শুভ জন্মদিন হুমায়ূন আহমেদ

বাংলা সাহিত্যের নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ৬৯তম জন্মদিন আজ। নাটক, শিশুসাহিত্য, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী, চলচ্চিত্র পরিচালনা থেকে শিল্প-সাহিত্যের প্রতিটি ক্ষেত্রেই প্রতিভার স্বাক্ষর রাখা এই গুণী কথাসাহিত্যিকের জন্মদিন উপলক্ষ্যে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে টিভি চ্যানেলগুলো। এসব আয়োজনজুড়ে থাকছে হুমায়ূন বন্দনা। থাকছে চলচ্চিত্র, গান, নাটক, স্মৃতিচারণা ও মেলা।

হুমায়ুন আহমেদের জন্মদিনে রবিবার দিবাগত রাত ১২টা এক মিনিটে কেক কাটেন তার স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। এ সময় তার দুই ছেলে নিষাদ ও নিনিত ছাড়াও পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন উপলক্ষে হুমায়ূন মেলা আয়োজন করেছে চ্যানেল আই। তেজগাঁওয়ের চ্যানেল আই ভবনে মঙ্গলবার বেলা তিনটা পাঁচ মিনিটে হুমায়ূন মেলার উদ্বোধন পর্বে উপস্থিত থাকবেন হুমায়ূন আহমেদ পরিবারের সদস্য, কবি-সাহিত্যিক, নাট্যব্যক্তিত্ব, চ্যানেল আই-এর পরিচালকবৃন্দ ও জাতীয় দৈনিকের সম্পাদকবৃন্দ।

১৯৭২ সালে নন্দিত নরকে উপন্যাস দিয়েই হুমায়ূন আহমেদ কথাসাহিত্যে পালাবদলের তাৎর্যপূর্ণ ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। এরপর একের পর এক উপন্যাসে পাঠকের কাছে নন্দিত হয়ে উঠেছেন অভূতপূর্ব জনপ্রিয়তা নিয়ে। আমৃত্যু সেই জনপ্রিয়তার স্রোতে ভাটার টান পড়েনি।

দেশসেরা এই কথাসাহিত্যিকের জন্ম নেত্রকোনার কুতুবপুরে, ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর। বাবা ফয়জুর রহমান আহমেদ ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে শহীদ হন। মায়ের নাম আয়েশা ফয়েজ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের মেধাবী ছাত্র হুমায়ূন আহমেদ পাঠ শেষে ওই বিভাগেই প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। একপর্যায়ে তিনি অধ্যাপনা ছেড়ে লেখালেখি, নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাণে যুক্ত হন।

হুমায়ূন আহমেদ একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কারসহ দেশে-বিদেশে বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে, একুশে পদক (১৯৯৪), বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৮১), হুমায়ূন কাদির স্মৃতি পুরস্কার (১৯৯০), লেখক শিবির পুরস্কার (১৯৭৩), মাইকেল মধুসূধন দত্ত পুরস্কার (১৯৮৭), জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৩ ও ১৯৯৪), বাচসাস পুরস্কার (১৯৮৮) ইত্যাদি। দেশের বাইরেও সম্মানিত হয়েছেন হুমায়ূন আহমেদ। জাপানের ‘এনএইচকে’ টেলিভিশন তাকে নিয়ে ‘হু ইস হু ইন এশিয়া’ শিরোনামে পনের মিনিটের একটি ডকুমেন্টারি প্রচার করে। তিনি কোলন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে গত ১৯ জুলাই ২০১২ সালে নিউইয়র্কে মারা যান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.