You are here
Home > খেলাধুলা > শেষ ওভারের রুদ্ধশ্বাস লড়াই জিতে সুপার লিগে মোহামেডান

শেষ ওভারের রুদ্ধশ্বাস লড়াই জিতে সুপার লিগে মোহামেডান

ক্রীড়া ডেস্ক : পেন্ডুলামের মতো দুলছিল ম্যাচের ভাগ্য। একটা সময় মনে হলো, খুব সহজেই জিতে যাবে মোহামেডান লিমিটেড। তারপর আবার ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিলো বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)। শেষ ওভার পর্যন্ত বোঝা যাচ্ছিল না, কোন দল আসলে জিতবে। অবশেষে শেষ হাসি হাসল ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডানই।

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) রুদ্ধশ্বাস এক লড়াইয়ে ইনিংসের ১ বল বাকি থাকতে বিকেএসপিকে ১ উইকেটে হারিয়েছে মোহামেডান। এই জয়ে সুপার লিগও নিশ্চিত হয়ে গেছে সাদা-কালোদের।

শেষ ওভারে মোহামেডানের দরকার ছিল ৯ রান। হাতে ছিল মোটে একটি উইকেট। তার চেয়েও বড় কথা, ক্রিজে ছিলেন না কোনো স্বীকৃত ব্যাটসম্যান। সুমন খানের ওভারে প্রথম দুই বলে কাজী অনিক আর সাকলাইন সজীব দুটি সিঙ্গেলস নেন। তৃতীয় বলে বাউন্ডারি মেরে মোহামেডানের জয়ের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখেন কাজী অনিক। পরের বলে সিঙ্গেলস।

এরপর ওভারের পঞ্চম বলটিতে আরেকটি চার মেরে দেন সাকলাইন সজীব। তাতেই নিশ্চিত হয়ে যায় মোহামেডানের রূদ্ধশ্বাস জয়। অনিক ১০ বলে ১৩ আর সজীব ৩ বলে ৫ রান নিয়ে বিজয়ীর বেশে মাঠ ছাড়েন।

অথচ এই ম্যাচটা খুব সহজেই জিতে যেতে পারতো মোহামেডান। একটা সময় ২ উইকেটেই ১৬৩ রান তুলে ফেলেছিল সাদা-কালোরা। সেখান থেকে আর ৭৮ রান তুলতে তারা হারিয়ে বসে আরও ৭ উইকেট।

লিটন দাস আর ইরফান শুক্কুর উদ্বোধনী জুটিতে তুলে দিয়েছিলেন ৭৭ রান। ৪১ রান করে শুক্কুর ফিরলে ভাঙে এই জুটি। ফিফটি পূরণ হওয়ার পর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি লিটনও (৫৩)।

তৃতীয় উইকেটে অভিষেক মিত্র আর রকিবুল হাসান মিলে গড়েন ৪৭ রানের জুটি। ম্যাচে তখন বেশ ভালো অবস্থানে মোহামেডান। কিন্তু ৩৫ রান করে রকিবুল ফেরার পরই ভোজবাজির মতো পাল্টে যায় চালচিত্র।

১০ বলে মাত্র ৩ করে সাজঘরের পথ ধরেন মোহাম্মদ আশরাফুল। নাদিফ চৌধুরী (০), রজত ভাটিয়ারাও (১৫) দলের প্রয়োজন মেটাতে পারেননি। এর মধ্যে ৬৫ করে আউট হয়ে যান একটা প্রান্ত ধরে লড়াই করে যাওয়া অভিষেক। স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের মধ্যে শেষজন সোহাগ গাজীও ৫ রানে উইকেট বিলিয়ে দিলে পরাজয়ের শঙ্কায় পড়ে যায় মোহামেডান।

২২৬ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে বসে মোহামেডান। শেষ ২৩ বলে দরকার ছিল ২৪ রান। কিন্তু ক্রিজে ছিলেন না কোনো স্বীকৃত ব্যাটসম্যান। ৪৯তম ওভারে এসে ১৪ রান করে রানআউটের শিকার হন রাহাতুল ফেরদৌস। সেখান থেকে দুরুদুরু বুকে মোহামেডানকে রুদ্ধশ্বাস এক জয় এনে দিয়েছেন কাজী অনিক আর সাকলাইন সজীব।

বিকেএসপির হাসান মুরাদ ১০ ওভারে ৩০ রান খরচায় নেন ৪টি উইকেট।

এর আগে আমিনুল ইসলামের ৬০, শামিম হোসেনের ৪৯ এবং আকবর আলি আর পারভেজ হোসেন ইমনের সমান ৩৮ রানের দুটি ইনিংসে ৭ উইকেটে ২৪৯ রান তুলেছিল বিকেএসপি।

মোহামেডানের রাহাতুল ফেরদৌস ৩টি আর রজত ভাটিয়া নেন ২টি উইকেট।

Top