সারাদেশে ১৭৬৪তম হয়ে মেডিকেলে উত্তীর্ণ দারিদ্রতা থামাতে পারেনি চাঁদনির স্বপ্নযাত্রাকে

মোঃ বেলাল হোসাইনঃ

‘ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয়’ তারই এক জলন্ত উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মেধাবী ছাত্রী চাঁদনী আক্তার (১৯)। আর্থিক অস্বচ্ছল এবং পিতা বিহীন পরিবারের অভাব অনটনের মাঝেও একমাত্র স্বপ্ন আর পরিবারের সহযোগীতা পেয়ে জেএসসি থেকে শুরু করে সকল পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ পেয়েছে। চাঁদনীর পরিবারের স্বপ্ন ডাক্তার হওয়ার। পরিবারের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে ২০১৭ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ পেয়ে নেমে পড়েন মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষার যুদ্ধে। মেডিকেল যুদ্ধেও পরাজয় বরণ করেনি সে। চাঁদনী ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে সারাদেশে ১৭৬৪ পজিশনে থেকে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন রংপুর মেডিকেল কলেজে।
চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার দক্ষিন ফাল্গুনকরা গ্রামের মৃত শাহজাহান কবির মোল্লার পরিবারে মাত্র ৪টি মেয়ে। এদের মধ্যে ২য় মেয়ে চাঁদনী আক্তার। চাঁদনী ছোট থাকাকালীন পিতা মারা যান। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষন ব্যাক্তিকে হারিয়ে যখন দিশেহারা তখনি মা নুরজাহান বেগম সিদ্ধান্ত নেন দারিদ্রতাকে জয় করার। যেহেতু নিজে এসএসসি পাশ তাইতো পড়ালেখার গুরুত্ব তিনি বুঝেন। মেয়েদেরকে এই অবস্থায় থেকে বিয়ে দিলে হয়তো বড়জোড় একটি বিদেশী ছেলে পাওয়া যাবে কিন্তু পিতাহীণ মেয়েদের ভবিষ্যতের নিরাপত্তা কে দিবে? এই ভাবনা থেকেই মা নুরজাহান বেগম সিদ্ধান্ত নেন মেয়েদের পড়ালেখা করিয়ে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার। কঠিন দারিদ্রতাকে মেনে কখনো খেয়ে কিংবা না খেয়ে মেয়েদের পড়ালেখার খরচ যোগাতেন তিনি। যার ফলে বড় মেয়ে সালমা খানম সকল পরিক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়ে বর্তমানে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে রসায়ন বিভাগে অনার্স শেষ বর্ষে অধ্যয়নরত।
মায়ের স্বপ্ন আর বড় বোনের দেখানো পথ ধরেই এগিয়ে যান চাঁদনী। মায়ের কষ্টার্জিত অর্থের ব্যয়কে স্বার্থক করে তোলার কাজে শুরুতেই পারদর্শীতা দেখান চাঁদনী। যার ফলশ্রুতিতে ২০১২ সালে চৌদ্দগ্রামের বাতিসা গার্লস হাইস্কুল থেকে জেএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। ২০১৫ সালে একই বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে অংশ নিয়ে এসএসসি’র ঘোষিত ফলাফলে গোল্ডেন জিপিএ পেয়ে উত্তীর্ণ এবং সর্বশেষ ২০১৭ সালেও বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচএসসি পরিক্ষায় অংশ নিয়ে পূর্বের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে গোল্ডেন জিপিএ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। মায়ের স্বপ্নকে সত্যতায় রুপ দিতে চাঁদনী নেমে পড়েন দেশের সবচেয়ে বড় এবং কঠিন ভর্তিযুদ্ধ মেডিকেল এডমিশনে। ২০১৭-১৮ সেশনের মেডিকেল ভর্তি পরিক্ষায় সে অংশ নিয়ে সারাদেশে মেধাতালিকা ১৭৬৪ পেয়ে রংপুর বেগম রোকেয়া মেডিকেল কলেজে ভর্তির সূবর্ণ সুযোগ অর্জন করেন।
আলাপকালে চাঁদনীর বড় বোন ও ভিক্টোরীয়া কলেজের মেধাবী ছাত্রী সালমা খানম এবং চাচী জাহানারা বেগম জানান, আর্থিক অসচ্ছল পরিবারে জন্মগ্রহণ করেও পিতা-মাতা এবং এলাকার মুখ উজ্জল করেছে এই মেধাবী শিক্ষার্থী। অভাব অনটনে থেকেও কখনো লেখাপড়ায় পিছুপা হয়নি সে। আদম্য ইচ্ছাশক্তি আর প্রচেষ্টার ফসল পেয়ে সে মেডিকেলে উত্তীর্ণ হয়েছে। চাঁদনীর এই অর্জনে এলাকার সাধারন মানুষও খুশিতে আতœহারা।
রিপোর্ট করাকালীন সময়ে রংপুরে থাকা মেধাবী ছাত্রী চাঁদনী প্রতিবেদককে জানান, সংসারের টানাপড়েনের মাঝেও মেডিকেলে চান্স পাওয়ায় আমি খুব আনন্দিত। আজকের এই অর্জনে আমার মায়ের ভুমিকার পাশাপাশি, বড়বোন, প্রতিবেশী এবং বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষকদের অবদান অনস্বীকার্য। ভবিষ্যতে ডাক্তার হওয়ার সুযোগ পেলে সে দেশের গরীব ও সাধারন মানুষের পাশে দাঁড়াবেন বলেও জানান। এজন্য মেধাবী ছাত্রী চাঁদনী দেশবাসীর নিকট দোয়া কামনা করেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!