। এর আগে মাত্র কয়েকদিন আগে সিলেটের এক সভায় অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, সুইস ব্যাংকসহ বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচারে আমরাও দায়ী। এ ধরনের স্ববিরোধী বক্তব্য আওয়ামী নেতাদের চিরাচরিত টেকনিক।’বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘আসলে ক্ষমতাসীনদের উচ্চ পর্যায়ের অনেক নেতারাই এই লাখ লাখ কোটি টাকা পাচারে জড়িত বলেই তাদের চাপেই অর্থমন্ত্রীকে আগের কথা থেকে সরে আসতে বাধ্য করা হয়েছে, তাকে আবারো বলির পাঠা করা হয়েছে।’নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিভিন্ন পদে রদবদল নিয়ে গণমাধ্যমের খবরের বরাত দিয়ে রিজভী বলেন, ‘নির্বাচনকে সামনে রেখে মাঠ প্রশাসনের এই ব্যাপক পরিবর্তন একটি সুদূরপ্রসারী নীল নকশারই অংশ।’বিএনপি নেতা বলেন, ‘আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং ডিসেম্বর থেকে সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার সময় আসার সাথে সাথেই পরিকল্পিত গণবদলি ও পদোন্নতির ঘটনা ঘটানো হচ্ছে কি না সেটি নিয়ে সকলের মনে বড় ধরনের প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।’রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে সমাবেশে পুলিশি হামলার ঘটনায় নিন্দা জানান রিজভী।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা এ জেড এম জাহিদ হোসেন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, খায়রুল কবির খোকন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!