শ্রীপুরে গ্রাম্য শালিসে যুবককে জুতারমালা পড়িয়ে বেত্রাঘাত

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি : শ্রীপুর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের এক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর চেষ্টার অভিযোগে এক যুবককে গ্রাম্য শালিসে গলায় জুতার মালা পড়িয়ে দিয়ে বেত্রাঘাত করে যুবকের খাস জমি লিখে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অত:পর রাতে ওই যুবকের বিরুদ্ধে স্কুল ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলাও দায়ের করা হয়েছে।অভিযুক্ত যুবক উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেক মিয়ার ছেলে আনোয়ার হোসেন (২৫)। সে স্থানীয় এসকিউ গ্রুপের এসকিউ ষ্টেশন (কালার মাষ্টার) নামক একটি সোয়েটার কারখানায় অপারেটর হিসেবে কাজ করে।এলাকাবাসী ও স্কুল ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীকে বিদ্যালয়ে যাওয়া আসার পথে বিভিন্ন সময় উত্যক্ত করতো অভিযুক্ত যুবক আনোয়ার হোসেন। গত রোববার বিকেলে গৃহশিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়তে যায় ওই স্কুল ছাত্রী। সন্ধ্যায় বাড়ি ফেরার পথে আনোয়ার হোসেন তাকে হাত ধরে টানাটানি করে। এসময় মেয়েটি চিৎকার শুরু করলে এলাকাবাসী এসে মেয়েকে উদ্ধার করেন। পরে মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে ঘটনাটি স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্যের মাধ্যমে ইউপি চেয়ারম্যানকে জানানো হয়। রাত আটটার দিকে দুই জন গ্রাম পুলিশ ও দফাদার দিয়ে আনোয়ারকে নয়াপাড়া বাজারের আব্দুস সামাদ মিয়ার দোকানের পাশে রশি দিয়ে বেঁধে রেখে কয়েক দফায় মারধর করা হয়।সোমবার বেলা ১১টায় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নয়াপাড়া বাজারে গ্রাম্য সালিশের আয়োজন করেন। এতে চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, ৩নং ওয়ার্ড সদস্য মিজানুর রহমান, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ, স্থানীয় মাতাব্বর আব্দুল আওয়ালসহ গ্রামে বেশ কয়েজন লোকের উপস্থিতিতে আনোয়ার হোসেনকে দোষী সাব্যস্থ করে কান ধরে গলায় জুতার মালা দিয়ে বেত্রাঘাত করতে করতে পুরো গ্রামে ঘুড়ানো হবে মর্মে রায় প্রদান করেন। পরে, একটি স্ট্যাম্পের মাধ্যমে আনোয়ার হোসেন, তার ভাই ছানোয়ার হোসেন ও তার মা চাঁন বানুর নিকট থেকে তাদের একমাত্র সম্বল দখলে থাকা ৫গন্ডা সরকারী খাস জমি ওই স্কুল ছাত্রীর নামে লিখে দেয়া হয়। অতঃপর রাতে ছাত্রীর নানা আফাজ উদ্দিন বাদী হয়ে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেনকে আসামী করে শ্রীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।এ বিষয়ে অভিযুক্তের ভাই সানোয়ার হোসেন বলেন, তার ভাইকে মিথ্যা অভিযোগের ভিত্তিতে ধরে নিয়ে গ্রামের রাস্তায় তার গলায় জুতার মালা পড়িয়ে পুরো গ্রামে ঘোরানো হয়েছে। তাকে মারধরের ফলে সে এখন মুমুর্ষ অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। বিচারকদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নিয়ে ওই ছাত্রীর নামে ৫গন্ডা জমিও লিখে দিতে হয়েছে। এখন আবারো রাতে মামলা হওয়ায় গ্রেপ্তার আতংকে আনোয়ারকে সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করাতে পারছি না। থানায় যেহেতু মামলাই করবে তাহলে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মাতব্বরা আমাদের উপর এমন নির্যাতন করলেন কেন? এঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।ছাত্রীর মামা বলেন, ঘটনার পরপরই সু-বিচারের জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানাই। এরপর শালিস বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা আপোষ মীমাংসা করি। কিন্তু সোমবার রাতে শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক খন্দকার আমিনুর রহমান বাড়ীতে এসে থানায় অভিযোগ না দিয়ে কেন আপোষ মীমাংসা করা হয়েছে এবিষয়ে আমাদের কাছে জানতে চান। থানা পুলিশ মামলা করার পরামর্শ দিলে রাতে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়।গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ড সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মিজানুর রহমান বলেন, অভিযোগ উঠায় ওই যুবককে চেয়ারম্যান ও এলাকার অন্যান্য গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সালিশে যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সেই মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তাকে পুলিশে না দিয়ে নিজেরাই বিচার করা ঠিক হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এলাকার চেয়ারম্যান যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তাই হয়েছে। তার মতের বিরুদ্ধে আমরা যাইনি।গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম বলেন, মেয়েটির বাবা-মা অন্যত্র বিয়ে করে ঘর সংসার করে মেয়েটি তার নানার আশ্রয়ে বড় হচ্ছে। সে তার নানার কাছে থেকেই লেখাপড়া করে। আমি স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে ওই মেয়ের ভবিষতের কথা বিবেচনা করে উভয়পক্ষের সম্মতিতে আনোয়ারদের দখলীয় ৫গন্ডা খাস জমি মেয়ের নামে স্ট্যাম্পের মাধ্যমে লিখে দিতে সাহায্য করেছি।শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খন্দকার আমিনুর রহমান বলেন,এঘটনা মামলা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!