You are here
Home > আন্তর্জাতিক > সরকারি কর্তারা যা পারেনি, তা করে দেখাল বাঘ

সরকারি কর্তারা যা পারেনি, তা করে দেখাল বাঘ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত বিভিন্ন দিক থেকে অনেক উন্নতি করেছে, তবে স্যানিটারি ব্যবহারের দিক থেকে তারা বাংলাদেশ থেকে অনেক পিছিয়ে রয়েছে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের গ্রামগুলোতে বহু মানুষ এখনো প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে ব্যবহার করেন জঙ্গলকে। এ বিষয় নিয়ে নির্মিত হয় অক্ষয় কুমারের সিনেমা ‘টয়লেট; এক প্রেমকথা’ ।

মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর ‘স্বচ্ছ ভারত’ গড়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করে। এ বিষয়ে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালানো হয়। সরকারি কর্মকর্তারা বিভিন্নভাবে গ্রামবাসীদের বোঝালেও তাদেরকে বনে-জঙ্গলে শৌচকার্য করা বন্ধ করা যাচ্ছিল না।

তবে সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের জেলা পশ্চিম মেদিনীপুরে ভয় ছড়িয়েছে এক বাঘ। প্রথমে বাঘের পায়ের ছাপ দেখে বাঘের ব্যাপারে নিশ্চিত হয় গ্রামবাসী। এরপর সরকারিভাবে ছাড়াও বিভিন্নভাবে খোঁজ চলে বাঘের। তবে একবার ক্যামেরায় ধরা পড়লেও পরবর্তী সময়ে আর দেখা যায়নি। বন বিভাগের তরফে খাঁচা পাতা হলেও কোনো লাভ হয়নি।

এরপরই বনে-জঙ্গলে বাঘ আছে এমন ভয়ে আর শৌচকার্য করতে বাড়ির বাইরে যাচ্ছে না সেখানকার বাসিন্দারা। কারো আগে বাড়িতে শৌচাগার তৈরি ছিল কেউবা দ্রুত বাড়িতে শৌচাগার তৈরি করছেন।

জঙ্গলঘেঁষা এক বাড়িতে থাকেন সরস্বতী মাহাতোর। এতদিনে জঙ্গল ছেড়ে শৌচাগার ব্যবহার শুরু করেছেন তিনি। বাঘের ভয়েই শৌচালয় ব্যবহারের কথা জানিয়ে সরস্বতীদেবীর জানান, ‘ছোটবেলার অভ্যাস তো! তবে বাঘের ভয় বড় ভয়। এখন আর বাড়ির বাইরে যাচ্ছি না।’

স্থানীয় জেলা পরিষদ সদস্য সনৎ মাহাতো বলেন, ‘বাঘের ভয়ে এই একটা লাভ হয়েছে। এতদিন বুঝিয়ে-সুঝিয়েও যাদের শৌচাগার ব্যবহার করানো যাচ্ছিল না, এখন তারা নিজে থেকেই শৌচাগার ব্যবহার করছেন।’’

গুড়গুড়িপালের তপন তুঙ্গ বলছিলেন, ‘জঙ্গলে বাঘ ঘুরছে। তারপরে কোন সাহসে কেউ খোলা জায়গায় যাবে!’’ বাঘের পায়ের ছাপ মিলেছিল মেদিনীপুর সদর ব্লকের মুচিবেড়ায়। সেখানকার উপপ্রধান অঞ্জন বেরার জানান, ‘জঙ্গলে বাঘ আসার পরে অনেকেই শৌচাগার ব্যবহার শুরু করেছেন।’

২০১৪ সাল থেকে মোদির স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অংশ হিসেবে পশ্চিম মেদিনীপুরে অসংখ্যা শৌচাগার তৈরি করা হয়। কিন্তু ব্যবহারে ঘাটতি থেকে গিয়েছিল। তবে এবার তার ব্যবহার বেড়েছে বহুগুণে।

বাঘের আবির্ভাবে রাতারাতি ছবিটা পাল্টে গেছে। মেদিনীপুরের ডিএফও রবীন্দ্রনাথ সাহা বলছিলেন, ‘’যতদিন না বাঘ ধরা পড়ছে, ততদিন গ্রামবাসীকে জঙ্গলে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। গ্রামবাসী সহযোগিতাও করছেন।’’

কেউ কেউ বলছেন, এতদিন সরকারি কর্তারা যা পারেননি এক বাঘই তা সফলভাবে করে দেখিয়েছেন। সূত্র: আনন্দবাজার

Leave a Reply

Top