You are here
Home > দেশজুড়ে > নায়েরগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে বিধিবর্হিভূত ম্যানেজিং কমিটি গঠন এবং তা অনুমোদন দেয়ার অভিযোগ

নায়েরগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে বিধিবর্হিভূত ম্যানেজিং কমিটি গঠন এবং তা অনুমোদন দেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলাধীন নায়েরগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের বিধিবর্হিভূত ম্যানেজিং কমিটি গঠন এবং তা অনুমোদন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে দুই দুই বার কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডে লিখিত অভিযোগ দেয়ার পরও সুষ্ঠু তদন্ত না পাওয়ার দাবী অভিযোগকারীর। এতে বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যম হুমকির মুখে পড়েছে বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল।
জানা যায়, চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নায়েরগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়। অত্র এলাকার শিক্ষার কথা চিন্তা করে ১৯৮৭ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এ যাবৎ পর্যন্ত অত্যান্ত সুনামের সহিত বিদ্যালয়টির শিক্ষা কার্যক্রম চলে আসছিল। চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারী ব্যাপক অনিয়মের মাধ্যমে কোন নির্বাচন ছাড়াই ম্যানেজিং কমিটির ৮টি পদে ৮ জন প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয় দেখিয়ে কমিটি গঠন করা হয়। পরবর্তীতে এই কমিটি অনুমোদনের জন্য কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড বরাবর পাঠানো হয়। উপরোক্ত কমিটির বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য সহিদ সওদার বাদী হয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমি শিক্ষা বোর্ড কুমিল্লার এর চেয়ারম্যান বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। শিক্ষা বোর্ড অভিযোগটি আমলে নিয়ে মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (বর্তমানে বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি)কে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। উপজেলা নির্বাহাহী অফিসার শহিদুল ইসলাম বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ন কবির তালুকদারের প্রতিবেদনের আলোকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরে বাদী পক্ষে ওই তদন্ত প্রতিবেদনটির বিরুদ্ধে নারাজি প্রদান করেন। পরবর্তীতে শিক্ষা বোর্ড বিষয়টিকে চাদপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে পুন:রায় তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দাখিলের নিদের্শ প্রদান করে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো: ইউনুস ফারুকী মাত্র এক দিনের নোটিশে বাদী পক্ষকে তদন্তের জন্য অবহিত করেন। পরবর্তীতে বাদী পক্ষ প্রয়োজনীয় স্বাক্ষী উপস্থীতির লক্ষ্যে সময় আবেদন প্রার্থনা করেন। কিন্তু রস্যজনক কারণে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সময় না দিয়ে তরিগরি করে বিবাদী পক্ষ থেকে পরোচিত হয়ে পূর্বের ন্যায় তদন্ত প্রতিবেদন দখিল করেন। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান ১২ সেপ্টেম্বর ওই বধিবর্হিভূত কমিটিকে অনুমোদন দেন। এতে স্থানীয় সচেতন মহেলে বেশ চাঞ্চেলের সৃষ্টি হয়।
অভিভাবক সদস্য ও অভিযোগকারী সহিদ সওদাগর জানান, ভোটার তালিকায় প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে এলাকার মৃত বিলায়েত আলী পাটোয়ারীর ছেলে আলী আহম্মেদ পাটোয়ারী বিগত ১৯৯৭ সালে ৫৯৮১ নং রেজিষ্ট্রিকৃত দলিল মূলে আশ্বিনপুর মৌজাস্থিত ২৫৮নং খতিয়ানে ৪৩৪ ও ৪৫৭ দাগে মোট ১১ শতাংশ জমির মধ্যে ১০ শতাংশ জমি দান করেছেন বলে উল্লেখ্য। অথচ উক্ত খতিয়ানে তার কোন সঠিক সম্পত্তি নাই এবং দলিলে জমির চৌহুদ্দি নাই। অপর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মৃত হাসান আলী প্রধানিয়ার ছেলে মো: সিরাজুল ইসলাম ওই বছরই একই মৌজায় ৫৫৮ খতিয়ানে ৪২৭ দাগে অবস্থিত পুকুর থেকে ২০ শতাংশ জমি দান করেন। যার কোন চৌহুদ্দি নাই এবং তাহা অংশীদারের মালিকানা স্বত্ব ভূমি। উভয় প্রতিষ্ঠাতা সদস্য তাদের দানকৃত জমির সঠিক তথ্য গোপন করায় ১৯৯০ সালের বাংলাদেশ জরিপে বিদ্যালয়ের নামে উক্ত ভূমি রেকর্ড ভুক্ত করতে পারেনি। বিধি মোতাবেক সাধারণ শিক্ষক এর ভোটার তালিকা প্রনয়ন করা হয় নাই। উক্ত তালিকায় প্রধান শিক্ষক (ভোটার তালিকা নং-১) এবং সহকারী প্রধান শিক্ষক (ভোটার নং-২)। সহকারী শিক্ষক নিয়ম অনুসারে প্রার্থী হতে পারে না তাই শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে সহকারী শিক্ষক মনোনয় কিনার পর তা নির্বাচক কমিশন প্রার্থীতা বাতিল করে দেন। উক্ত বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী সাদিয়া আক্তারের অভিভাক মো: ফারুক প্রধান যার অভিভাবক সদস্য নং ১১৩ কিন্তু প্রকৃত পক্ষে ফারুক প্রধান সাদিয়া আক্তারের পালক পিতা। তাই নিয়মানুয়ায়ী সে ওই ছাত্রী অভিভাবক হিসেবে ভোটার হতে পারে না। উক্ত বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী সূচনা আক্তার এর পিতা মৃতুর কারণে তার মা অভিাবক হবার কথা কিন্তু তার চাচা বাতেন ঢালীকে নিয়ম বহিভূত ভোটার নং- ৩৬৯ দেখানো হয়। ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী কুলসুমা আক্তার এর পিতা-মাতা জীবিত থাকার পরও তার চাচা খোরশেদ আলম ভোটার নং- ৪৮৭ দেখানো হয়। ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী সামিয়া আক্তারের পিতা মৃতু জনিত কারণে তার মা বেবি বেগম অভিভাবক হবার কথা থাকলেও অন্যব্যক্তি রোমা আক্তার কে ভোটার নং- ৪১২ উদ্দেশ্য প্রনদিতভাবে সামিয়া আক্তারের অভিভাবক দেখানো হয়। অভিভাবক ভোটার নং ২৯৫ কে সহিদ সওদার এর স্থলে সহিদ চৌধুরী দেখানো হয়। আব্দুল কাদের পাটোয়ারীকে দ্বৈত্য ভোটার হিসেবে দেখানো হয়। যার ভোটার নং ৩৪৪ এবং ৫১০। আবুল কাশেম মিয়াজিকে দ্বৈত্য ভোটার হিসেবে দেখানো হয়। যার ভোটার নং ৯২ এবং ৫৩৪। এছাড়াও বিভিন্ন অনিময় ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। আমি দুই দুইবার বোর্ড চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পরও সুষ্ঠ সমাধান পাইনি। আমি বিষয়টি নিয়ে আদাতে যাব। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রী ও ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম এমপি এর বরাবর আমার আকুল আবেদন বিষয়টি নজরে এনে উক্ত ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ঐতিহ্য ধরে রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল খালেন জানান, দুই দুই ভার তদন্ত সাপেক্ষে কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর পরও যদি কোন অভিযোগ থাকে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হবে।

Leave a Reply

Top