৬ ডিসেম্বর থেকে চারদিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড

৬ ডিসেম্বর থেকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তি আন্তর্জাতিক আসর ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭। পঞ্চম বারের মত এটি আয়োজন করেছে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে আয়োজিত সংবাদ ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭ আয়োজনের প্রস্তুতি সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

এসময় তিনি বলেন, ৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে সরকারের গত নয় বছরের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের আগ্রগতি তুলে ধরা হবে।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, দেশে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নতির স্বাক্ষর বহন করবে এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড। ফলে বাংলাদেশসহ বিশ্বের কাছে ডিজিটাল বাংলাদেশ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা তৈরি হবে।

পলক বলেন, পাঁচ বারের মত এবার ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড আয়োজন করা হচ্ছে। ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে চারদিনব্যাপী এই আয়োজন হবে বড় পরিসরে। এতে বিভিন্ন দেশের মন্ত্রীবর্গ আসবেন। অংশ নেবেন তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা। ইন্টারনেটকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের হাতিয়ার উল্লেখ করে পলক বলেন, বাংলাদেশ এখন আইসিটি ইকো-সিস্টেমের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রস্তুত। কেননা, দেশের শ্রমমুখী অর্থনীতিকে আজ আমরা ইকোনোমিক ভাইভারসিফিকেশনের দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডকে সফল করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে পলক বলেন, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে আগতরা জানতে পারবেন ২০১৯ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সরকার আইসিটি খাতে কতটা উন্নতি করেছে।

পলক জানান এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে ৭০ জন বিদেশি এবং শতাধিক স্পিকার ২৯টি সেশনে অংশ নেবেন। এতে গুগল, ফেসবুক, নুয়ান্স, অ্যাংরিবার্ড, কোয়ালকম এবং মটোরোলাসহ পৃথিবীর শীর্ষ আইটি প্রতিষ্ঠানের অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আইসিটি সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী বলেন, ৬ ডিসেম্বর থেকে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল নয়টা থেকে শুরু হয়ে রাত নয়টা পর্যন্ত চলবে। এতে প্রবেশের জন্য কোনো ফি লাগবে না। অনলাইনে নিবন্ধন করতে হবে।

এবারের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের প্রতিপাদ্য ধরা হয়েছে ‘আগামীর জন্য প্রস্তুত-রেডি ফর টুমরো’। মূলত এ প্রতিপাদ্য তথ্য-প্রযুক্তির যুগে বাংলাদেশের অর্জন ও অগ্রগতিকেই প্রতিফলিত করে। বাংলাদেশ এখন আর অনুসরণকারী নয় বরং ভবিষ্যৎ বিশ্বকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য বাংলাদেশ প্রস্তুত। প্রস্তুত মানব সম্পদ; প্রস্তুত অবকাঠামো।

মেলার পার্টনার হিসেবে থাকছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং(বাক্য), ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব), বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম (বিআইজেএফ), বাংলাদেশ উইমেন ইন আইটি (বিআইডব্লিউটি), সিটিও ফোরাম।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক অথবা ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের অফিসিয়াল ওয়েবসইট www.digitalworld.org.bd/www.facebook.com/DigitalWorldBangladesh- এর মাধ্যমে মেলায় প্রবেশের জন্য অগ্রিম রেজিস্ট্রেশন করার সুযোগ রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, বেসিস, বাক্য এবং ই-ক্যাবের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!