1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

সব দলকে নির্বাচনে আনতে সরকারই বাধ্য: ফখরুল

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৪ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : নির্বাচনে আসতে কাউকে সাধাসাধি করা হবে না- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সব দলতে নির্বাচনে আনতে উদ্যোগ নিতে সরকার বাধ্য হবে।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলনে দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মির্জা ফখরুল এ কথা বলেন। বিকালে গণভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী। আর ফখরুল রাতে গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে পাল্টা ব্রিফিং করেন।

সদ্য সমাপ্ত কম্বোডিয়া সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন প্রধানমন্ত্রী। তবে গণমাধ্যম কর্মীদের বেশিরভাগ প্রশ্নই ছিল আগামী নির্বাচন সংশ্লিষ্ট। গত নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপিকে ভোটে আনতে সরকার কোনো উদ্যোগ নেবে কি না, বারবার এমন প্রশ্নই করে যাচ্ছিলেন সাংবাদিকরা।

তবে প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেয়ার সম্ভাবনা নাকচ করেছেন। বলেছেন, ২০১৩ সালে আলোচনার জন্য প্রস্তাব দিয়ে ‘ঝাড়ি খেয়ে’ ও অপমানিত হওয়ার কারণে এবার কোনো ইচ্ছা তার নেই।

নির্বাচনে আসা-না আসার সিদ্ধান্ত বিএনপির একান্ত মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে মাল্টিপার্টি ডেমোক্রেসি। কোন পার্টি ইলেকশন করবে, কোন পার্টি করবে না, এটা সম্পূর্ণ তার পার্টির সিদ্ধান্ত। তারা যদি নির্বাচনে আসতে চায়, এটা তাদের সিদ্ধান্ত, আর যদি করতে না চায়, এটাও তাদের পার্টির সিদ্ধান্ত। কাজেই এখানে আমাদের তো কোনো কিছু বলার দরকার নাই।’

তারা যদি নির্বাচন করতে চায়, চলে আসবে। যদি করতে না চায় তাহলে করবে না। কাজেই এত সাধাসাধির দরকারটা কী এখানে?’।

তবে বিএনপি ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচনে না এলেও আগামী নির্বাচনে তারা ‘নাকে খত দিয়ে’ আসবে বলেও ধারণার কথা বলেন শেখ হাসিনা।

‘নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়া একটি রাজনৈতিক দলের অধিকার’- এটা মানছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলও। তবে ‘বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষিতে নাকে খত দিয়ে বিএনপির নির্বাচনে যাওয়ার প্রশ্নই উঠে না’ বলেও জানান তিনি।

বিএনপি নেতা বলেন, সরকার যতই উদ্যোগ না নেয়ার কথা বলুক না কেন, বর্তমানে যারা সরকারে আছেন, তারা বাধ্য হতে হবে সব রাজনৈতিক দলগুলো যেন নির্বাচনে আসে তার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করতে।

‘যদি প্রধানমন্ত্রী দায়িত্বশীল নেত্রী হন, তাহলে অবশ্যই তাকে এদিকেই চিন্তা করতে হবে এবং জনগণের মনের আশা-আকাঙ্ক্ষাটা বুঝতে হবে। সেভাবেই তাকে কাজ করতে হবে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আপনরা নিশ্চয় লক্ষ্য করেছেন যে, আজকের সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের কাছ থেকে এই প্রশ্ন এসেছে যে এটা (নির্বাচন) সবচেয় বড় সংকট হয়ে দেখা দিয়েছে। সব দলের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে একটা গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠান করা। সেটা নিরপেক্ষ একটা সরকারের অধীনে নির্বাচন করা- এই প্রশ্নটা জাতির সামনে বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।’

‘এখন উদ্ধত ও দাম্ভিকতা দিয়ে তো ভবিষ্যতে দেশ শাসন চলবে না। দেশকে এগিয়ে নেয়া যাবে না, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া যাবে না।।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা সংঘাত চাই না, অস্থিতিশীলতা চাই না। আমরা এবারকার নির্বাচন যাতে সত্যিকার অর্থে বাংলাদেশের জন্যে ভবিষ্যতে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করা সম্ভব হয়, গণতন্ত্রকে এখানে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া সম্ভব হয়, জনগণের অধিকার যেন প্রতিষ্ঠিত হয় সেটাই আমরা চাচ্ছি, জনগণ সেটা চাচ্ছে।’

বিএনপির সঙ্গে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রীর অনীহার বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এটা তার (প্রধানমন্ত্রী) দায়। আজকে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা এবং সব দলগুলোকে নির্বাচনে নিয়ে আসা যিনি সরকারের প্রধান তার দায়।…নির্বাচন করবেন কি করবেন না, নির্বাচন হবে কি হবে না এটার দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসনকে ক্ষমা চাইতে হবে- প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন বিএনপি মহাসচিব। বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষমা চাওয়ার ব্যাপারে তিনি যেটা বলেছেন এটা জনগণের কাছে হাস্যকর মনে হবে। গত আট থেকে নয় বছর ধরে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর থেকে এবং দ্বিতীয় দফায় ২০১৪ সালে বিনা নির্বাচনে সরকার গঠন করার পরে জনগণের ওপরে তারা যে অত্যাচার-নির্যাতন-নিপীড়ন করেছে, করে চলেছে এবং সম্পূর্ণ গণবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সেক্ষেত্রে ক্ষমা কাকে চাইতে হবে সেটা জনগণই বিচার করবেগ।’

‘সেজন্য দেশনেত্রী আগেই বলে দিয়েছেন যে, তার ওপরে, তার দলের ওপরে এবং দেশের মানুষের ওপরে যে নির্যাতন চলছে, তিনি তার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ক্ষমা করে দিয়েছেন।’

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুল কাইয়ুম ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!