শিশু লিজাকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গলাটিপে হত্যা করা হয়

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুরে নিহত শিশু লিজাকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গলাটিপে হত্যা করা হয় জানিয়েছে পুলিশ।সোমবার দুপুর ১২টায় জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের হল রুমে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. এহসান শাহ্ এ তথ্য জানান।পুলিশ সুপার বলেন, গত ১৫ জুলাই শনিবার বিকেলে স্কুল ছুটির পর বাইসাইকেল নিয়ে বাড়ির সামনের রাস্তায় বের হয় লিজা আক্তার (১১)। লিজা নিখোঁজের পর পর আসামি ফরিদ শেখ (৪০) ও জাকির শেখ (৩০) অসৎ উদ্দেশ্য চারিতার্থ করার জন্য লিজাকে প্রলভন দেখিয়ে মামা আলাউদ্দিন শেখের ঘরের ভেতর নিয়ে কুপ্রস্তাব দেন। কুপ্রস্তাবে রাজি না হলে লিজকে জাকির দু’পায়ে চেপে ধরে ও ফরিদ গলা টিপে লিজাকে হত্যা করে। পরে দুজনে মিলে লিজার মরদেহটি কাঁথা দিয়ে মুড়িয়ে ভ্যানে করে ঐদিন রাত ৮টার দিকে সখিপুর থানার ছৈয়ালকান্দি গ্রামের বুলবুল সরদারের পাট খেতের পানিতে ফেলে রেখে চলে যায়। প্রাথমিকভাবে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আসামি ফরিদ শেখ এসব কথা বলেছেন বলে জানান পুলিশ সুপার।পুলিশ সুপার মো. এহসান শাহ্ আরও বলেন, লিজার লাশের ময়নাতদন্তকারী ডাক্তার সদর হাসপাতালের চিকিৎসক সাবরিনা খান ও এহসানুল হক সাংবাদিকদের দেয়া তথ্য ছিল ভুল। এ সম্পর্কে অভিজ্ঞ নয় বলে তার ভুল তথ্য প্রদান করেছেন বলে তিনি মন্তব্য করেন।এ কর্মকর্তা বলেন, আমরা অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছে মরদেহটি প্রায় সপ্তাহ খানিক পানি কাদায় থাকার করণে পঁচন ধরে লিজার জরায়ু, লিভার, ফুসফুস, কিডনি ও হৃদযন্ত্রসহ শরীরের গুরুপ্তপূর্ণ অঙ্গ পচে যেতে পারে। শরীরের নরম অংশগুলো শিয়াল, গুঁই সাপ ও কাদায় খেয়ে ফেলতে পারে এ পর্যন্ত আমাদের ধারণা। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নড়িয়া সার্কেল) আব্দুল হান্নান, পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খলিলুর রহমান, শরীয়তপুর ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সাহা, সখিপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মঞ্জুরুল হক আকন্দসহ পুলিশ সদস্য ও জেলার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই শনিবার বিকেলে স্কুল ছুটির পর বাইসাইকেল নিয়ে বাড়ির সামনের রাস্তায় বের হয় লিজা। সন্ধ্যা হয়ে গেলে বাড়িতে না ফেরায় খোঁজাখুঁজি করে তার পরিবার। পরে সখিপুর থানায় একটি জিডিও করা হয়। আটদিন পর গত ২২ জুলাই শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সখিপুর ইউনিয়নের ছৈয়ালকান্দি গ্রামের একটি পাট খেতের পানিতে লিজার মরদেহটি ভাসতে দেখে স্থানীয়রা। সখিপুর থানায় খবর দিলে লিজার মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। পরে লাশের ময়নাতদন্ত করার জন্য মরদেহটি শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় গতকাল ২৩ জুলাই লিজার বাবা লেহাজ উদ্দিন শেখ বাদী হয়ে সখিপুর থানায় ফরিদ ও জাকিরের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।মামলা অনুযায়ী রবিবার বিকেলে ফরিদকে ও সোমবার সকালে জাকিরকে সখিপুর থানার সরদারকান্দি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!