সালমানের লেখা চিরকুট এখনো আমার কাছে আছে…ববিতা

বিনোদন প্রতিবেদক: নায়ক সালমান শাহ। মৃত্যুর দু’যুগ পরও এখনো আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা যার। এখনও টিভি পর্দায় তার অভিনীত ছবি প্রচার হলে দর্শক আগ্রহ নিয়ে দেখেন। তার অভিনীত ছবির গান টিভিতে প্রচার হলে তা দর্শক এড়িয়ে যেতে পারেন না!
মৃত্যুর এত বছর পরও শুধু দুর্দান্ত অভিনয় এবং ফ্যাশনের ভিন্নমাত্রা দিয়েই আজও দর্শকের হৃদয়ে গেঁথে আছেন সালমান। ঢাকাই ছবির ইতিহাসে এমন আর কোনো নায়কের ক্ষেত্রে এখনো ঘটেনি।
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নায়িকা ববিতার সঙ্গে সালমান শাহ ৪টি ছবিতে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছিলেন। এগুলো হচ্ছে- বাদল খন্দকারের ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, দীলিপ সোমের ‘মহামিলন’, শিবলী সাদিকের ‘মায়ের অধিকার’ ও জাকির হোসেন রাজুর ‘জীবন সংসার’।
দুটি ছবিতে সালমানের মায়ের ভূমিকায় এবং দুটি ছবিতে সালমানের ভাবির ভূমিকায় অভিনয় করেন ববিতা। দীলিপ সোমের ‘মহামিলন’ ছবির শুটিংয়ের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে ববিতা বলেন, কক্সবাজারে এ ছবির শুটিং হয়েছিল। আমার মনে আছে, একটি দৃশ্য ধারণ করা হচ্ছিল পাহাড়ের ওপর। দৃশ্যটিতে শুটিংয়ে অংশ নিয়েছিলাম আমি, রাজীব ভাই, শারমিন, সালমান শাহ ও শাবনূর। সেই দৃশ্যটি ধারণের নানা সময় আমি শুটিংয়ে আনা অন্য একটি চেয়ারে বসি।
কারণ হোটেল থেকে আমার চেয়ারটি নিতে মনে ছিল না। সালমান বিষয়টি খেয়াল করে এবং শুটিংয়ে তার নেয়া চেয়ারটি আমাকে দেয়। আমি নিষেধ করার পরও সালমান তার নিজের ব্যবহৃত চেয়ারটি তখনই আমাকে দিয়ে দেয় এবং সেটি স্থায়ীভাবে। সেই চেয়ারটি দীর্ঘদিন আমার কাছে সংরক্ষিত ছিল।
তিনি আরো বলেন, একটি ঘটনার কথা আমার মনে আছে। যখন মোবাইল ফোন প্রথম বাজারে এলো, সে সময় সাইজে অনেক বড় ছিল। তো আমি সেই মোবাইল ব্যবহার করতে পারতাম না। সালমানই আমাকে একটি চিরকুটে মোবাইল ব্যবহার করার পদ্ধতি প্রথম শিখিয়ে দিয়েছিল।
সেটি দেখে পরবর্তীকালে মোবাইল ব্যবহার করা আমার কাছে বেশ সহজ হয়ে গিয়েছিল। সালমানের নিজের হাতের লেখা সেই চিরকুটটি এখনো আমার কাছে বেশ যত্নে রাখা আছে। সেই চিরকুটের মাঝে প্রায়ই আমাদের হারিয়ে যাওয়া সালমানকে খুঁজে বেড়াই।