You are here
Home > কুমিল্লা সংবাদ > কুমিল্লার মহাসড়কেই ডেঙ্গু মশার প্রজনন কেন্দ্র

কুমিল্লার মহাসড়কেই ডেঙ্গু মশার প্রজনন কেন্দ্র

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : বর্তমান এক মহামারী ও আতংকের নাম ডেঙ্গু। এডিস মশার কামড়ে সৃষ্টি এ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এপর্যন্ত মারা গেছে শিক্ষার্থী, ডাক্তার, পুলিশ কর্মকর্তা সহ সাধারণ মানুষের অনেকেই। প্রথমে রাজধানী ঢাকা কেন্দ্রীক হলেও পর এটি মহামারি আকারে ছড়িয়ে পরেছে দেশের প্রায় ৫৮ জেলায়। সম্প্রতি কুমিল্লার এক শিক্ষার্থী ও রেল কর্মচারী সহ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৩জন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে তিন শতাধিক ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি আছে ১শতাধিক ডেঙ্গু রোগী। চেলেঞ্জ হিসেবে নিয়ে ডেঙ্গু প্রতিরোধে উঠেপড়ে লেগেছে সরকার। জেলা পুলিশ প্রশাসন সহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ডেঙ্গু রোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি সহ পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান সহ প্রতিদিনই র‌্যালী ও সভা সমাবেশ করছে বিভিন্ন এলাকায়।
উপজেলা ও ইউনিয়ন ভিত্তিক নানান কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে প্রতিদিনই। কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড সহ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ডেঙ্গু নির্নয়ে মেডিকেল ক্যাম্প সহ লিফলেট বিতরণ তো রয়েছেই। এতো কিছুর পড়েও জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও পরিবেশ পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা করনে কতটা সফল সরকারের এই আপ্রাণ চেষ্টা? তার কিছুটা অনুমান করা যায় এই চিত্র গুলো দেখলেই। খোদ দেশের লাইক লাইন খ্যাত মহাসড়কের নিমসার বাজারের পরিহলপাড়া থেকে কোরপাই পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকা জুড়ে মাঝ সড়কেই এডিস মশার জীবানুবাহী ডেঙ্গুর বংশ বিস্তার চলছে নির্বিঘ্নে। কাঁচা বাজারের বাসীপচাঁ তরকারি ও আবর্জনার ভাগাড় এবং সড়কের মাঝে দীর্ঘদিনের জমাট বাঁধা পচা পানিতে যেন ডেঙ্গু বাহী এডিস মশার প্রজনন কেন্দ্র গড়ে উঠেছে।
খোলা আকাশের নিচে মহাড়কের পাশে এই আবর্জনার ভাগার থেকে শুধু ডেঙ্গুই নয় এছাড়া নানা রোগবাহী জীবানু ছড়াচ্ছে। ঘনবসতিপূর্ণ এ এলাকার সাধারণ মানুষের জন্য যা মারাত্মক হুমকি স্বরুপ। দেশের বৃহত্তর এই কাচা বাজার থেকে কোটি টাকা রাজস্ব আয় হলেও ভেজিটেবল সিটি হিসেবে পরিচিত নিমসার কাচা বাজারের দুই কিলোমিটার অংশের মহাসড়ক দিয়ে চলাচলের সময় নাকে রুমাল দিয়ে হাটতে হয়। বাজারে পাশে একাদিক স্কুল কলেজ মাদ্রাসা ও শিল্প প্রতিষ্ঠানও রয়েছে। গেলো কয়েক দিনে এ এলাকায় থানা পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জনসচেতনায় একাধিক র‌্যালী সভা ও সমিনার হলেও তা কেবল সাংবাদিকদের দ্বারা ফটোসেশন ও লোক দেখানো আয়োজনেই সীমাবদ্ধ। পরিচ্ছন্নতা অভিযান মানেই যেন ব্যানার আর লিফলেট হাতে দাড়িয়ে ছবিতোলা।
কাজের কাজ আসলে কিছুই নয়। জেলা হাইওয়ে পুলিশ প্রশাসন গতবছর বেশ কয়েকবার পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালালেও সপ্তাহ পাড় না হতেই আবার যেমনটা তেমন। পাশাপাশি ফুটপাত দখল করে যানবাহন ও পথচারী চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি তো রয়েছেই। স্থানীয় ব্যাবসায়ী ও বাজার কমিটির দায়ীত্বহীনতা ও অসচেনতা এবং প্রশাসনের উদাসীনতার কারনে নিমসার মহাসড়ক এলাকায় বসবাসকারী নাগরিক, পথচারী, ব্যাবসায়ী ও যাত্রীদের জন্যস্বাস্থ্য ও পরিবেশ রয়েছে চরম হুমকিতে। বিষয়টি আমলে নিয়ে কর্তৃপক্ষ নিমসার বাজার ও মহাসড়ক এলাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও পরিবেশ দুষন রেধে কার্যকরী পদক্ষেপ নেবে এমনটাই কামনা এলাকাবাসীর।

Top