সব কারখানায় ভাতা নিয়ে বিজিএমইএর দাবি ‘ভুয়া’

নিজস্ব প্রতিবেদক : শতভাগ পোশাক কারখানায় বেতন বোনাস দেয়া হয়েছে-সংবাদ সম্মেলন করে বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানের এমন দাবির মধ্যেই বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে বিক্ষোভ হয়েছে রাজধানীতে। বিজিএমইএর সদস্য মন্ডি অ্যাপারেল লিমিটেডের কয়েকশ কর্মী জানিয়েছেন, তারা তিন মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। ঈদের আগে বকেয়া বেতন ও বোনাস দেয়ার আশ্বাস দিয়েও কথা রাখেনি মালিকপক্ষ।
শনিবার রাজধানীর কল্যাণপুরে দেড় ঘণ্টা সড়কে অবস্থান করে বিক্ষোভ করেন মন্ডি অ্যাপারেলের প্রায় আড়াইশ শ্রমিক।
প্রায় একই সময়ে বিজিএমইএ অফিসের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান দাবি করেন এবার ঈদের আগে তাদের তালিকাভুক্ত তিন হাজার একশ কারখানাতে বোনাস এবং মে মাসের বেতন হয়েছে। ৯৮ শতাংশ কারখানায় জুন মানের অগ্রিম বেতন হয়েছে, বাকি দুই শতাংশ কারখানাতে আজ শনিবারের মধ্যেই বেতন হবে।
শতভাগ কারখানায় বেতন-ভাতা হলে মন্ডির শ্রমিকদের বিক্ষোভ কেন-জানতে চাইলে বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘তারা বিজিএমইএর সদস্য না। তাদের দায় আমরা নেব না।’
তবে সিদ্দিকুর রহমান মন্ডি অ্যাপারেলস তাদের সদস্য নয় দাবি করলেও প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে কারখানাটিকে বিজিএমইএর সদস্য হিসেবেই বলা হয়েছে। এর সদস্য নম্বর দেয়া আছে তিন হাজার ৫৯৫। ওই ওয়েবসাইটে দেয়া দুটি মোবাইল ফোন নম্বরের একটিতে যোগাযোগ করা হলে ফোন ধরেন নুরুল ইসলাম। তিনি এই কারখানায় মহাব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করতেন। তিনি জানান, এই কারখানাটি বিজিএমইএর সদস্য।
অথচ বেলা দেড়টার দিকে কল্যাণপুর ওভারব্রিজের নিচে অবস্থান নেয় মন্ডি অ্যাপারেলের কর্মীরা। তারা গাবতলীমুখী রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বকেয়া পরিশোধের আশ্বাস দিলে বেলা তিনটার সময়ে শ্রমিকরা সড়ক থেকে সরে যায়।
কিন্তু এক পাশের রাস্তা বন্ধ থাকায় এবং অন্যপাশের গাড়ি ঘুরতে না পারায় ততক্ষণে যানজট গাবতলী পর্যন্ত পৌঁছে যায়। ফলে ঈদের আগে গাবতলীগামী বাস টার্মিনালগামী যাত্রীদের পড়তে হয় ভোগান্তিতে।
ওই পোশাক কারখানার একজন কর্মী বলেন, ‘গত এপ্রিল মাস থেকে আমাদের বেতন দেওয়া হয় না। আজ দেবে কাল দেবে করে ঘুরাচ্ছে। আজকেও দেওয়া হয়নি। সেজন্য রাস্তায় নেমেছি।’
ওই কর্মী বলেন, ‘এর আগে ২০ মে বলা হয়েছিল ৩০ তারিখে টাকা দেওয়া হবে। কিন্তু সেদিনও দেওয়া হয়নি।’
‘ঈদ আসছে। বোনাস দেবে কি, বেতনেরই খবর নেই। মালিক তিন দিনের কারখানাতেই আসেনি’-সাংবাদিকদেরকে বলেন ওই শ্রমিক।
তৈরি পোশাক খাতের মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর তালিকাভুক্ত মনড অ্যাপারেল লিমিটেডের মালিকের নাম নূর-ই-আলম সিদ্দিকী। শ্রমিকদের অভিযোগের বিষয়ে জানতে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
কারখানার আরেক কর্মী বলেন, ‘আমরা বাড়ি যাওয়ার কথা। কিন্তু যেতে না পেরে রাস্তায় নেমেছি। এমনে মাসের পর মাস বেতন না হলে কেমনে চলে?’।
শ্রমিকদের এই বিক্ষোভের বিষয়ে জানতে চাইলে দারুস সালাস থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ফারুকুজ্জামান ঢাকাটাইমসকে জানান, তারা দুই পক্ষের সঙ্গে কথা বলে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করছেন।
মালিকপক্ষ আপনাদেরকে কী জানিয়েছেন, জানতে চাইলে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের ঊর্ধ্বতন অফিসাররা মালিকপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তারা জানিয়েছেন আজ বিকাল পাঁচটার মধ্যে তারা সমস্যার সমাধান করবেন বলে জানিয়েছেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!