1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ১০:৪৩ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জের আবুয়া নদীতে ৯ বছরেও শেষ হয়নি সেতু নির্মাণ

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ২২ জুলাই, ২০১৭
  • ৮ বার পড়া হয়েছে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ফতেহপুর ইউনিয়নের আবুয়া নদীতে একটি সেতুর অভাবে চারটি উপজেলার জনসাধারণের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ২০০৮ সালে নদীর ওপর সেতু নির্মাণ শুরু হয় কিন্তু ৯ বছরেও তা সমাপ্ত হয়নি। নদীতে সেতু না থাকায় জেলা সদরের সাথে সড়কপথে যোগাযোগ করতে বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর, ধর্মপাশা উপজেলা ও মধ্যনগর থানাসহ সর্বস্থরের জনসাধারণ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। সেতু হলে এলাকার লোকজন বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সদর দিয়ে টাকা ও সময় নষ্ট করে না গিয়ে তাহিরপুর-ফতেহপুর-নিয়ামতপুর-সুনামগঞ্জ এই সড়ক দিয়ে জেলা সদরে কম সময়ে যাতায়াত করা সহজ । এ দিকে সেতু না থাকায় জেলা পরিষদ থেকে লিজ নিয়ে নদী পারাপারে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে ইজারাদার। নদী পারাপারে ব্যবহৃত একটি মাত্র ছোট ইঞ্জিন চালিত নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, বাইসাইকেল, মোটরসাইকেল, ঠেলাগাড়ি, ভ্যানগাড়ি, অন্যান্য মালামাল ও যানবাহন পারাপার করতে গিয়ে সময় নষ্ট ও প্রায়ই নৌ-দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।
জানা যায়, তাহিরপুর উপজেলা থেকে ফতেহপুর-নিয়ামতপুর সড়ক দিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা যেতে সময় লাগে ৩০-৩৫ মিনিট। সেতু নির্মাণ না হওয়ায় সারা বছর জেলা সদরের সাথে তাহিরপুর, ধর্মপাশা উপজেলা মধ্যনগর থানা ও ফতেহপুর ইউনিয়নের লোকজন বাধ্য হয়ে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সদর দিয়ে জেলা সদরের সাথে যোগাযোগ করছে। জেলার অবহেলিত জামালগঞ্জ উপজেলার বিচ্ছিন্ন ইউনিয়নের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে সাচনা বাজার পরিচিতি পাওয়ার সুবাদে প্রতিদিন শত শত লোকজনের পার হতে হয় নদীটি। এ ছাড়া এখানকার বেশির ভাগ কৃষক, সবজি চাষিরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বেচাকেনার জন্য নৌকা দিয়ে আসা-যাওয়া করতে গেলে যাতায়াত খরচ বেড়ে যায়। ফলে কষ্টার্জিত কৃষিজাত পণ্য বিক্রি করে লাভের বদলে ক্ষতির শিকার হচ্ছে। জেলা সদর, চার উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারণ এ নদীতে সেতু নির্মাণের ও এই সড়কের ভাঙা অংশ মেরামতের জন্য দীর্ঘ দিনের দাবি জানালেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।
সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আবুয়া নদীর ওপর ২০০৮ সালে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে সেতুর নির্মাণ শুরু করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। সেতু নির্মাণের কাজ শুরুর পর নদীর দুই পারে দুইটি পিলার করার পর নদীর মধ্যে অর্ধনির্মিত একটি পিলার পাইলিংয়ের সমস্যা দেখিয়ে কাজ বন্ধ করে দেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এরপর দীর্ঘ ৯ বছরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় এভাবেই পড়ে আছে।
জানা যায়, জেলার পাগলা-জগন্নাথপুর সড়কে সাতটি ও বিশ্বম্ভরপুরের আবুয়া নদীতে একটি সেতুর প্রয়োজনীয় কাগজ তৈরি করে ঢাকা পাঠানো হচ্ছে খুব শিগগিরই একনেকে অনুমোদনের জন্য। অনুমোদন পেলেই কাজ শুরু হবে।
ফতেহপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা প্রসূন কান্তি দাশ প্রণয়, বিজিত মিত্র, ছাত্রছাত্রী জানায়, আবুয়া নদীর ওপর একটি সেতু নির্মিত হলে জেলা সদরের সাথে যোগাযোগসহ এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারণের ব্যবসা-বাণিজ্য করা, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীদের চলাচলের পথ সুগম হতো, ভোগান্তি থেকেও মুক্তি পেতাম। স্থানীয় বাসিন্দা মোহাম্মদ বাবলু আজাদ ও এলাকার কৃষক বলেন, এ পর্যন্ত তিনজন এমপি নির্বাচিত হয়েছেন, কিন্তু এই নদীর ওপর অসমাপ্ত সেতু নির্মাণের জন্য কারো মাথাব্যথা নেই। আমাদের হয়েছে যত বিপদ। কাউরে কইতেও পারি না সইতেও পারি না। এ ব্রিজটি নির্মাণের আগে মাটির পরীক্ষায় ত্রুটি ছিল। খামখেয়ালির জন্য সরকারের কোটি টাকার প্রজেক্ট রসাতলে গেল।
ফতহেপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রাজন চৌধুরী বলেন, এই নদীর ওপর একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে সারা বছর তাহিরপুর, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা তথা মধ্যনগর থানার জনসাধারণ আবুয়া নদী পার হয়ে জেলা সদরে সহজে চলাচলের সুবিধা এবং ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসার প্রসার ঘটাতে পারত খুব সহজে। আমরা চাই অনতি বিলম্বে এর সমাধান করা হউক।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিছবাহ জানান, সেতুটির দীর্ঘ দিন ধরেই কাজ বন্ধ রয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ জনস্বার্থে এই সেতুটি দ্রুত নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!