শিক্ষকদের হাতে গেলেই প্রশ্ন ফাঁস হয়: শিক্ষামন্ত্রী

পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের জন্য শিক্ষকদের দায়ী করে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘সবচেয়ে বিপদজনক জায়গা বিজি প্রেস থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার সম্ভবনা নেই, জেলা থেকে নেই, থানা থেকে নেই। কেবলমাত্র পরীক্ষার দিন সকাল বেলা ওই দিনের প্রশ্নটা প্রকাশ হয়ে যায়। কারণ, প্রশ্নটা যখন সকাল বেলা শিক্ষকের হাতে দেওয়া হয় তখন কিছু শিক্ষক আগে থেকে অ্যারেঞ্জমেন্ট করে রাখেন। সকাল বেলা যখন তাদের হাতে প্রশ্ন যায়, তারা প্রশ্নপত্র ছাত্রদের দিয়ে দেন।’

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ সদস্য ফজিলাতুন নেসা বাপ্পির সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘গত কয়েক বছরে এত প্রচেষ্টা নিয়েও প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধ করা যাচ্ছে না। আমরা এবার পদক্ষেপ নিয়েছি, আধা ঘণ্টা আগে প্রশ্নের খামটা খোলা হবে। আর আধা ঘণ্টা আগে শিক্ষার্থীরা হলে ঢুকবে। এতে তাদের সুবিধাও হবে। একটু রেস্ট পাবে। খাতায় তার নামধাম লেখালেখির কাজও সেরে নেবে।’

প্রশ্নফাঁস বন্ধে সবার সহযোগিতা চেয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্ন ফাঁস যাতে বন্ধ হয় এ জন্য সবার সহযোগিতা চাই। তা না হলে এগোতে পারব না।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সমস্যাটা হয়েছে, তার জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত করে যারা দোষী সাব্যস্ত হবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ছাত্র সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ছাত্র সংসদ নির্বাচন করাতে সরকারের পক্ষ থেকে উৎসাহিত করা হয় হচ্ছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নির্বাচন করতে রাজি হয় না। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেহেতু স্বায়ত্তশাসিত, তাই সরকারের পক্ষ থেকে জোরও করা যায় না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!