‘সন্ত্রাসে মদতদাতা রাষ্ট্রের’ তকমা পাচ্ছে পিয়ংইয়ং

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হোয়াইট হাউস সূত্রে জানা গেছে, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আরও কঠিন পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছে যুক্তরাষ্ট্র। কিম জং উনের দেশ উত্তর কোরিয়াকে ‘সন্ত্রাসে মদতদাতা’ রাষ্ট্রের তকমা দেওয়ার চিন্তা করছে যুক্তরাষ্ট্র। সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটি জানিয়েছেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ আর ম্যাকমাস্টার।

দশ দিনের এশিয়া সফরে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রেসিডেন্ট হিসেবে এটিই তার প্রথম এশিয়া সফর। চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়ায় গিয়ে রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে বৈঠকের চিন্তা রয়েছে ট্রাম্পের। এর ঠিক আগে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে এত বড় পদক্ষেপের ভাবনা-চিন্তা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা।

মার্কিন হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও একের পর এক পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। এমনকী উত্তর কোরিয়া থেকে সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি শহরকে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

শাস্তি হিসেবে পিয়ংইয়ংয়ের উপর কড়া আর্থিক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ওয়াশিংটন। এমনকী জাতিসংঘও সরব হয়েছে কিমের বিরুদ্ধে। আর্থিক ভাবে উত্তর কোরিয়াকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ার হুমকিও দেওয়া হচ্ছে ক্রমাগত।

সাংবাদিক সম্মেলনে কিমের সৎভাই কিম জং ন্যামের মৃত্যুর প্রসঙ্গ টেনে ম্যাকমাস্টার বলেন, ‘কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে খুন হন ন্যাম। একটা দেশের সরকার যখন নার্ভ গ্যাস ব্যবহার করে প্রকাশ্য বিমানবন্দরে কাউকে খুন করে এবং যিনি খুন হয়েছেন তারই ভাই নিজে সেই খুনের নেপথ্যে থাকেন, তাকে সন্ত্রাসবাদ ছাড়া অন্য কিছু বলা যায় না। সুতরাং আমরা উত্তর কোরিয়াকে সন্ত্রাসবাদের মদতদাতার তকমা দেওয়া নিয়ে ভাবছি। খুব শীঘ্রই আপনারা বাকিটা জানতে পারবেন।’

একই সঙ্গে আর্থিক ভাবে উত্তর কোরিয়াকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য বিশ্বের বাকি দেশগুলোর সঙ্গে তারা আলোচনা চালাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন ম্যাকমাস্টার।

এদিকে পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে বেজিংয়ের ভালো বন্ধুত্বের কথা অজানা নয়। পিয়ংইয়ংয়ের পরমাণু পরীক্ষা নিয়ে প্রথম দিকে বেজিং নীরব থাকলেও পরে মুখ খুলেছে তারা। কিমকে সংযত থাকার বার্তাও দিয়েছে বেজিং। মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার বক্তব্য, ‘চীন আগের থেকে অনেক বেশি সক্রিয়। তবু বেজিংয়ের এ নিয়ে আরও কিছু করা দরকার। আসলে চীনের এটা বোঝা উচিত, যুক্তরাষ্ট্র নিজের জন্য কোনও উপকার চাইছে না। উত্তর কোরিয়ার সামনে গোটা বিশ্বই এখন বিপন্ন।’

একদিকে, আমেরিকা যখন পিয়ংইয়ংকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করছে, উল্টে তাদের বিরুদ্ধে আগ্রাসনের অভিযোগ এনেছে উত্তর কোরিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!