সুনামগঞ্জে গুলিভর্তি বন্দুক সহ সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে গ্রেফতার

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের দক্ষিণ বড়দল গ্রামে গুলিভর্তি বন্দুক সহ সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে গ্রেফতার গুলিভর্তি বন্দুক সহ সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে গত রাতে থানা পুলিশ প্রয়াত সাবেক চেয়ারম্যানের এক ছেলেকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতর নাম হাজি ফেরদৌস আলম (৪২)। সে উপজেলার বড়দল দক্ষিণ ইউনিয়নের মাটিকাঁটা গ্রামের প্রয়াত ইউপি চেয়ারম্যান ডা. মো. আবু জাহেরের ছেলে ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সবুজ আলমের বড় ভাই। ফেরদৌসকে গ্রেফতারের সময় পুলিশ আলামত হিসাবে ৯ টি বন্দুকের গুলি ও একটি গুলির খোসা সহ ইংল্যান্ডের তৈরী একনালা একটি বন্দুক জব্দ করেছে। জানা গেছে, উপজেলার মাটিকাঁটা গ্রামের হাজি ফেরদৌস আলমকে উপজেলার বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাটের বাসায় মাদক সেবনে পরিবারের লোকজন বাঁধা দেয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে সে নিজের লাইসেন্সকৃত একনালা বন্দুক দিয়ে শনিবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে পৌণে ১০ টার দিকে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। ফেরদৌসের বাদাঘাটের বাসার আশে পাশে থাকা প্রতিবেশীরা তার বেপরোয়া আচরণে ও গুলির বিকট শব্দে আতংকিত হয়ে তাৎক্ষণিক বিষয়টি বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়িতে অবহিত করেন। পরে ফাঁড়ির ইনচার্জ এএসআই আবদুল হাই একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে ফেরদৌস আরো বেপরোয়া হয়ে পুলিশের উপর চড়াও হয়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে অতিরিক্ত পুলিশের জন্য ফাঁড়িতে সংবাদ দিলে রাত সোয়া ১১ টার দিকে এএসআই মো. আবদুল ফরিদ সহ আরো ১০ অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ফেরদৌসকে গ্রেফতার করে ফাঁড়িতে নিয়ে আসে। এ সময় তার হেফাজতে থাকা ইংল্যান্ডের তৈরী একটি এক নালা বন্দুক, একটি ব্যবহ্নত গুলির খোসা ও আরো ৯টি গুলি জব্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃত ফেরদৌসের ছেলে জীবন আলম জানায়, তার বাবা প্রতিনিয়ত বাদাঘাটের বাসায় মাদক সেবন করে বাসায় থাকা ছোট দু’বোন ও তার মায়ের সাথে অসদাচরণ করে আসছে, তাই মাদক সেবনে বাঁধা দেয়ায় তার বাবা নিজের লাইসেন্সকৃত বন্দুক বের করে আতংক সৃষ্টি করতে গত সোমবার রাতে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। উল্লেখ্য যে, বিগত চারদলীয় জোঠ সরকারের আমলে হাজি ফেরদৌস প্রভাব খাঁটিয়ে বন্দুকের লাইসেন্স হাতিয়ে নেয়। যার লাইসেন্স নং ১১৬/২০০০, লাইসেন্স ইস্যুও তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০০৯ ইং। এরপর বিগত কয়েক বছর আগেও হাজি ফেরদৌস উপজেলার বারেকটিলায় নিজের বন্দুক দিয়ে গুলিবর্ষণ করার কারনে স্থানীয় জনতা বন্দুকসহ ফেরদৌসকে থানা পুলিশে সোপর্দ করে। ঐ ঘটনায় থানায় মামলা ও বন্দুক জব্দ করা হলেও ফেরদৌস বেশ কয়েকমাস জেল হাজতে থাকার পর জামিনে বেড়িয়ে এসে থানা পুলিশের গাফিলতির কারনে আইনের ফাঁক গলিয়ে ফের বন্দুক নিজের হেফাজতে নিয়ে নেয়। সুনামগঞ্জ পুশিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খাঁন বলেন, নিজের লাইসেন্সকৃত বন্দুক দিয়ে অহেতুক জনমনে আতংক সৃষ্টি ও জননিরাপত্তা বিঘিœত করার অভিযোগে পুলিশ ফেরদৌসকে গুলি, গুলির খোসা ও বন্দুক সহ গ্রেফতার করেছে। তিনি আরো বলেন, সে অস্ত্র আইনের ১২ ধারা লঙ্ঘন করেছে,এ ব্যাপারে পুলিশের পক্ষ থেকে রাতেই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে এছাড়াও এ ধরণের অপরাধ ও জননিরাপত্তা করার কারনে তার বন্দুকের লাইসেন্স বাতিলের জন্য পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নিবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!