লাউ চাষে বদলে গেছে জীবন

কুমিল্লাবিডি ডেস্ক :শাহীন রাড়ী। বয়স ৫৫। পেশায় একজন কৃষক। তিন ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের সদস‌্য সংখ‌্যা সাত। থাকেন মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার রমজানপুর ইউনিয়নের চরপালরদী গ্রামে।
শাহীন রাড়ীর উপার্জনের টাকায় চলে সংসার। বছরের ১২ মাস কৃষি কাজে ব্যস্ত তিনি। সবজি চাষ করেন। লাউ উৎপাদন করেন ১২ মাস। এতে প্রায় লাখ টাকা আয় হয়। তার এক ছেলে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছে। আর লাউ চাষ করে কৃষক হিসেবে সমাজে পরিচিতি লাভ করেছেন। তিনি বর্ষাকালে ভাসমান সবজির চাষ করেন।
লাল শাক, আলু, বেগুন, টমেটো, মিষ্টি কুমড়াসহ নানা সবজি চাষ করেন শাহীন রাড়ী। তবে প্রধান চাষযোগ‌্য সবজি লাউ।
তিনি বলেন, আমি ঋণ নিয়ে ফসল উৎপাদন শুরু করি। প্রথমে লোকসান হয়। কিন্তু পিছিয়ে যাইনি। মনোবল ধরে রেখে পরিশ্রম করে গেছি। চাকরি ছাড়াও যে স্বাবলম্বী হওয়া যায়, সেটা আমার অভিজ্ঞতা থেকেই বলছি।
তিনি জানান, এক বিঘা জমিতে লাউ চাষ করতে খরচ হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। খরচ বাদ দিয়ে এ থেকে সর্বোচ্চ ৮০ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব।
শাহীনের সফলতায় এ অঞ্চলের অনেকেই এখন সবজি চাষে উৎসাহী হয়ে উঠছেন। এর মধ‌্যে একই গ্রামের আলাউদ্দিন, রশিদুল ইসলাম, নিরঞ্জন সরকারসহ বেশ কয়েকজন কৃষক রয়েছেন।
তারা জানান, কৃষিপণ্য উৎপাদনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হওয়ার চেষ্টা করছেন। শাহীন রাড়ী তাদের কাছে অনুপ্রেরণা। একসময় তিনি অভাবে দিন পার করতেন। এখন তার জমিতেই পরিচর্যার কাজ করেন অনেক শ্রমিক।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে উপজেলায় সবজি চাষ হয়েছে প্রায় দুই হাজার হেক্টর জমিতে। আর এ থেকে প্রায় ১০ হাজার টন সবজি উৎপাদন হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস জানান, এ উপজেলার মাটির গুণাগুণ ভালো। শীতকালীন সবজি ছাড়াও বেশকিছু সবজি ১২ মাস উৎপাদন হয়। আমরা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সব সময় কৃষকদের সার্বিক পরামর্শ ও সহায়তা দিয়ে আসছি