সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমছে: সংসদে অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : সমালোচনা হলেও সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে নতুন হার নির্ধারণের ক্ষেত্রে নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
বুধবার রাতে জাতীয় সংসদে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেন অর্থমন্ত্রী।
গত কয়েক বছর ধরে ব্যাংকের সুদের হার কমে গড়ে পাঁচ শতাংশের মতো হয়েছে। তবে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ১১ শতাংশেরও বেশি। এ কারণে সঞ্চয়পত্র কেনার ঝোঁক বেড়েছে।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ইতিমধ্যে জেনেছেন চলতি অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র খাত থেকে আমাদের নিট গ্রহণের পরিকল্পনা ছিল ১৯ হাজার ২০৭ কোটি। যেখানে এপ্রিল পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে ৪২ হাজার ২৯০ কোটি।’
‘মূলত ব্যাংক ব্যবস্থায় সুদের হার কমার কারণে সঞ্চয়পত্রের চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। কাজেই সঞ্চয়পত্র থেকে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ঋণ গ্রহণ করতে হচ্ছে। ফলে সুদ বাবদ ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এতে সরকারের আর্থিক ব্যবস্থাপনার ওপর চাপ তৈরি হচ্ছে। এই বাস্তবতার বিষয়টি আমি উত্থাপন করেছি।’
সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমবে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সুদের হারের সঙ্গে মূল্যস্ফীতির গভীর সম্পর্ক রয়েছে। মূল্যস্ফীতি বাড়লে সুদের হার বাড়ে আর মূল্যস্ফীতি কমলে সুদের হার কমে। বিষয়টি তাই আমাদের পুনর্বিবিবেচনা করতে হবে। অনন্তকালের জন্য সঞ্চয়পত্রের সুদের হার নির্দিষ্ট থাকতে পারে না।’
সুদের হার কমাতে গিয়ে নিম্ন মধ্যবিত্তরা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে দিনে লক্ষ্য রাখার আশ্বাস দেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘দেশবাসীকে আশ্বস্ত করতে চাই, জাতীয় সঞ্চয়পত্রের সুদের হার নির্ধারণের কারণে কোনো নিম্ন মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তরা যেন কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়টি আমাদের বিবেচনায় থাকবে।’
সঞ্চয়পত্র সবাই কিনতে পারবে না-এমন ইঙ্গিত দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সঞ্চয়পত্রের মাধ্যমে যে সামাজিক নিরাপত্তার সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে তা যেন সঠিক ব্যক্তিরা পায়। সে জন্য আমরা একটি পূর্ণাঙ্গ তথ্যভাণ্ডার তৈরি করব, যেখানে জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যের সঙ্গে সঞ্চয়পত্রের তথ্যকে সম্পৃক্ত করা হবে।’
তিনি বলেন, যে সামাজিক সুরক্ষার দিকটা আছে, সেটা কীভাবে রক্ষা করা যায়, সে ব্যাপারে আমরা তথ্য পাওয়ার চেষ্টা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!